ফেসবুক আপডেট

মাছুম হাবিবী ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার, ০৪:১৯:৫১অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৮ মন্তব্য

আগামী অক্টোবর মাসের ১ তারিখ ফেসবুক আপডেট হবে। আর সেই আপডেট নিয়ে সাধারণ ফেসবুক ইউজারদের মধ্যে এক ধরণের আতঙ্ক তৈরী হয়েছে। অনেকেই বলছেন ‘আইডিতে নিজের পিক লাগাতে হবে, নিজের নাম দিয়ে আইডি খুলতে হবে, ভোটারকার্ড ছাড়া আইডি খুলা যাবেনা। যাদের কার্ড আছে শুধু তাদের আইডিই থাকবে ইত্যাদি ইত্যাদি!

এত প্রশ্ন আর আতঙ্কের ভীরে আমার নিজ ধারণা থেকে কিছু কথা তুলে ধরলাম। প্রতি বছরই ফেসবুক কর্তৃপক্ষ উনাদের অফিসিয়ালী ফেসবুক এপসটি আপডেট করেন। আপডেট শেষে ফেসবুকে নতুন ফিচারসহ বিভিন্ন সেটিং যুক্ত হয়। এবছরেও ফেসবুক আপডেট হবে। ধারণা করা যায় আগামী ১ লা অক্টোবর ফেসবুক আপডেট হবে। আর সেই আপডেট নিয়ে ইতিমধ্যে আতঙ্ক তৈরী হয়েছে সবার মাঝে। অনেকের মনে নানা রকম প্রশ্ন আর উদ্বেগ প্রকাশ পেয়েছে। তাহলে আসুন ২০২০ সালের ফেসবুক আপডেট নিয়ে কিছু কথা জেনে নেই। সবাইকে নিচের লেখাগুলো মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য অনুরোধ করছি!

*ভুয়া একাউন্ট*

ভুয়া একাউন্ট বলতে নামবিহীন, প্রোফাইল পিকচার নেই, অরজিনাল ঠিকানা নেই। আইডিতে তেমন কোনো এক্টিভেটি নেই যা দেখে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বুঝতে পারে একাউন্টি অরজিনাল। যেমনঃ মেঘলা আকাশ, ছোট ছেলে, বড় মেয়ে, ফেক আইডি বা ফেক নাম এবং ফেক প্রোফাইলের আইডি। আইডি খুলে রেখেছে কিন্তু দীর্ঘদিন আইডিতে এক্টিব নাহ। ডিরেক্টিব করা একাউন্ট সেই সকল আইডিগুলো ফেসবুক কর্তৃপক্ষ রিমুভ করে দিতে পারে। কিন্তু রিমুভ করে দিবে ১০০% তা এখনো সিউর নাহ। তবে ধারণা করা যায় ‘নামবিহীন, প্রোফাইল পিক নেই, আইডিতে তেমন কোনো তথ্য  নেই, ঐ সব আইডি মুছে দেয়া হবে। অনেকে আবার নামের সাথে বিভিন্ন Font, ইমুজি, স্টাইলিস নাম ব্লাঙ্ক আইডি খুলেন। ঐ সব আইডিও নিষেধাজ্ঞার ভেতরে পরে। যেমন নামের আগে Mr, উমুক, তমুক , Mmm, Dr, ইংরেজি ছোট বড় অক্ষর মিলিয়ে বিভিন্ন ফ্রন্ট এড করে নামটাকে হাইলাইট করতে চায়। ঐ সকল নামের আইডিও ঝুঁকির মধ্যে থাকবে। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ যেকোনো সময় কোনো প্রকার নোটিফিকেশন ছাড়াই আপনার একাউন্ট বন্ধ করতে বাধ্য হবে!

*একই নামে একাধিক আইডি*

অনেক সময় দেখা যায় একই নামের একাধিক বা অসংখ্য আইডি খুলা হয়। বিভিন্ন বাজে পিকচার দিয়ে কাউকে হ্যারেজ করার জন্য, তারই নামে আরেকটি ভুয়া একাউন্ট খুলা। আর সেই সকল ভুয়া একাউন্টের বিরোদ্ধে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ কঠিন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আপনি চাইলেই হুট করে কারো নামে ক্লোন খুলে তার আইডিতে রিপোর্ট মারতে পারবেন নাহ। হতে পারে ক্লোনিং সিস্টেম বন্ধ করে দেয়া হবে। তবে তা এখনো পরিষ্কার ভাবে ঘোষণা করা হয়নি।

