ছাইরাছ হেলাল

লেখালেখি আমার কম্ম নয় - সে আমি বুঝেছি জেনেশুনে বেশ আগে এবং ভালভাবেই, তবে পাঠক হওয়ার অদম্যতা দমনে অপারগ আমি বরাবরই......

  • নিবন্ধন করেছেনঃ ৭ বছর ৭ মাস ৩ দিন আগে
  • পোস্ট লিখেছেনঃ ৫৯০টি
  • মন্তব্য করেছেনঃ ১৬২৪৭টি
  • মন্তব্য পেয়েছেনঃ ১৮৫৭৫টি

অবসন্ন সূর্যাস্ত

ছাইরাছ হেলাল ৮ জুলাই ২০২০, বুধবার, ০৮:২১:০৭অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৩ মন্তব্য
  সারি সারি দীর্ঘ-পথে ক্রমশ বিস্তৃত লতাপাতা-ঝোপঝাড়ে, কণ্ঠ রোধের অকাল বৃষ্টি বন্যা দেখে দেখে হেঁটে-হেঁটে বিরূপ নিষ্ঠুর প্রকৃতিতে, সপে যায় তুচ্ছ এ প্রাণ; এ জীবন এখন যেন শুধুই চুপ থাকা চুপচাপ দেখে যাওয়া; সুখ-নিদ্রার আকাঙ্ক্ষা যেন অলৌকিক পাওয়া নির্বোধ অজ্ঞানতা এখন আকাশ ছোঁয়া, রুষ্ট-ক্রুদ্ধ ক্ষুধার আহার্য হৃদয়-আগুন-চুল্লিতে আর জ্বালানো হয় না। অবসন্ন সূর্যাস্তের প্রতিধ্বনি আমার [ বিস্তারিত ]

সোনাছায়া অবগাহন

ছাইরাছ হেলাল ৩ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ০৩:৫৬:৪৬অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২২ মন্তব্য
  টলটলে ভাসমান জলে সময়ের দীর্ঘ ছায়া খণ্ড-খণ্ড হয়ে ভাসে, হাস্যোজ্জ্বল ছবির মতো, ক্লান্ত কোলাহল এড়িয়ে; সুমধুর আলাপনে, নিবিড় অবগাহনে; প্রীতি চোখে শুধুই এঁকে রাখা স্বপ্নগুলো মৃদু হাসি ছড়িয়ে ঠোঁটে ঠোঁট রাখে; এখন-ও এই নিথর হৃদয়ে, উদ্দাম উচ্ছল কোলাহলে, সুখ-দুঃখের বর্ণিল রংধনু-ধরণীতে ছায়া ফেলে; হে সঞ্চিত আলো-ছায়া ফিরে ফিরে এসো হৃদয়ের সোনা-ছায়ায়, দ্বিপ্রহরের তীব্রতায়।

গলদ স্বপ্নের বদল

ছাইরাছ হেলাল ১ জুলাই ২০২০, বুধবার, ০৯:৪৫:৩২অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৮ মন্তব্য
  নাতিদীর্ঘ জীবনে দেখা-অদেখার-তীরে দাঁড়িয়ে খুঁজি অন্তহীন কাব্য-কথার মর্ম-কাহিনী, ক্রম বিষণ্ণতায় ডুবে ডুবে; নিষ্পলক আততায়ী চোখ রুদ্ধশ্বাস-উপহাস-অট্টহাস্যে তাকিয়ে আছে; সংহারি ভালোবাসার চাকা এখন এখানেও সচল পূর্ণমাত্রায়। দু’চোখ ঢেকে পথ-চিহ্ন এঁকে এঁকে ছন্দ পতনে, ছন্দের পতনে নিখুঁত হাত-সাফাই-খেলায় কপাল দোষে হৃদয়-অসুখ-স্বাস্থ্যে জোরদার নিমজ্জন। নাটুকে বিবাদ দৃশ্য! মিথ্যে ঝুড়ির স্তুতিবাদ! সে তো মেনে নেয়ার নয়; বিধাতা-বিরূপে, তবুও [ বিস্তারিত ]

