আকাশ যে রঙেই ধারণ করুক না কেনো তার নিজস্ব রং নীল। ব্লগার খাদিজাতুল কুবরার পছন্দের রং নীল। খাদিজা নীল রং দিয়ে কাব্য সাজান। ” নীল অপরাজিতা  দিয়ে যাত্রা শুরু করেছিলেন পাঁঁচ মাস তেরো দিন আগে। এবং আজকের ” গৃহবধূ যখন লেখক” এই চমৎকার লেখাটি দিয়ে ৫০ তম পোস্ট পূরণ করলেন।

সোনেলা ব্লগের পক্ষ থেকে তার জন্য থাকলো নীল অপরাজিতার শুভেচ্ছা।

বাবার আদুরে কন্যা শান্ত সাবলীলভাবে মরুভূমির বালিয়াড়িতে পথ না হারিয়ে ; দিগন্ত থেকে পথ খুঁজে নিয়ে চলছেন নিরবধি। কখনো রঙিন প্রজাপতির মতো ডানা মেলে প্রকৃতির শোভা দেখছেন।  কখনো বর্ষার আকুল রূপে বিমোহিত হয়েছেন। এমন একদিনে, উনি নীল শাড়ি পরে স্মৃতির কল্পনায় নীল সমুদ্রের ঢেউ ভেঙ্গে হাঁটবেন দিগন্তরেখা ধরে। ওনার কবিতা পড়ে, এখন বৃষ্টি হলেই ওনাকে মনে পড়ে।

” বেলাভূমির লীলাবতী “র নাম দিলাম কবিতা। সমুদ্র থেকে লাল নীল নুড়ি কুড়িয়ে সহস্র মান অভিমান ভুলে দীপ্ত পদে এগিয়ে যান। ভালোবাসা দিয়ে ভালোবাসা জয় করেন।  ভালোবাসার ছোঁয়ায় হয়ে উঠেন পরিপূর্ণ কবি।

অনেকের কবিতা পড়ে অভিধান খুলতে হয়। কিন্তু খাদিজাতুল কুবরার কবিতার ভাষা সহজ ও সাবলীল।  তার কবিতার প্রধান বৈশিষ্ট্য ” আশাবাদী “। আমি মনে করি, সকল প্রাণের ভিতর লুকিয়ে থাকে কবির জীবন। প্রাণ তো দেখা যায় না। কবির অপেক্ষা, যতক্ষণ না তার কবিতা ” কবিতা ” হয়ে উঠছে ততক্ষণ। কবিতা তার প্রেম, প্রেমিক,  জীবন। কবিরা বিনি সূতা দিয়ে বর্তমান আর ভবিষ্যতকে বেঁধে রাখেন।

আপনি নীল পদ্ম হয়ে, নীল বসনে, নীল আকাশে, নীলের মাঝে হেসে হেসে, নীল নীল ভালোবাসা ছড়িয়ে সোনেলার সাহিত্যের পাতায় থাকেন।

আপনার ঠোঁটের স্মিত হাসি বীণার সুরে বেজে উঠে জয় করুক সবার মন। এমন প্রত্যাশা আমাদের সবার। ভালো থাকুন সবসময়।

৫৫৩জন ১২৬জন
162 Shares

৫১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য