*18+ বা Violence আইডি*

অনেক সময় দেখা যায় বিভিন্ন ফেক আইডি হতে ১৮+ পিকচার, পোস্ট বিভিন্ন হ্যারেজমূলক কমেন্টিং করা হয়। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ সেই সকল ফেক একাউন্টগুলো কোনো প্রকার এলার্ট নোটিফিকেশন ছাড়াই রিমুভ করে দিবে। আপনি যদি আপনার আইডি হতে খারাপ পিকচার, ধর্মীয়, রাজনৈতিক উস্কানী মূলক পোস্ট শেয়ার করেন। তাহলে আপনার আইডিটি ডিজেবল করে দিতে পারে। আর যদি কখনো আপনার পছন্দের আইডিটি Violence বা Security লকে পরে ডিজেবল হয়, তাহলে তা সহজে ব্যাক আনতে পারবেন নাহ। এমনও হতে পারে আপনি যদি অরজিনাল নাম এবং অরজিনাল  পিকের আইডি দিয়ে ১৮+ ককর্মকান্ড করেন কিংবা ধর্মীয়, বর্ণবাদী, রাজনৈতিক উস্কানীমূলক পোস্ট করেন। তাহলে আপনার অরজিনাল আইডিটাও ডিজেবল হতে পারে।

*ফেক নিউজ, ফেক লিংক, ফেক ফিচার*

অনেক সময় দেখা যায় বিভিন্ন লিংক হতে ভুয়া নিউজ ছড়ানো হয়। গত কিছুদিন আগেও করোনা মহামারীতে বিভিন্ন লিংক হতে ভুয়া নিউজ ছড়িয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করা হয়েছে। সেই সকল ভুয়া নিউজসহ ভুয়া লিংক ফেসবুক থেকে ব্যান করা হবে। তার সাথে ফেক ফিচার। যেমনঃ বিভিন্ন লিংক হতে জানতে পারবেন ‘আপনার কপালে কিহ আছে। আপনি কাকে বিয়ে করছেন,আপনার চেহারা’র সাথে কাদের চেহারা মিল ইত্যাদি এসব ফেক ফিচার বন্ধ করা হবে। কোনো লিংক চাইলেই শেয়ার করা যাবেনা, আর শেয়ার করলে লিংকটি ভুয়া হলে আপনার আইডি ঝুঁকির মুখে পরবে।

*violence picture remove*

violence পিকচার বলতে ১৮+ পিক, রক্তমাখা বা এক্সিডেন্ট হওয়া পিক। মৃত মানুষের লাশ, ক্ষতবিক্ষত ছবি এগুলাও Violence পিকচার এর মধ্যে পরে। আপনি চাইলেই আপনার টাইম লাইনে ঐ সব পিক আপলোড করতে পারবেন নাহ। এই টাইপের পিকগুলো আপলোড করার সাথে সাথেই ফেসবুক থেকে এলার্ট নোটিফিকেশন পাঠানো হবে। তারপরই আপনার অনুমতি ছাড়াই আপনার পোস্টটা রিমুভ করা হবে। এতে করে আপনার আইডির উপর ফেসবুকের নজরদারি বেড়ে যাবে। So, ঐ সব পিক আপলোড করা থেকে বিরত থাকুন।

*গ্রুপিং সমস্যা*

আপনি যদি অশ্লীল গ্রুপের এডমিন হয়ে থাকেন। তাহলে আপনার আইডির নিরাপত্তা একদম কম পাবেন। অশ্লীল গ্রুপ, বিভিন্ন ধর্মবিরোধী গ্রুপ, রাজনীতি বিরোধ গ্রুপ, অমুক ভাই সমর্থন গোষ্ঠী, তমুক ভাইয়ের গ্রুপ ঐ সকল গ্রুপগুলো ফেসবুক থেকে ব্যান করা হবে। আর আপনি যদি সেই সকল গ্রুপের এডমিন মডারেট হয়ে থাকেন, তাহলে আপনার একাউন্টিও রিমুভের আওতায় পরতে পারে।

*অবৈধ পেইজ এবং আইডি*

ফেসবুকে কোটি কোটি অবৈধ পেইজ আছে। যে সকল পেইজগুলোর কোনো প্রকার ভেলু নেই। শুধু পেইজ নাহ, অবৈধ পেইজের মত, কোটি কোটি অবৈধ ফেসবুক আইডিও আছে। সেই সকল আইডিগুলোও ডিজেবল বা রিমুভ করে দেয়া হবে।  এভাবেই ক্রমাগত রিমুভের আওয়াত অনেক পরিচিত বা ফেমাস আইডিও থাকতে পারে। তাই আমাদের সতর্ক হওয়া উচিৎ। 18+ Violence কাজগুলো এড়িয়ে চলতে হবে। কারো পোস্টে গালাগালি করে কমেন্ট করলে, আর সেই ব্যক্তি যদি কমেন্টে রিপোর্ট মারে তাহলে আইডি মারা খেতে পারেন। তাই কারো কমেন্টে গালাগালি করা থেকে বিরত থাকবেন।