কিছুই লিখছি-না আজ

ছাইরাছ হেলাল ২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ০৬:৩৭:৫৭অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩৪ মন্তব্য
  ভাবি লিখব, অনেক করে, অনেক কিছুই লিখব, লেখা হয়না কিছুই, এই যেমন লিখছি-না, এখন কিছুই। উল্লসিত সম্পর্ক-টম্পর্কগুলো প্রেত ছায়ার মত টানে, টেনে টেনে হঠাৎ ছিড়ে/ফেলে দিয়ে কেটে পড়ে, হুট-হাট করে, খণ্ড-বিখণ্ডতা নিয়ে কিছুই লেখা হয় না; নিশি ডাকা নির্বস্ত্র শ্মশান ডাইনি সটান দাঁড়িয়ে থাকে ব্রতচারীর মত, সামান্য অলক্ষ্য নিয়ে; আদিম শানাই-সুর ভেসে আসে দৃশ্য-দৃশ্যান্তর [ বিস্তারিত ]
  একটি সূচিমুখি-শয়তান (আমার)লেখা-নিবিষ্ট মনে আছর করে বসেছে, প্রবিষ্ট হচ্ছে, প্রবিষ্ট করাচ্ছে; যথেষ্ট খোঁড়া-খুঁড়ি নিয়ে/করে, যেন বৃষ্টি-জলে চৌবাচ্চা উপচে পড়ছে; চোরা-হাসি-মুখো-শয়তান মুষল ধরে মেঘ-সহায়তায় নিয়ম করে, এবেলায়-ওবেলায় স্বর ও ব্যঞ্জনবর্ণ শেখায় জোর-জবরদস্তি করে; হস্তাক্ষর দেখে চমকে উঠি, চিনে নিতে পারি না, অচেনা শব্দের মায়াজালে এ কোন আমি!! সময় বিচারহীন ফষ্টিনষ্টি-পণ্ডিত-শয়তানের দিক থেকে মুখ ঘুরিয়ে ভাবি, [ বিস্তারিত ]

আধো আকাশের চিঠি

ছাইরাছ হেলাল ২০ জুন ২০২০, শনিবার, ০৯:৪৩:৫৮পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ১১ মন্তব্য
  আধো আধার-আকাশ থেকে ডাক পিয়ন চিঠি নিয়ে আসে, স্বচ্ছ-আগাম-বার্তা, দীর্ঘ-সংক্ষেপে; একটু অনুমান, একটু ধারণা, ব্যাখ্যা, সংজ্ঞা, সামান্য-তত্ত্ব, আমার যা জ্ঞান-গম্মি, জানা-অজানা তার সমুদয় যোগফল-বিয়োগফল ভাগ-পুরণ থেকে, একটু বেশী একটু কম, আন্দাজ আর পরিমাপ শেষে, একটি বিস্তীর্ণ উপকুলে দেখতে পাই মুহূর্ত থেকে মুহূর্তের বৃষ্টি; এর সারমর্ম দৃশ্যমান হলে ভাবনারত হতে হতে হেঁচকি উঠে আসে, কুড়িয়ে [ বিস্তারিত ]

কদম ফুলের জুটি

ছাইরাছ হেলাল ১৯ জুন ২০২০, শুক্রবার, ০৯:৪২:১৫পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩৬ মন্তব্য
  বৃষ্টির টাপুর-টুপুর,না, টানা-বৃষ্টি, অঝোরে, শুকনো পাতার নূপুর!না, পাখি বা ঝিঁঝিঁ’র আওয়াজ-ও না, গুরুগুরু মেঘ-ধ্বনি অন্তহীন হৃদ-নৈঃশব্দ ভেদ করে; একরোখা কদম ফুলের জুটি আড়াল পাতায়! ‘সাধের যৌবন ভাইস্যা যায়’! কখনও খোলাখুলি, কোলাকুলি, মুখোমুখি! দখলিস্বত্বের তর্কাতীত জঙ্গি-শেষে শুধুই আলাপ-বদল মেঘামেঘি, উড়াল মেঘাকাশে ডানা-আঁকা-বৃষ্টি নক্ষত্রের ঝাড়বাতি নয়, শুধু কয়েক ফোঁটা করুণা-জল হয়ে ঝরবে হৃদয়ের আকাশ-মাটি-প্রান্তরে। যদিও চাই [ বিস্তারিত ]

