লেখালিখি করা আমার শখ। আমার কাছে মনের ক্ষুধা মেটানোর অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে লেখার মাধ্যমে পাঠকদের সাথে আনন্দ-বেদনাগুলি ভাগাভাগি করা। কিন্তু হুটহাটতো আর যেখানেসেখানে লেখা যায় না। লেখার পরিবেশ, পাঠক সংখ্যা, নিজের আত্মসম্মান এসবই যেখানে রক্ষা পাবে সেখানেই একজন লেখক বিচরণ করবে এটাই স্বাভাবিক।

এ কথা অনস্বীকার্য, লেখার জন্য উপযুক্ত প্লাটফরমটি সোনেলাই আমাকে দিয়েছে। সেই কৃতজ্ঞতাবোধ থেকেই সোনেলার জন্মমাসে পাঠকদের সাথে নিজের অনুভূতি শেয়ার করা উচিত বলে আমি মনে করি।

সোনেলায় অকৃত্রিম ভালোবাসা প্রাপ্তি-

আমি সোনেলাকে ভালোবাসি আমার প্রেমিকার মত। সোনেলার কাছে কিছু চাইবার নেই আমার। কারন সোনেলায় আমার ব্যক্তিগত প্রাপ্তি অনেক বেশী। যে শিক্ষা সোনেলা আমাকে দিয়ে চলেছে কোন কিছুর বিনিময়েই তার ঋণ শোধ হবার নয়।

আমার প্রতি সোনেলার সকলের ভালোবাসা অকৃত্রিম। আর সে কারনে আজও সোনেলায় বিচরন করতে ভালো লাগে আমার। লিখালিখির জগতে সোনেলা আমাকে দিয়েছে সম্মান। পেয়েছি পাঠকের অফুরান ভালোবাসা।

ভালোবাসা যেখানে মান অভিমান সেখানে থাকবেই। আর সোনেলার বাইরের কেউ সোনেলাকে নিয়ে কটূক্তি করলে সেটি আমার মোটেও সহ্য হয়না। বিশ্বাস করুন আমার এই ভালোবাসাও অকৃত্রিম।

যা বলতে চাই-

➡ লেখা প্রকাশ করা মানেই আমি যা লিখব তা সবাই পছন্দ করবে এমনটা নয়। মনে রাখবেন, আপনার একটি ভালো লেখায় অন্যেরা নেতিবাচক মন্তব্য করার উদ্দেশ্য হচ্ছে বেশিরভাগ মানুষই প্রকৃতপক্ষে নিজেদের হীনমন্যতা এবং তাদের নিজস্ব স্বকীয়তা আপনার উপর চাপাতে চায়।

➡ আবার অনেকেই লেখা সম্পর্কে তাদের মতামত সুন্দরভাবে বুঝিয়ে বলেন নিজেদের মন্তব্যে, কিন্তু প্রকাশ ভঙ্গিতে মাধুর্যতা থাকেনা। তবে আমি বিশ্বাস করি যারা আপনার লেখায় ভিন্নমত পোষণ করে নিজেদের গঠনমূলক মন্তব্য দ্বারা আপনাকে উৎসাহ দেবেন তারাই সহব্লগার হিসেবে আপনার প্রকৃত শুভাকাঙ্ক্ষী।

➡ পাঠককে বুঝতে হলে আপনাকে বাহবা এবং তালির সুক্ষ্ম পার্থক্যটা বুঝতে হবে। জানতে হবে আপনার লেখায় কারা বাহবা দিচ্ছেন আর কারা তালি দিচ্ছেন। সুন্দর প্রকাশ, সুন্দর লিখেছেন, বেশ ভালো ব্লগে এই রকম দুই শব্দের মন্তব্য হচ্ছে তালি যা লেখকের জন্য ভবিষ্যতে ক্ষতির কারণ হতে পারে। অন্যদিকে নিজের মতামত ব্যক্ত করে লেখা মন্তব্যই হচ্ছে বাহবা। বাহবা প্রদত্ত মন্তব্য আপনার লেখনশৈলীকে উত্তরোত্তর তীক্ষ্ণ করে।

➡ লেখক বা পাঠকগোষ্ঠী আপনার কোন ধরনের লেখা পড়তে আগ্রহী এবং লেখাকে উপভোগ করছে তা নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করুন। যদিও সবাইকে সন্তুষ্ট রাখা আমাদের সম্ভব নয়। তবে নির্দিষ্ট কিছু পাঠক কিন্তু আপনার আমার সব সময়ের শুভাকাঙ্ক্ষী। সোনেলার উন্মুক্ত প্লাটফর্মে লিখুন না শুধু তাদের জন্যই।

এসবই আমার নিজস্ব মতামত। আপনার পছন্দ না হলে নির্ভাবনায় এড়িয়ে যেতে পারেন।

সোনেলা আমার প্রথম ও শেষ ঠিকানা-

সোনেলা ব্লগ ব্যতিত আমি অন্য কোথাও কোন ব্লগে আর কখনোই লিখিনি, লিখতে চাইও না। সোনেলা আমার কাছে শিক্ষার পবিত্র স্থান। এখানে আমি সবসময় একজন শিক্ষানবিশ হিসেবে থাকতেই পছন্দ করি।

পরিশেষে বলতে চাই, সোনেলা ব্লগ এগিয়ে চলুক তার আপন গতিতে। সোনেলার জন্মমাসে সোনেলায় বিচরণকারী সকল ব্লগার, পাঠক এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের সর্বদা পাশে থেকে আমাদের উৎসাহ দেবার জন্য মন থেকে প্রাণঢালা অভিনন্দন এবং শুভেচ্ছা জানাই।

(সমাপ্ত)

সোনেলার জন্মোৎসব ২০২০ (আমার অনুভূতি – ৩য় পর্ব)

২১২জন ২১২জন
0 Shares

৪৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

️️ 🍂️️ 💝 ️️ 🌟 🌺 💐 💥 🌻 🍄 🌹 💐 ⭐️ 🎉 🎊