আমাদের সোনেলার যে কজন লেখক? ব্লগার সোনেলাকে হৃদয়ে ধারণ করে আছেন, রিমি রুম্মান  এদের মধ্যে অন্যতম। তার প্রকাশিত লেখাগুলো আমাদের সবার অন্তর স্পর্শ করে যায়, মনে হয় ঘটনাগুলো আমাদের নিজেরই বা আশে পাশে ঘটে যাওয়া ঘটনা। সোনেলায় আসার প্রথম দিন থেকে আজ পর্যন্ত সোনেলাকে আকড়ে ধরে আছেন তিনি অমূল্য সম্পদের মত। এই সোনেলার মাধ্যমেই অনলাইনে প্রথম লেখা, আর প্রকাশ্যে লেখার সূত্রপাতও এই সোনেলা। আর এটি তিনি সব সময়ই আন্তরিক ভাবে কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেন। বর্তমান সামাজিক প্রেক্ষাপটে আমরা সবাইই ফেইসবুক নির্ভর। সবাইই আমরা ফেইসবুককে প্রধান্য দিয়ে থাকি। এক্ষেত্রে অন্য কয়েকজনের মাঝে তিনি ব্যতিক্রম। তার সমস্ত লেখাগুলো তিনি প্রথমে প্রকাশ করেন সোনেলায়, এরপরে প্রকাশ করেন ফেইসবুকে। ফেইসবুকে তার ফলোয়ার, লাইক- কমেন্ট কম নয়, বেশ বেশীই। তার অবস্থানে বা তার অনেক দুরের অবস্থানে চলে যাওয়া অনেকেই এখন আর সোনেলায় নেই। পাখি উড়তে শিখেছে, তাই বাসা ছেড়ে চলে যাওয়া- এমন এক অবস্থা।
ইতিপূর্বে তার দুটো বই প্রকাশিত হয়েছে, সে বই দুটোতে তিনি বলেছেন সোনেলার কথা, তার লেখার উৎসের কথা। আর এবারের ” অনুভূতির আকাশে তারার মেলা ” বইটি উৎসর্গ করেছেন আমাদের প্রিয় সোনেলা ব্লগকে। কৃতজ্ঞতা কিভাবে প্রকাশ করতে হয় তা রিমি রুম্মান প্রকাশ করে দেখিয়েছেন তার ভাষায়ঃ

” উৎসর্গ — প্রিয় ‘ সোনেলা ব্লগ ‘।
যে পরিচ্ছন্ন প্ল্যাটফর্মে লেখালেখির মাধ্যমে প্রকাশ্যে আসা আমার। যেখানে পেয়েছি খুব আপন কিছু মানুষ, শুদ্ধ মানুষ। যাঁদের দেশের প্রতি ভালবাসা অসীম।
তোমাদের শ্রদ্ধা করি, ভালবাসি অন্তরের অন্তস্থল থেকে। অথচ আমি অথর্ব কোনদিন এই ভালবাসার প্রকাশ ঘটাতে পারি না।”

আমরাও সোনেলা পরিবারের পক্ষ থেকে তাঁকে অভিনন্দন এবং তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

বইয়ের নাম – অনুভূতির আকাশে তারার মেলা
লেখকের নাম — রিমি রুম্মান
প্রচ্ছদ — রাগীব আহসান
লেখক পরিচিতি — দিলরুবা রুম্মান রিমি। জন্ম ২৬শে ফেব্রুয়ারী। চাঁদপুর শহরের হাজী মহসিন রোডে জন্ম এবং বেড়ে উঠা। শহরের মাতৃপীঠ সরকারি বালিকা বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং চাঁদপুর সরকারি কলেজ থেকে এইচএইচসি পাশ করেন। ইডেন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে ভূগোল বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করেন। বর্তমানে স্বামী এবং দুই পুত্র নিয়ে আমেরিকায় বসবাস করছেন। লিখছেন স্কুল জীবন থেকেই, একান্তে। ব্লগিং এর মাধ্যমে লেখালেখিতে প্রকাশ্যে এলেও দেশের জাতীয় দৈনিক, নিউইয়র্কের সাপ্তাহিক পত্রিকাসহ বেশ কিছু অনলাইন পোর্টালে লেখালেখির মাধ্যমে এই জগৎকে আরো আপন করে নেন। বাস্তব জীবনে আমাদের চারপাশে ঘটে যাওয়া নানাবিধ ঘটনা যা থেকে আমরা প্রতিনিয়ত উপলব্দি করছি, শিখছি, সচেতন হচ্ছি, এসব নিয়ে লিখতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। এটি লেখিকার প্রকাশিত তৃতীয় বই। প্রথম বই ‘ সুখের আকাশে বিষাদ রাত ‘ এবং দ্বিতীয় বই ‘ পুবের আকাশে ভোরের অপেক্ষায় ‘। ‘ মানুষের মনে কষ্ট না দিয়ে বলা সকল ভাষাই সুন্দর ‘ এই বোধ নিয়ে চলেন জীবনের প্রতি বাঁকে।

বিষয়বস্তু — ভাল-মন্দ, সুন্দর-অসুন্দর এবং সুখ-দুঃখ হাত ধরাধরি করে চলে জীবনের বাঁকে বাঁকে। এভাবে জীবন থেকে যেন খুব দ্রুতই বিদায় নেয় প্রতিটি দৃশ্যপট। অনেকটা ভোরের আলো ফোটার সাথে সাথে আকাশের অসংখ্য তারার অদৃশ্য হবার মত। দেশান্তরী হয়েছি সেই কবে ! দুই যুগ আগে। এক জীবনের হিসেবে অনেক সময় যদিও, তবুও চোখ বন্ধ করলে স্পষ্টই যেন দেখতে পাই সব আজো। মনে হয় এইতো সেদিনের কথা। এভাবেই বুঝি জীবনের সব বেলা ফুরায়। ছোটবেলা, বড়বেলা কিংবা বুড়োবেলা। অতঃপর বিদায়বেলার পালা আসে যেন দ্রুতই। এই বিদায়ের আগ অবধি আমাদের চারপাশে নিয়ত ঘটে যাওয়া নানান চড়াই উৎরাই আর অনুভূতির গল্প নিয়ে রচিত ‘ অনুভূতির আকাশে তারার মেলা ‘ বইটি। লেখাগুলো আমার নিজের অনুভূতির আকাশ থেকে নেয়া হলেও মূলত বইটি পড়ার পর প্রত্যেক পাঠকের মনে হবে তাঁরই জীবনের ঘটে যাওয়া ঘটনা। গল্পগুলো আমার, আপনার, এবং আমাদের সকলের।

বইটির ফেইস ভ্যলু ১৭০ টাকা। বইমেলা উপলক্ষে ২৫% ছাড়ে মুল্য ১২৮ টাকা।
পৃস্ঠা সংখ্যা – ৮০
বইটি পাওয়া যাবে একুশে বই মেলার ‘ সূচীপত্র স্টলে ( নম্বর ১৯০-১৯০ )
অনলাইনে পাওয়া যাবে – www.rokomari.com
নিউইয়র্কের মুক্তধারায়।

২০০জন ১৯৩জন
79 Shares

২৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য