জ্যৈষ্ঠের ডাক

ছাইরাছ হেলাল ১৮ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার, ০৯:৪১:৩২পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৬ মন্তব্য
  বাঁচার আনন্দে ভাগ বসাতে মূক হবো তর্ক-হীনের গোমরা-মুখ নিয়ে চাঞ্চল্যে-ভরপুর-সময় হাতরে; প্রত্যহের রুটিনে পরিপাটি থাকবো ইচ্ছানুসারে ঈষদুষ্ণ মধু-জলে ভিনিগার মিশিয়ে ঢক-ঢক করে গিলে নেব যতক্ষণ যতটুকু পারা যায়, সাধ, বেঁচে-থাকার বেঁচে-যাওয়ার; এ্যালোভেরার সুতীব্র সাধ ব্রহ্মতালুতে চেপে ঝাঁক-ঝাঁক নাছোড়-বান্দা জ্যৈষ্ঠ-ডাক রঙ্গন-পাখায় ঝরবে অবলীলায়।
  সময় চাকা চলছে নিরবধি অস্থির হচ্ছি-না, অসুস্থ-ও না, গল্পে গল্পে কাটা সময়-মোহনীয়তা; রিক্সার টুং টাং, মোটর বাইক আর গাড়ীর হুশ-হাস, সবজী ওয়ালার হাঁকডাক, এখন-ও সীমিত হয়ে প্রায় ঠিকঠাক সবকিছু, বিদ্যুতের সামান্য আসাযাওয়া। খুলে রাখা/দেওয়া দক্ষিণ-জানালা, হৃদ-জুড়ানো বৃষ্টি-হাওয়া, নিয়মমাফিক ট্রান্সট্রায়মারের কবিতায় মুখ-গোঁজা; সবকিছু ফেলে রেখে/ফেলে দিয়ে, শূন্যতার অতৃপ্তি ছুঁয়ে যতদূর হেঁটে গেলে, নির্বিঘ্নতার ছায়া পাওয়া [ বিস্তারিত ]

স্বপ্নের ডানা মেলা

ছাইরাছ হেলাল ১২ জুন ২০২০, শুক্রবার, ০৬:০৪:৩৯অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৯ মন্তব্য
  ক্ষীণ বাতাসে মিলিয়ে যায়/যাচ্ছে, মুহূর্তে মুহূর্তে, মুহূর্তের ভ্রান্তিতে, কাচ-ভঙ্গুর বিশ্বাসগুলো ফিরে এসে জানলায় উঁকি দেয়; ফিরে আসে স্বভূমিতে আবার-ও ভ্রান্তির মত; আত্মস্থ মুহূর্তগুলো অস্থিরতা বয়ে আনে, বিমুগ্ধতা না; বুক পকেটে লিখে রাখা স্বপ্নগুলো থমকে দাঁড়ায় ভারী বর্ষণ উপেক্ষায় রেখে, শুরু করে পথচলা আলোক-রেখা বরাবর; রুদ্ধশ্বাস আলোড়ন পেছনে ফেলে স্বপ্নেরা আবার ডানা মেলে দীঘল মিছিলে, [ বিস্তারিত ]

বৃত্ত বন্দীত্বে

ছাইরাছ হেলাল ১১ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার, ০৮:১১:৫৭পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩৮ মন্তব্য
  অক্ষর বৃত্ত, স্বর বৃত্ত, মাত্রা বৃত্ত, আরও আরও কত শত শত জানা-অজানা বৃত্ত-ফাঁদে বন্দী হতে হতে বিনির্মাণে নরক, নরকের যন্ত্রণা! থেমে যাইনি/থাকিনি/থাকবো-ও না। তাই বলে কামিনীর ঝোপ-ঝাড়ে উঁকি দেবোনা! ওঁত পাতবো-না নৈশব্দদের গুপ্ত ভাণ্ডারে! খুঁজবো-না অতিশব্দ, প্রতিশব্দ, পরাশব্দ, শ্লীল-অশ্লীলতা, পরস্পর মিত্রতার ছলে! সেটি হতে দিচ্ছি না; হলুলুলু বা চেরাপুঞ্জি বা আন্দামান বা সফেদ তাহিতি [ বিস্তারিত ]

