বিজয়াদশমী কী এবং তার তাৎপর্য

প্রদীপ চক্রবর্তী ২৬ অক্টোবর ২০২০, সোমবার, ০৯:৫৩:০৮পূর্বাহ্ন বিবিধ ১৪ মন্তব্য
নবমী শেষে আজ দশমী। ‘দশমী’ কথাটির প্রাসঙ্গিক তাৎপর্য সহজবোধ্য। আশ্বিন মাসের শুক্ল পক্ষের দশমী তিথিতে দেবী কৈলাস পাড়ি দেন। সেই কারণেই ‘বিজয়া দশমী’ নাম। বিদ্রঃ এইবছরের তিথি অনুসারে কার্তিক মাসে পূজা হয়েছে। আশ্বিনমাস মলমাস থাকায়। কিন্তু প্রশ্ন হল, এই দিনটিকে ‘বিজয়া দশমী’ বলা হয় কেন? কোন ‘বিজয়’-কেই বা চিহ্নিত করে দিনটি? দশমীকে ‘বিজয়া’ বলা হয় [ বিস্তারিত ]
শ্রী শ্রী দুর্গা দেবীর পূজা বছরে দুবার আনুষ্ঠানিকভাবে সাড়ম্বরে অনুষ্ঠিত হয়। একবার বসন্তকালে, আরেকবার শরৎকালে। বসন্তকালের দুর্গাপূজাকে সংক্ষেপে বাসন্তী পূজা বলা হয়। আর শরৎকালের দুর্গাপূজাকে বলা হয় শারদীয় দুর্গাপূজা। তবে শারদীয় দুর্গাপূজাই বাঙালি হিন্দুদের সবচেয়ে বড় অনুষ্ঠান এবং অধিক সংখ্যায় অনুষ্ঠিত হয়। দুর্গাপূজার শুরু হয় আশ্বিন মাসের শুক্লপক্ষে। কোথাও প্রতিপদ তিথি থেকে, কোথাও ষষ্ঠী তিথি [ বিস্তারিত ]
‘দুর্গা’ শব্দটিকে যদি বিশ্লেষণ করি তাহলে দেখব এটি দ+উ+র+গ+আ – এই ভাবে সৃষ্ট। প্রতিটি বর্ণ নিজস্ব অর্থ বহন করছে। ১.দ অক্ষর  – দকারং দুর্গতিহারং দুরন্তব্যাধিনাশনং দুর্গমেদুঃখদারিদ্রনাশায় দকারায় নমো নমঃ। ( অর্থাৎ যিনি দুর্গের নাশকারিনী, দুর্গতিহরণকারিনী , দুরন্তব্যাধিনাশকারিনী , দুঃখদারিদ্রনাশকারিনী, ভবরোগ বিনাশকারিনী সেই ‘দ’ কারকে নমস্কার) ২.উ অক্ষর – উকারং উগ্রতারেষং উগ্রশক্তিসমন্বিতং উচ্চৈঃপদপ্রদাতারং উকারায় নমো নমঃ। [ বিস্তারিত ]
বাঙালি সনাতন হিন্দুধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। আশ্বিন মাসের শুক্লপক্ষের ষষ্ট থেকে দশম দিন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয় এই পূজা। একে বলা হয় দেবীপক্ষ। আর এ দেবীপক্ষের সূচনা হয় মহালয়া দিয়ে। দুর্গাষষ্টী, মহাসপ্তমী, মহাঅষ্টমী, মহানবমী ও বিজয়াদশমী মোট এই পাঁচ দিন চলে পূজার আয়োজন। তবে আশ্বিন মাস মলমাস থাকায় এইবার কার্তিক মাসে পূজা হচ্ছে। কেননা [ বিস্তারিত ]
আজ ধানের সাধভক্ষণ,নলসংক্রান্তি ও অশ্বিনীকুমার ব্রত। দিনটি গ্রামবাংলার অতি পরিচিত ঐতিহ্যগত রীতি। আশ্বিনের শেষ  দিন নলসংক্রান্তি নামে পরিচিত। ধানফসলের একটি পবিত্র দিন । হিন্দু বাঙালিদের সাধ ভক্ষণ একটি বিশেষ  রীতি। নল সংক্রান্তির মূল উদ্দেশ্য ঐ সাধভক্ষণ। আশ্বিন মাসের  মাঝামাঝি থেকে কার্তিকের মাঝামাঝি ধানের গর্ভ কাল ।নলগাছ বহু প্রজনন ক্ষমতার অধিকারী । চাষিরা আশা করেন তাদের [ বিস্তারিত ]

