সোনেলা দিগন্তে জলসিড়ির ধারে

Category: গল্প

কালো ছায়া

উর্বশী ৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ০৬:৪৩:০৩পূর্বাহ্ন গল্প ১১ মন্তব্য
,অরুদা,       তোমার চিঠিটা একটু আগে মাত্র পড়ে শেষ করলাম।প্রথম দু'মিনিট অবশ্য বুকভরে শুধু ঘ্রান নিয়েছি,তারপর বুকে ছুঁইয়ে রেখেছি,তারপর পড়েছি। পড়ার সনয় চোখ দুটো  বার বার ঝাপসা হয়ে যাচ্ছিল। চোখ মুছে মুছে পড়তে  হলো।ওহ, হ্যা,তোমার উপর খুব রেগে আছি আমি। এভাবে যদি খাওয়া- ঘুম বাদ দিয়ে ক্যাম্পে ক্যাম্পে লোকের সেবা করতে থাকো,একদিন  দেখবে তোমার সেবা [ বিস্তারিত ]

সূখের অসূখ দ্বিতীয় পর্ব

মনির হোসেন মমি ৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার, ১০:০১:৫৭অপরাহ্ন গল্প ১৩ মন্তব্য
স্বামীর ঘর নারীর আপণ ঘর।কোন নারীই কখনোই এ ঘর ছেড়ে যাওয়ার পক্ষে নয় যদি না  অসহনীয় কোননা কোন কারন থেকে না থাকে ।অনন্যা মনস্থির করলেন।শ্বাশুরী বয়স্ক মানুষ কয়দিন আর বাচবেন।তাছাড়া শেষ বয়সে এসে সবাই এমন একটু আধটু পাগলামী করেই থাকেন।শুনেছি মানুষ বুড়ো হলে নাকি শিশুদের মতন আচরণ করেন।কিন্তু স্বামীকে এসব বলা ঠিক হবে কীনা তাই [ বিস্তারিত ]

দুঃখবিলাসী

রেজওয়ানা কবির ৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, শনিবার, ০৮:৫১:২৫অপরাহ্ন গল্প ২০ মন্তব্য
প্রচন্ড বৃষ্টিতে ছাঁতা মাথায় ফার্মগেইট ওভার ব্রীজের সামনে দাঁড়িয়ে আছে দুঃখবিলাসী।  নামটি যেমন অদ্ভুত মেয়েটিও তেমন অদ্ভুত! দেখতে এতটাই সুন্দরী যে এই সুন্দর ব্যাপারটাই আজ তার জীবনের রুপরেখা পরিবর্তনের জন্য দায়ী। তখন প্রায় রাত ২ টা। এই মাঝরাতে দুঃখবিলাসী আনন্দ সিনেমা হলের সামনে এমনভাবে দাঁড়িয়ে আছে দেখে মনে হচ্ছে কাউকে খুজেছে সে!  পড়নে টকটকে লাল [ বিস্তারিত ]

সূখের অসূখ

মনির হোসেন মমি ২৮ আগস্ট ২০২১, শনিবার, ০৯:০৩:৩০অপরাহ্ন গল্প ১৩ মন্তব্য
খুব কষ্ট হচ্ছে ওর।আজ সারাটা দিন একটুও ঘরের বাহির হয়নি।শুধু ঘরের দখিনা জানালায় দাড়িয়ে ক্ষণিক পর পর দূর আকাশের দিকে তাকিয়ে কী যেন আনমনা হয়ে ভাবছিলো।আজকাল প্রায় সে এ ভাবে আনমনা হয়ে থাকেন।নতুন বউয়ের এমন দৃশ্য প্রায় দেখেন তার  শ্বাশুরী।এক সময় সে ভেবেই বসেন এই মেয়ে! না জানি কখন কোন অঘট ঘটিয়ে ফেলে। অনন্যা গল্পের [ বিস্তারিত ]

নীলাঞ্জনার শরৎ

উর্বশী ২৫ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ০২:১৩:০২অপরাহ্ন গল্প ১৭ মন্তব্য
নীলাঞ্জনা নামে একটি মেয়ে ছিল  সে  বেলী, সাদা গোলাপ , দোলন চাপা,ও যে কোনো  সাদা ফুলের পাশাপাশি শিউলি, বকুল খুব  পছন্দ করতো।  ষড়ঋতুর এই দেশে প্রতিটি  সিজনেই  তাই ফুলের তোড়া আনা ছিল বাধ্যতামূলক। এক সময় অভ্যাসেই পরিণত  হয়। শরৎ এলে কাশফুলের কাছে যাওয়া অন্যরকম  পাওয়া। প্রতিদিন  সদ্য ফোটা ফুল বা কাঁচা ফুল যা ই বলিনা [ বিস্তারিত ]

