কাঙ্খিত স্বাধীনতা

সুপর্ণা ফাল্গুনী ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ০৩:১৫:১৪অপরাহ্ন কবিতা ২৭ মন্তব্য

আজো হামিদুর,মতিউর,মুন্সি রউফের আত্নারা

ডুকরে কেঁদে মরে।

ত্রিশ লক্ষ শহীদের রক্ত আহাজারি করে বারেবারে।

আজো বাতাসে লক্ষ লক্ষ মা-বোনদের

আত্নচিৎকারে কেঁপে উঠে,

এদেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে থাকা

নরপিশাচদের অট্টহাসির ফোয়ারা।

আজো এখানে সেখানে লাশের অর্ধগলিত দূর্গন্ধ নাকে এসে ছুঁয়ে যায়।

অলিতে-গলিতে হায়নার দল ওৎ পেতে থাকে,

শিশু-কিশোরী-নারীর নরম মাংস ছিঁড়ে ছিঁড়ে খাবে বলে।

আজো মন্দিরে ধূপের বদলে সাম্প্রদায়িকতার অনলের ধোঁয়া দৃশ্যমান হয়।

কিশোরীর খোঁপায় গোঁজা ফুল আজো পিচঢালা,

মেঠোপথে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে কামার্ত পুরুষের ছোবলে।

আজো আবাল-বৃদ্ধবণিতা নৃশংস হত্যাকাণ্ডের

শিকার হয় রক্ত পিপাসু মানবের করালে।

স্বাধীনতার খোলসে মোড়ানো দেশমাতৃকা,

মা-বোনেরা পরাধীনতার শিকল পায়ে অর্ধমৃত লাশে পরিনত।

আজো রাজাকারের হুঙ্কারে কম্পিত,

ভীত দেশের আপামর জনতা।

আজো খুনীর রক্তে বিশ্বাসঘাতকতার গন্ধ বহমান।

হাজারো তরুণ-তরুণীর স্বপ্ন অঙ্কুরেই নিঃশেষিত, নিপীড়িত।

আজো শিক্ষাঙ্গন রক্তাক্ত হয় রাজনীতি,

গণতন্ত্র,বাক-স্বাধীনতার প্রহসনে।

রাস্তার নাম না জানা পাগলী ধর্ষিত হয়ে

নতুন জীবনের অঙ্কুরোদগম ঘটায়।

আজো হাজার হাজার অবৈধ নবজাতক

ডাস্টবিন,খালে-বিলে‌ পরিচয়হীনতায় কেঁদে মরে।

যে স্বাধীনতার জন্য ,একখন্ড জমির জন্য,

একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রের জন্য

নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ,

লক্ষ লক্ষ শহীদের লাশের মিছিল,

লক্ষ মা-বোনদের সতীত্ব হারানো;

সেই কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতার লক্ষ্য ধরে রাখতে পারলাম কি?

৩৭২জন ১৭৬জন
14 Shares

২৭টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য