প্রেম হোক প্রকৃতিময়

প্রদীপ চক্রবর্তী ১৫ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ০৬:১৮:৫৯অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ১২ মন্তব্য
ভীষণ একরোখা না হলে বুঝি প্রেমে পড়া যায়না? চরম বেহায়া না হলে বুঝি পিছু ছুটা যায়না? আমরা রোজ রোজই একে অপরকে সাজাই। কখনো রঙতুলিতে গোধূলি ভরা রঙ দিয়ে। কখনো মহামায়াময় জগতের সৌন্দর্য দিয়ে। প্রেমের সৌন্দর্য প্রকৃতিকে নিয়ে। তুমি প্রকৃতির মতো সুন্দর। তাই তোমায় সাজাই আপনমনে,আপন ছন্দে। রঙ নেই,গন্ধ নেই আছে মাধুর্য। আর এ মাধুর্য শূন্যতাকে [ বিস্তারিত ]

কাব্যে প্রণয়ন

প্রদীপ চক্রবর্তী ৯ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার, ০৮:৪০:২১অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৬ মন্তব্য
আগমনীর গন্ধ পেলে বুঝি নদীরাও থেমে যায়। বুকের ভেতরকার জমে রাখা অভিমানের পাহাড় কেমন করে নদীকে সঙ্গ দিবে। মাঠ জুড়ে ইরিধানের সমাহার আর তার ডগায় ডগায় শারদ শিশির। আগমনী সেই কবে ছুঁয়েছে প্রকৃতির আচ্ছাদিত বিলাসে। সংসার জীবনে থাকা পাখিরাও সীমান্তভেদ করে ছুটে চলে। পাখিদের মতো যদি আমাদেরও সীমান্ত উন্মুক্ত হতো। তাহলে আমরাও ছুটে চলতাম অজানা [ বিস্তারিত ]

প্রেম হোক সীমান্তহীন

প্রদীপ চক্রবর্তী ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ০৭:৩৪:৪৪অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৬ মন্তব্য
আকাশের বুকে যখন গোধূলি নামে আমরা তখন মহারণ্য ছেড়ে চলে যাই। মাঠ জুড়ে নামে পড়ন্ত বিকেলের আলোকরশ্মি। ইরিধানের ডগায় ঘাসফড়িং মেতে উঠে কুয়াশার চাদরে। একে একে পুরো পাড়া ঝাপসা হয়ে আসে। আরক্তভায় নিয়ে গোধূলি যখন ডুবতে বসে বনময়ূরীরা তখন আবাসনে ফিরে। শুভ্র শরতে আকাশে মেঘের ভেলা উড়ে দিকদিগন্তে। সবুজের বুক জুড়ে নামে প্রেমের মরসুম। জীবনে [ বিস্তারিত ]

প্রেম হোক সীমান্তহীন

প্রদীপ চক্রবর্তী ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার, ০৭:২৮:১৪অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি মন্তব্য নাই
আকাশের বুকে যখন গোধূলি নামে আমরা তখন মহারণ্য ছেড়ে চলে যাই। মাঠ জুড়ে নামে পড়ন্ত বিকেলের আলোকরশ্মি। ইরিধানের ডগায় ঘাসফড়িং মেতে উঠে কুয়াশার চাদরে। একে একে পুরো পাড়া ঝাপসা হয়ে আসে। আরক্তভায় নিয়ে গোধূলি যখন ডুবতে বসে বনময়ূরীরা তখন আবাসনে ফিরে। শুভ্র শরতে আকাশে মেঘের ভেলা উড়ে দিকদিগন্তে। সবুজের বুক জুড়ে নামে প্রেমের মরসুম। জীবনে [ বিস্তারিত ]

মহালয়া কি?

প্রদীপ চক্রবর্তী ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ০২:৫৩:০৭অপরাহ্ন বিবিধ ৩৪ মন্তব্য
মন্ত্রমুগ্ধ স্তোত্রপাঠে, আজি বাজলো বেণু ঐ শারদপ্রাতে। কেন এই মহালয়া? মহালয়া কি গুরুত্ব ধারন বা পালন করে! শুভ মহালয়া ❤🙏 কিন্তু কেন এই মহালয়া ! সবাই নিশ্চিত মহালয়া মানে দূর্গাপূজার দিন গোনা। আকাশে আকাশে সাদা মেঘের ভেলা। নদীর তীর জুড়ে শুভ্র কাশফুলের সমারোহ। আর আগমনী গানে শিউলি ঝরা ভোরে ফুল কুড়ানো। মহালয়ার ৬ দিন পর [ বিস্তারিত ]
সাক্ষাৎ খুব অল্প সময়ের,তবু এমনভাবে গেঁথেছে অন্তরে.. যেমন করে সাজানো প্রতিটা শব্দ ‘ সোনেলা দিগন্তে জলসিড়ির ধারে।’ স্বল্প পরিধির অভিজ্ঞতায় তারমধ্য সোনেলায় যেটুকু পেয়েছি এখনো অবধি, অসংখ্য লেখকের অনুভূতি দিয়ে গাঁথা অক্ষরমালা এ যেন আমার ব্যথা সারানোর দারুণ মহৌষধি। কলমের জন্মদাতা বহুজন হয়,যারা হারিয়ে গিয়েছে ব্যর্থতায়, সোনেলার জলসিঁড়ি দিগন্ত তাদের নতুন করে পথ দেখায়। .. [ বিস্তারিত ]