*এবার আসুন আইডির নিরাপদ কিভাবে রাখবো*

অনেকে বলতেছে ‘ভাই আইডিতে নাকি নিজের পিক লাগাতে হবে, নিজের অরজিনাল নাম দিতে হবে ইত্যাদি আরো অনেক কিছু। প্রথমে একটা কথাই বলি ‘আপনি যদি আপনার আইডিতে আপনার অরজিনাল পিকচার এবং অরজিনাল নাম লাগান সেক্ষেত্রে আপনার আইডিটি ৯০% নিরাপদ। আপনার ভোটার NID কার্ডের সাথে মিলিয়ে নাম এবং জন্ম তারিখ ঠিক করে নিন। কখনো ডিজেবল হলে ২৪ বা ৩৬ ঘন্টার মধ্যেই আপনার আইডি ব্যাক আনতে পারবেন। তাই আমার মতে NID Card বা Smart Card এর সাথে নাম,জন্ম তারিখ মিল রেখে আইডি খুলাটাই ভালো। অন্যতায় আইডি ঝুঁকিতে থাকে বেশি, কখনো কেউ যদি নরমাল রিপোর্ট মারে, তাহলে আইডি ডিজেবল হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে।

তবে ভিন্ন নাম বা সেলেব্রেটিদের পিক লাগানো থাকলেই যে আইডি ডিজেবল হয়ে যাবে সেই বিষয়ে এখনো ক্লিয়ার নাহ। জুকারবার্গ শুধু ৩টা বিষয় ক্লিয়ার করছেন ১/ violence কর্মকান্ড ২/ ধর্মীয় উস্কানি মূলক, রাজনৈতিক, বর্ণবাদী পোস্ট করে ঐ সকল আইডি রিমুভ করার ঘোষণা দিয়েছে। ৩/ ভুয়া নিউজ ছড়ায় এমন পেইজ, লিংক এবং আইডি ডিজেবল হয়ে যাবে। আর উপরের কথাগুলো নিজ চিন্তা ধারা হতে শেয়ার করলাম। আমার কথা মতেই যে সবকিছু মিলে যাবে এমনটা নয়। ১ তারিখের পর একদম ক্লিয়ার ভাবে বুঝা যাবে সত্যিকার অর্থে কি ঘটতে চলেছে। তবে এক সাথে সকল অাইডি রিমুভ হবেনা। আপনার আইডির দূর্বল জায়গায়গুলো ফেসবুক চিহ্নহিত করবে। তারপর যাচাই করবে আপনার আইডিতে কোনো প্রকার রিপোর্ট আছে কি নাহ। যদি সবকিছু মিলিয়ে আপনারটা ভুয়া একাউন্ট বা Violence একাউন্ট হিসাবে প্রমাণিত হয় তাহলে রিমুভ করে দিতে পারে।।

একটা কথা মনে রাখবেন ‘ফেসবুকে সবার আইডি যে ১০০% নিরাপদ এটা একদম ভুল। সবার আইডিতেই কম বেশি সমস্যা আছে। তাই বলে যে সবার একাউন্ট রিমুভ করে দিবে এমন তো নয়? যারা অতিরিক্ত নোংরামি, উস্কানিমূলক পোস্ট, বাজে পিকচার আপলোড করে তাদের শুধু দমন করা হবে। তবে আমরা কেউ নিরাপদ নয়, এমনো হতে পারে আমার আইডিও ডিজেবল হয়ে যাবে। পূর্বে আমার অনেক আইডি ডিজেবল হয়েছে, তাই এটাও যে ডিজেবল হবেনা তার কোনো গ্যারান্টি নেই।।

তাই সবার উদ্দেশ্যে বলছি ‘মানুষের কথায় কান না দিয়ে আইডির জন্য টেনশন না করে। নিজের মত ফেসবুক চালান। কিছু বিষয় এড়িয়ে গেলেই আপনি নিরাপদ, তবে আরো বেশি ভালো হয় যদি নিজের অরজিনাল ডকুমেন্ট দিয়ে পারসোনাল একটা একাউন্ট খুলে রাখেন। যদি ফান বা মজা করতে হয়, সেটা ফেক আইডি দিয়ে করুন। নিজের অরজিনাল আইডি দিয়ে এত মজা বা গালাগালি করার দরকার নেই। পছন্দের আইডি নষ্ট হলে রাতে ঘুমাতে পারবেন নাহ। যাগ্গে অনেক কথা বলছি ‘অশ্লীলতা আর গুজববিহীন ফেসবুক সাজাতেই মার্ক জুকারবার্গ এর এই পদক্ষেপ। আমি মন থেকে তার পদক্ষেপটাকে সাধুবাদ জানানো উচিৎ। যারা ফেসবুকে নোংরামি করে এবং মানুষকে হ্যারেজ করে তাদের রিমুভ করা দেয়াটাই উচিৎ। অতএব এত চিন্তা না করে নিজের মত ফেসবুক ব্যবহার করুন ‘হ্যাপি ফেসবিকং!!

২২৪জন ৪৭জন
0 Shares

২৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য