নতুন বাংলাদেশ

আরজু মুক্তা ১৫ ডিসেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার, ১০:০৯:১১পূর্বাহ্ন এদেশ ২১ মন্তব্য

ডিসেম্বর ক্যালেন্ডারের একটি পাতা নয়। আমাদের বিজয়ের মাস। এই মাসেই পাকিস্তানীদের পরাজিত করে বাংলাদেশ সম্পূর্ণ শত্রুমুক্ত হয়।

সামনে স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি —-২৬ মার্চ ২০২১। বিজয়ের মাস শুধু উল্লাসের দিন নয় ; সেই সাথে বেদনার ও লাখ লাখ শহীদের রক্তেরও তাজা গন্ধের ইতিহাস। দেখতে দেখতে ৪৯ টি বছরে আমরা কতোদূর এগোলাম?  সমাজ, অর্থনীতি, শিক্ষা সবমিলিয়ে আমরা কোথায় আছি?  চলুন দেখে আসি, পরিসংখ্যানগত অর্জন।

স্বাধীনতার আগে দারিদ্রসীমার নীচে ছিলো ৮৮% মানুষ।  এখন সেখানে ২০%। ধান, চালের উৎপাদন বেড়েছে প্রায় ৪ গুণ। লোকসংখ্যা বৃদ্ধিরর হারও তুলনামূলকভাবে কম।

জিডিপি প্রবৃদ্ধিরর হার স্বাধীনতার পর ছিলো ৪/৫ শতাংশ। আজ তা বেড়ে ৮ শতাংশ। ফলে, মাথাপিছু আয় আমাদের বেড়েছে প্রচুর।  ১৯৭২/৭৩ অর্থবছরে মাথাপিছু আয় ছিলো ১২৯ ডলার। আর ২০১৯/২০ সালের অর্থবছরে ২০৭৯ ডলার। সেই সময় রাজস্ব বাজেটের পরিমাণ ছিলো মাত্র ৭৮৬ কোটি টাকা আর ২০২০/২১ সালে মোট বাজেটের পরিমাণ  ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকা। এডিপির পরিমাণ ছিলো ৫০১ কোটি টাকা। ২০২১ সালে তা ২ লাখ ৫ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা।

অর্থনীতির অন্যতম স্তম্ভ রেমিট্যান্সের পরিমাণ স্বাধীনতার সময় ছিলো ০.৮০ কোটি ডলার। অবিশ্বাস্যভাবে তা আজ ১৮ বিলিয়ন ডলার। এমনকি আজ আমাদের ব্যবসায়ীরা সরকারি ভাবে ডলার নিয়ে বিদেশে ব্যবসা করছেন। আমরা এখন ভীষণ শক্তিশালী দেশ।

পাকিস্তান বলেছিলো, আমরা ” ভিক্ষুকের জাতি। ” অথচ তারা ১৫০ রূপি দিয়ে এক ডলার ক্রয় করে। আর আমরা উন্নয়নের রোল মডেল। কৃষি, তৈরি পোশাক, রেমিট্যান্স আমাদের অর্থনীতির মূলভিত্তি। এমনকি অনেক সূচকে আমরা ভারতের থেকেও এগিয়ে। তারা এখন আমাদের বিস্ময়কর উত্থানের কারণ খুঁজছে।

গ্রামাঞ্চলে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ।  বার্ষিক মোট বিদ্যুৎ উৎপাদনের সর্বশেষ পরিমাণ ২৪ হাজার মেগাওয়াট। খাদ্য শস্যের উৎপাদন ৪৫০ লাখ মেট্রিক টন। এক থেকে দেড় কোটি নাগরিক বিদেশে চাকরি করে ডলার পাঠাচ্ছে।

গ্রামের বাজার এখন প্রতিদিন বসে। ঢাকার দামেই এখন গ্রামেই পাওয়া যায়। টাকা পরিশোধ বিকাশে। স্কুল কলেজের ছড়াছড়ি। বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা ১৫০ টি।

ঢাকার সঙ্গে সারা দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা আছে। হাতে হাতে মোবাইল। মিনিটে মিনিটে খবর। মানুষ ভাত কাপড় পাচ্ছে। শাকসবজি,  মাছ, মাংস, ডিম দুধের উৎপাদনও বেড়েছে।

সুতরাং আর পিছনে ফিরে তাকাবার সময় নেই। দ্রুতগতিতে বাংলাদেশ এগিয়ে যাক। নাম লেখাক বিশ্বের দরবারে।

“আমার সোনার বাংলা” নামটির যথার্থ প্রতিফলন ঘটুক। এমন প্রত্যাশা সকল বাংলাদেশির।

 

তথ্যসুত্র : বিভিন্ন পত্রিকা

 

 

৬৯৫জন ৪৩৮জন
74 Shares

২১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য