মাথা ও ভাগ্য

আরজু মুক্তা ১৭ জুন ২০১৯, সোমবার, ০৬:৪৯:৪৫অপরাহ্ন গল্প ২৫ মন্তব্য

যারা গ্রামে থাকে তারা কখনো মেইন পথ ধরে চলেনা! শর্ট কাট রাস্তা বের করে ফেলে।।আমরাও বন্ধুরা মিলে যাওয়ার অনেকগুলো রাস্তা বের করে ফেলেছি।।কোনটা দিয়ে কখন যে যাই।।এটার মজাই আলাদা!!

ঢং ঢং ঢং…. .ঘণ্টা পরতেই,,, কার বাসায় কুকুরছানা হলো,না বিড়াল ছানা এলো,কার নতুন ফল ধরেছে,ঐ গাছে দুটা ঢিল,,,কার বাসায় নতুন মেহমান এলো!সব খবর নিয়ে বাড়ি ফিরতে ফিরতে আযান!

ভাত আর মায়ের বকুনি একসাথে গিলতে হতো।এরপর আবার খেলা।

একদিন ক্লাস এ দুস্টামি করার শাস্তি স্বরূপ আমাকে ওকড়া তোলার কাজ দিলো। দারোয়ান চাচাকে এটা ওটা বুঝিয়ে বাড়ি ফিরবো,,মনে হতেই ভাবলাম আলপথে যাই।।

আমি একটু সবুজ ছুঁই আর প্রাণ ফিরে পাই।

কে জানি আমার নাম ধরে ডাকছে।পিছন ফিরি আর বুকে থুতু দেই।।

নাহ্! আবার ডাকছে!! সাহস করে দেখি,দুই আইলের মাঝে একটা কাটা মাথা আমার নাম ধরে ডাকছে।।অতো চিন্তা বাদ স্কার্ফ দিয়ে পেঁচিয়ে ব্যাগে ঢুকিয়ে বাড়ি আসলাম।

ভাত খাইতে গিয়ে মনে হলো,এটারে কই রাখি?একটু চিন্তা করে রান্নাঘরের এককোণে রেখে খেলতে গেলাম।।কখন যে রাতে ঘুমিয়ে পরেছি।।হঠাৎ উহ্ শব্দে জেগে উঠলাম।দেখি আব্বা কান ধরে আছে।বলছে,”ঐটারে কোথা থেকে আনছো?বাহিরে আসো।।

দেখি,আম্মা চিল্লাচ্ছে আর বলছে ,”দস্যি টা কই?বলে আর মাথাঘুরে পরে যায়!”

আমি মনে মনে হাসি!!

  1. আব্বা বলছে এ মাথাই তো তোর আম্মারে বলছে,তুই নিয়া আসছস্।আবার সেখানেই রেখে আসতে বলছে।রান্না করার সময় নাকি ঐ কাটা মাথাটা আম্মাকে বলেছিলো ঐ বুড়ি তোর মেয়ে আমারে এখানে নিয়ে আসছে।আমার এখন ভালো লাগছেনা!যেখানে পাইছে,সেখানে রেখে আসুক।।

যাইহোক, রান্নাঘর থেকে যখন ওটারে পিছনের বাগানে রাখতে যাবো, দেখি ওর কপালে কি সব আরবি লিখা।।মনে হলো আমাদের ভাগ্যলিপি লিখা।।

তখন হুজুরের কথা মনে হলো,আমাদের ভাগ্য নাকি কপালে লিখা থাকে।

ধুর তোর ভাগ্যের নিকুচি করি।।তোর জন্য আজ মাইর খাইছি।।

ওকে যখন রেখে আসতেছি, ও বলছে,”যেখানে পেয়েছো,সেখানে রেখে আসো!’

আমি বলি এখন ঘুমা!!কাল রেখে আসবো।

পরদিন খুব ভোরে ওকে রেখে এসেছি।।কিন্তু মাথা থেকে ঐ আরবি লিখা যাচ্ছেনা!ইস! যদি আমিও আমার ভাগ্য পড়তে পারতাম!!

যারা এটা পড়ে ভয় পাইছেন তারা আয়তুল কুরসি পড়েন।।আমি ঘুম যাই।।

৬৬৫জন ৪৬৫জন
29 Shares

২৫টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য