লীলাবতী

রোকসানা খন্দকার রুকু ২৫ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ০৯:৫০:৪৬পূর্বাহ্ন গল্প ২১ মন্তব্য
কেউ কাউকে এতোকরে মনে রাখার কোন কারণ ছিলো না। কিন্ত লীলাবতী আমায় মনে রেখেছে। সকালের কফির সাথে একটা মোর(সিগারেট) ধরানো আমার এ কবছরে অভ্যাসে পরিনত হয়েছে। সারাক্ষন খিটমিটে মেজাজ দমন না হলে আয়েশী মেজাজে সারাদিনের কলেজ, স্টুডেন্ট এসব করতে পারি না। টুকটুক করে দরজায় শব্দ হচ্ছে। কে, এতোসকালে একটু কনফিউজড হয়ে দরজা খুলতেই চোখ আকাশে। [ বিস্তারিত ]

শেষ আশ্রয়

রেজওয়ানা কবির ২০ আগস্ট ২০২১, শুক্রবার, ০৭:০৯:২০অপরাহ্ন গল্প ২১ মন্তব্য
ম্যাডাম,এটাই সেই ঠিকানা। একেবারে আনমনে ভাব কাঁটিয়ে চেতনে ফিরে এসে অহনা ড্রাইভার কে বলল, ঠিকআছে তবে এখানেই গাড়ি সাইড করাও। ড্রাইভার অহনার কথা শুনে গাড়িটি পুরনো তিনতলা বাড়ীটির পাশে সাইড করালো। অহনা গাড়ি থেকে নামার পর  লাগেজ হাতে নিয়ে ড্রাইভারকে বিদায় দিলো,যদিও গাড়িটি তার ছেলের তবুও অহনা এই ঠিকানা পর্যন্ত এই গাড়িতে এসেছে এটাতেই অহনার [ বিস্তারিত ]

লুচির দেশমাতৃকা

রিতু জাহান ১৯ আগস্ট ২০২১, বৃহস্পতিবার, ০৩:৫৪:০৫অপরাহ্ন গল্প ১৭ মন্তব্য
  সান্তাহার রেল কলোনিতে বিহারিদের দাপটে বের হওয়া যেনো প্রাণটা হাতে নিয়ে বের হবার মতো। জানটা যেনো ঠোঁটের কাছে আটকে থাকে যেকোনো সময় বের হয়ে যেতে পারে কারো খামখেয়ালীতে। মানুষের জীবনটা কি অদ্ভুত! মানুষই কেড়ে নেয় আস্ত অনুভূতিপ্রবণ একজন মানুষের প্রাণ। কিবরিয়া সাহেব,, রেলওয়ে পুলিশে চাকরি করেন। সেই সুবাদে রেল কলোনিতে তার বাস। ছোট্ট দুই [ বিস্তারিত ]

এইতো জীবন

রেজওয়ানা কবির ১৮ আগস্ট ২০২১, বুধবার, ১০:০৩:০৮অপরাহ্ন গল্প ১৫ মন্তব্য
একটা কিছু লিখতে চাই ভাবতে ভাবতেই এই দিনগুলি হচ্ছে গত,,,, কিন্তু কালতো আর ফিরে পাবো না এমনটা ভাবতে ভাবতেই ট্রেনের ঝিকঝিক শব্দ থাকা স্বত্বেও  চোখ দুটি  ঘুমে বিভোর হয়ে যাচ্ছিল নিয়নের । দুই/তিন মিনিট ও যে গভীরভাবে ঘুমিয়ে স্বপ্ন দেখা যায় তা নিয়নকে না দেখলে বোঝার কোন উপায় নেই। শুধুমাত্র এই লেখালেখির মাঝে নিজেকে খুঁজে [ বিস্তারিত ]

রোড নংঃ দুঃখ, বাড়ী নংঃ কষ্ট

রেজওয়ানা কবির ২ আগস্ট ২০২১, সোমবার, ০৯:২৯:২২অপরাহ্ন গল্প ১০ মন্তব্য
ধানমন্ডী লেক পার হয়েই লেনের প্রথম গলির প্রথম  দোতলা বাড়িটাই রহমান সাহেবের। বাড়ীর সামনে বিড়াট একটা সাইনবোর্ড টাঙ্গানো,যাতে বড় করে লেখা "রোড নাম্বার দুঃখ,বাড়ী নম্বর কষ্ট" কি অদ্ভুত নাম!!!যেমন বাড়ীর অদ্ভুত নাম ঠিক তেমনি বাড়ীর একেকজনের চরিত্র আরও অদ্ভুত। বাড়ীতে বাস করার ক্ষেত্রে প্রথম যে মানুষটার নাম বলতেই হয় তিনি হলো, রহমান সাহেব। দেখতে ফর্সা,লম্বা, [ বিস্তারিত ]