শূন্যতা

প্রদীপ চক্রবর্তী ৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, শনিবার, ০৫:০৮:৫৭অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৬ মন্তব্য
প্রতিটি নক্ষত্রের মতো একা হয়ে যাওয়া দিঠি গুলো আজ কাউকে অন্তর্বেক্ষণ করেনা। পৃথিবীর ব্যস ব্যাসার্ধের ধমনী জুড়ে কেবল শূন্যতার অশ্রুপাত। ক্লান্ত হয়ে যাওয়া শরীরের প্রতিটি অঙ্গপ্রত্যঙ্গ যখন সুখ খুঁজে তখন অক্সিজেনের মাত্রা কমে যায়। নিজেকে আর সবল করে তোলা হয়না। সমুদ্রের নোনাজল আর নদীর তীরে ফুটে ওঠা কাশফুল রোজ মেঘমালার সাথে জলকেলি করে। উদার বক্ষে [ বিস্তারিত ]

শরতের নিশিযাপনে।

প্রদীপ চক্রবর্তী ২২ আগস্ট ২০২০, শনিবার, ০৬:৩১:২৩পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৬ মন্তব্য
বিশাল নদীর উপর পানসি করে আমরা কয়েকটা দিন কাটাতে চাই। চোখের আলোয় ভেসে উঠা রাতের অন্ধকারের চাঁদ। আর গভীর বৃষ্টিতে ভিজে যাওয়া বনুহাঁসের শব্দ জানান দেয় শরৎ এসেছে। কচিকাঁচা ঘাসে শিশির মাড়িয়ে রোদ আসে। ভরদুপুরে চঞ্চল জলের স্রোতে রূপালি মাছ খেলা করে। আকাশের মেঘমালার ন্যায় শ্বেত শুভ্রতায় ফুটে উঠে শরতের কাশফুল। নদীর কিনারা আর ইরিধানের [ বিস্তারিত ]

নিশিকাব্য

প্রদীপ চক্রবর্তী ২০ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার, ০৬:০৬:৫৫অপরাহ্ন কবিতা ৪০ মন্তব্য
নিস্তব্ধ রজনী, নির্ঘুমে আচ্ছন্ন সেনানী। কালরাত্রির কালকন্ঠে আবিষ্ট লক্ষ্মী পেঁচা। ঘুমঘোরে অতন্দ্র প্রহরী বংশীয়ালা। নিস্তব্ধ নীড়ে বইছে যোজন বিয়োজন, নিকষ রাতের অভিসারে ঘুমন্ত পাখির গুঞ্জন। ঘাসের ডগায় জমেছে শিশিরজল, শীতল পরশে প্রস্ফুটিত শিশিরসিক্ত দূর্বাদল। অভিসারিণীর স্নিগ্ধ পরশে, লোহিত গোলক পিণ্ড উদিত হয়েছে ভোরের আকাশে। নিস্তব্ধ রাত উপেক্ষা করে, মাধুরী প্রত্যাবর্তন করে কাক ডাকা সদ্যভোরে। দারুচিনির [ বিস্তারিত ]

শুভ জন্মাষ্টমী

প্রদীপ চক্রবর্তী ১১ আগস্ট ২০২০, মঙ্গলবার, ০৫:৫২:০৩অপরাহ্ন বিবিধ ২৫ মন্তব্য
শ্রীমদ্ভগবৎ গীতায় শ্রীকৃষ্ণ বলেছেন, যখনই পৃথিবীতে অধর্মের প্রাদুর্ভাবে ভক্তের জীবন দুর্বিষহ হয়ে ওঠে, দুরাচারীর অত্যাচার ও নিপীড়নে, তখন ধর্ম সংস্থাপনের জন্য কৃপা করে ভক্তের আকুল প্রার্থনায় সাড়া দিয়ে ঈশ্বর ‘অবতার’ রূপ নিয়ে থাকেন। তখন তিনি ষড়গুণ যথা- ঐশ্বর্য, বীর্য, তেজ, জ্ঞান, শ্রী ও বৈরাগ্যসম্পন্ন ‘পূর্ণাবতাররূপে’ প্রকাশিত হন। গীতায় শ্রীকৃষ্ণ অর্জুনকে আরও বলেছেন, ‘আমি জন্মহীন, অব্যয় [ বিস্তারিত ]

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য