শুধুই বিদ্ধ হতে চাই

ছাইরাছ হেলাল ১০ জুন ২০২০, বুধবার, ০৮:১০:০৭পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩২ মন্তব্য
  অস্তিত্বের অনন্ত-বৈভব নিয়ে ভাবি না, শ্রেণীবদ্ধ চিকন চিকন সুখ এখন অসুখের মত লাগে, বৈদিক ঋষির মত ধ্যানী বৃক্ষ হতে ইচ্ছে করে না, তূণীর থেকে তীর তুলে অলক্ষ্যে লক্ষ্য ভেদ ভালোলাগে না। কাশফুল-বনে লুকোচুরির ছলে আচমকা চেপে রাখা ইচ্ছেটি প্রবহমান করতে আর ইচ্ছে করে না, সামান্য খুনসুটি উপেক্ষা করে, শরীর মনের তীব্র জ্বলুনির জলজ বিস্তারে; [ বিস্তারিত ]

অরণ্য-বৃষ্টির চোখ

ছাইরাছ হেলাল ৮ জুন ২০২০, সোমবার, ০৮:৫৫:৪০পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩৪ মন্তব্য
  ঝলক-বৃষ্টির ছোঁয়ায় প্রশান্তির-জলেরা গড়ায় আলপথের ভাঁজে ভাঁজে, গ্রীষ্মের দাবদাহ শেষে, ফোটা-ফোটা বৃষ্টিতে জল-ধোয়া পাতারা-ও হাসে সবুজ নিঃশ্বাসে; উষ্ণিত বাতাস দাঁতে দাঁত চাপে, অচিরেই আসবে ফিরে সে নীরব-নিবিড়ে দাহের হাসি ঝুলিয়ে, অনায়াসে ঢুকে যাবে বুকের গভীরে, চ্যাংদোলা করে ফেলে দেবে উত্তপ্ত গিরি খাদের উষ্ণ-প্লাবনে, অগ্নিগিরির জ্বালামুখে; অরণ্য-বৃষ্টি চকচকে খোলা চোখে হাসির ফুলঝুরি ছুটিয়ে গোল-চোখে বলে, [ বিস্তারিত ]
  বৃষ্টি-ভ্রমণ চালু রেখে ভাবি আর কতটা ভিজলে কাক-ভেজা হতে পারি! মৃত্যুপুরীর পাশ-ঘেঁসে ঢালু পথ বেয়ে করোনা নিকটবর্তী হয়েও দিব্যি বুকে ফুঁ-দিয়ে ইজেলে রঙের পর রঙ চড়াতে পারি! আপনা-আপনি ধীরে-ধীরে গড়ে ওঠা দীর্ঘতর ছায়া-প্রান্তরের মানুষগুলোকে ক্রমান্বয়ে হারিয়ে-যাওয়া দেখতে থাকি! অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার মতো; স্পর্শ-অরণ্যে মিশে যাওয়ার আগে গোধূলির শেষ আবির মেখে সচিত্র হৃদয়ের ছাপ আঁকা চিত্রটি কী [ বিস্তারিত ]
  ক্রমাগত পান-করা-অন্ধকার আর-ও দৃশ্যমান হলে হঠাৎ রৌদ্রকরোজ্জেলতার দূরাভাস ভেসে ওঠে; অভিজ্ঞতার মরিচা-মরিচিকা ঝেড়ে ফেলে অনেক কিছু জানান দিয়ে; হতে পারে হঠাৎ কোন স্ফুলিঙ্গ অভিজ্ঞতার নূতন সোপানে। সামুরাই দেহে ড্রাগন শিরোস্ত্রাণ! এমন ছায়া দেখে হৃদকম্প জাগে, ধুমকেতুর অগ্নিপুচ্ছ দেখে ছিন্ন-প্রাণ কাঁপে, এই ছায়া-ঝড় নিঃস্বতার ভ্রুকুটি; রাত পোহালেই পদ্মপাতার পুকুর-জলে নিজের ছায়া দেখি, ঘনীভূত মেঘ-ছায়া-বৃষ্টির আড়ালে। [ বিস্তারিত ]

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য