মমতার স্পর্শ

আরজু মুক্তা ৩০ জুলাই ২০২১, শুক্রবার, ০২:২৮:৫২অপরাহ্ন গল্প ২৪ মন্তব্য
করোনা পাল্টে দিয়েছে চেনা জীবনের ছক। বদলে দিয়েছে পৃথিবী। আগে যা ছিলো দূর কল্পনা,  তা হয়তো এখন বাস্তব। লকডাউনে  যেমন অনেক পরিবারের মানুষ নিকটে চলে এসেছে। তেমনি, আবার আর্থিক অনটন বা দুইজনের মাঝে বনিবনা না হওয়াতে যে যার পথ বেছে নিয়েছে। এমনি এক পরিবারের নীরব সাক্ষী আমি। আমার স্ত্রী করোনায় মারা গেলেন। নিজের একাকীত্ব ঘুচাতে [ বিস্তারিত ]

শ্রাবনে ভূতুরে প্রেম

রোকসানা খন্দকার রুকু ২৯ জুলাই ২০২১, বৃহস্পতিবার, ০৯:১৯:১৭অপরাহ্ন গল্প ১৮ মন্তব্য
দুপুরে খাবারের পর দু একজন ছাড়া ব্যাংকের সবাই মিষ্টি পান খায়।মেয়েদের ঠোঁট লাল হয়ে থাকে, দেখে মনে হয় এইমাত্র কেউ চুমু দিয়ে ঠোঁট লাল করে রেখে গেলো। বাসায় মামীমাও পান খান, এতো সব দেখে আমারও পান ভক্তি এসে গেছে। সবসময় খাওয়া হয় না, শুধু দুপুরে খাই। নিজের মধ্যে কেমন সুখী সুখী ভাব আসে। আমার ধারনা, [ বিস্তারিত ]
বন ঘেঁষা এক কাঠুরিয়ার বাড়ি। বাঁশ-খুঁটিতে দাঁড় কারানো ছনের ছাউনি ঘরটা ছাড়া কাঠুরিয়ার আর কিছুই নেই। জীবিকার একমাত্র উপায় ছিলো, গহীন বন থেকে কাঠ সংগ্রহ করে বাজারে বিক্রি করা। কাঠুরিয়ার ছেলেমেয়ে নেই। জায়গাজমিও নেই। বন থেকে কাঠ সংগ্রহ করে তা নিকটস্থ বাজারে বিক্রি করা কাঠুরিয়ার নিত্যদিনের কাজ। তা না হলে কাঠুরিয়ার ঘরে থাকা প্রাণপ্রিয় স্ত্রী-সহ [ বিস্তারিত ]

লকডাউন

দালান জাহান ২১ জুলাই ২০২১, বুধবার, ০৯:১০:৩১অপরাহ্ন গল্প ১৪ মন্তব্য
তিন সন্তানের জননী আছিয়া বেগম। তার দুই ছেলে ঢাকায় সোয়েটার কোম্পানিতে চাকরি করেন। গত মার্চে তার ছেলেরা বাড়িতে চলে এসেছেন। দুই ছেলেকে দেখে মায়ের  মন অনেক খুশি। কিন্তু এটাও প্রশ্ন করে, "দুইজন একসাথে ক্যান বাজান? চাকরি কী চইল্যা গেছে ? " ছেলেরা কথা কয়না শুধু দুই ঠোঁটের মাঝখানে একটা শব্দ উচ্চারণ করেন একজনে। এর মানে [ বিস্তারিত ]

অবুঝ প্রেমের গল্প

শামীনুল হক হীরা ৭ জুলাই ২০২১, বুধবার, ০৫:৪৫:৫৭অপরাহ্ন গল্প ৬ মন্তব্য
এক বিশাল ঘন জঙ্গলে দুটি সুন্দর সাদা পায়রা বাস করে ।খুব সুখেই চলছে তাদের সংসার। ভালোবাসার কোন কমতি নাই।একজনের প্রতি অন্যজনের ভালোবাসা সবকিছুকেই যেন হার মানায়।সময়মত দুজনের খাবার একজনে ভাগ করে খায় তবুও কোনকিছুর অভাব নেই।এক বেলা খাবার না জুটলেও কারো প্রতি কারো কোন অভিযোগ নেই।হাসিখুশিতে চলছে দিনের পর দিন।একদিন মেয়ে পায়রাটি বলছে আচ্ছা তুমি [ বিস্তারিত ]

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