সোনেলা ব্লগে বিচরণকারী প্রত্যেক লেখক এবং পাঠকই আমাদের কাছে অনন্য অসাধারণ। একজন লেখকের জন্য তার স্বভাবজাত লেখনশৈলীই হচ্ছে নিজস্ব প্রতিভা এবং সোনেলা বিশ্বাস করে লেখকের লেখায় উৎসাহ প্রদানের মাধ্যমেই কেবল এই প্রতিভা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি করা সম্ভব যার অন্যতম নিদর্শন হচ্ছেন ব্লগার প্রদীপ চক্রবর্তী। আজ সোনেলার লেখক এবং একনিষ্ঠ শুভাকাঙ্ক্ষী ব্লগার প্রদীপ চক্রবর্তীর ২০২০ বইমেলায় প্রকাশিত তার প্রথম উপন্যাস “পর্বতকন্যের ইতিকথা” বইটি নিয়ে কিছু বলতে চাই।

“পর্বতকন্যের ইতিকথা” উপন্যাসটি এবারের বইমেলার সময়ই আমি লেখকের কাছ থেকে উপহারস্বরুপ পেয়েছিলাম। নিজের ব্যস্ততা এবং করোনাকালীন বিষণ্ণতায় বইটি পড়বো পড়বো করেও পড়া হয়ে ওঠেনি। তবে বইটি পড়ে কিছু লিখবো এই ইচ্ছে সবসময়ই ছিল মনে। কারন প্রথমদিন হাতে পেয়ে এই বইটিতে সোনেলা ব্লগ নিয়ে লেখকের লেখা অনুভূতি পড়ে মুগ্ধ হয়েছি। লেখক সোনেলা ব্লগের উপদেষ্টা মণ্ডলী এবং এডমিন প্যানেলসহ অনেক ব্লগারের নাম উল্লেখ করে তার নিজের লেখার উৎসাহদাতা হিসেবে অনুভূতি ব্যক্ত করেছেন। সেখানে আমার নিজের নাম দেখতে পেয়ে যারপরনাই সম্মানিতবোধ করছি।

“পর্বতকন্যের ইতিকথা” বইটি নিয়ে লিখতে গেলে প্রথমেই লেখক প্রদীপ চক্রবর্তী সম্পর্কে কিছু না বললেই নয়। কারন লেখক বইয়ে লিখেছেন- সোনেলা ব্লগে লেখার সুবাদেই তিনি বই প্রকাশের উৎসাহ পেয়েছেন। ছোটবেলা থেকে প্রকৃতি, আর ভ্রমণ সবসময় তার ভাবনাপঠে থাকতো। প্রকৃতি আর ভ্রমণবিলাস অনুধাবন করে সোনেলায় লিখেছেন কবিতা, অণুকবিতা, গল্প, রম্যগল্প, আড্ডা, চিঠি এছাড়া উপন্যাস। তার লেখা কবিতা এবং গল্প বেশ কিছু ম্যাগাজিনে প্রকাশিত হয়েছে। তাছাড়া কলকাতার ইচ্ছেডানা স্টুডিও থেকেও তার লেখা কয়েকটি কবিতার আবৃতিও প্রকাশিত হয়েছে।

“পর্বতকন্যের ইতিকথা” লেখকের লেখা একটি অতুলনীয় প্রেমের উপন্যাস। উপন্যাসে নায়কের নাম দীপ আর নায়িকার নাম পার্বতী। দু’জনের দেখা হয় কলকাতায় এক সম্ভ্রান্ত জমিদার বাড়িতে। তারা একে অপরকে বেশ ভালোবাসে। প্রথমে পার্বতী দীপকে ভালো না বাসলেও পরবর্তী সময় যত দিন অতিক্রম করে তাতে পার্বতীর ভালোবাসা বেড়ে ওঠে দীপের প্রতি। দু’জনে কত অহর্নিশ রাত্রি কাটিয়েছে জমিদার বাড়িতে, নিজেরা মোহনীয় হয়েছিলো তারা শিউলি ফুলেরগন্ধে।

হঠাৎ সেই প্রেমের মাঝে নেমে আসে বিরহবেদনার কালো ছায়া। পার্বতীর জন্য একে একে বিয়ের প্রস্তাব আসতে থাকে। কিন্তু পার্বতী দীপকে ভালোবেসেছে মনে প্রাণে তাই সে অন্যকাউকে আর জীবনসঙ্গী করতে চায় না। একটা সময় দু’জনেই নিয়তির দিকে চেয়ে থাকে। কি হয় শেষ পর্যন্ত! তা জানতে হলে পর্বতকন্যের ইতিকথা বইটি আপনাকে পড়তেই হবে। বইটি পড়লে আপনি নিমাই ভট্টাচার্য ও তার সমসাময়িক লেখকদের ছোঁয়া পাবেন নিশ্চিত। যা লেখক এবং তার লেখাকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছে।

জায়েদ রবিনের করা চমৎকার প্রচ্ছদে বইটি মাছরাঙা প্রকাশন থেকে প্রকাশিত হয়েছে। বইটির মুল্য- ১৮০ টাকা। ব্লগার প্রদীপ এর এই উপন্যাসটি বইমেলায় ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছিল যার প্রমাণ বইটির প্রথম সংস্করন শেষে দ্বিতীয়বার মুদ্রন করতে হয়েছে।

নিজের লেখা বই হচ্ছে লেখকের কাছে সন্তান সমতুল্য। তাকে অবশ্যই মুল্যায়ন করা উচিত। সেই ভাবনা, দায়বদ্ধতা এবং কৃতজ্ঞতা থেকেই আজ “পর্বতকন্যের ইতিকথা” নিয়ে নিজের অনুভূতি সোনেলায় লিখতে পেরে নিজেকে সেই দায়ভার থেকে কিছুটা মুক্ত লাগছে। লেখক প্রদীপ চক্রবর্তীর সাফল্য কামনা করি। তিনি এগিয়ে চলুন আপন মহিমায় এটাই কাম্য।

২৬৯জন ২২জন
0 Shares

৩৫টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