প্রচণ্ড রেগে আছেন মিসেস চৌধুরী। কারণ মিস্টার চৌধুরী দীর্ঘ সময় অন্য কারো সাথে ফোনে কথা বলতে ব্যস্ত। মিসেস চৌধুরী তো রেগে মেগে আগুন।

-সারাদিন এতো ব্যস্ত থাকেন আপনি যে দুটো মিনিট আমার সাথে কথা বলতে পারেন না। কিসের এতো কাজ আপনার (রেগে দিয়ে মিস্টার চৌধুরীকে আপনি বলছেন মিসেস চৌঃ)
আর এখন ঘন্টার পর ঘন্টা কথা বলার সময় হচ্ছে। দরকার নেই আমার সাথে কথা বলার। ভালো থাকুন। আপনার মতো থাকুন। আল্লাহ হাফেজ।

মিসেস চৌধুরী এই নিয়ে কয়েক হাজার বার বলেছে যে সে মিস্টার চৌধুরীর সাথে আর কথা বলবে। কিন্তু ওটা বলা অব্দিই। কিছু মুহূর্ত পর আবার  কথা বলবে। কিছুতেই রেগে থাকতে পারে না মিসেস চৌধুরী। তবুও রাগ দেখাবে। মিস্টার চৌধুরী জানে একটু পরই আবার আসবে ,কথা বলবে তাই সে আর তার রাগ ভাঙ্গাতে আসে না। খুব উপভোগ করে বউ এর রেগে গিয়ে গজগজ করাটা। এবার পুরো একটা দিন রেগে ছিলো মিসেস চৌধুরী। একদিন রেগে ছিলো বটে তবে অনেক কষ্টে। এই একটা দিন মিস্টার চৌধুরীর ছবির সাথে কথা বলে কাটিয়ে দিয়েছে।
একদিন পর……
– মিস্টার চৌধুরী, মিসেস চৌধুরী যে রেগে আছেন সেটা কী আপনি জানেন?
-জ্বী জানি তো।
-জানেন! অথচ একবারও রাগ ভাঙ্গাতে এলেন না। রাগ ভাঙ্গানো উচিত ছিলো না?
-উচিত ছিলো কিন্তু আমার তো কথা বলা বারণ তাই না

এটাই মিস্টার চৌধুরী। রসকসহীন কাঠখোট্টা টাইপের একটা লোক।মাঝে মাঝে মিসেস চৌধুরীর ইচ্ছে করে মিস্টার চৌধুরীর বুকটা ছিঁড়ে দেখতে ওখানে হৃদয় নামক বস্তু আছে কিনা? মিসেস চৌধুরী নিজের ইচ্ছে মতো বকবক করে নিজে নিজেই শান্ত হয়ে গেলো।
-লাভ ইউ সো মাচ জান।
-লাভ ইউ টু
-এই তুমি কাল থেকে একবারও জান বলোনি।
-বলেছি কাল
– না বলোনি।
-জ্বী বলেছি।
-না বলোনি।
-জানু এমন করো কেনো? উম্মমাহ 💋

মিসেস চৌধুরী গলে জল।

৫৬০জন ৪৬৪জন
3 Shares

৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য