বিভাগ: উপন্যাস

অবশেষে (৭ম পর্ব)

আতা স্বপন ২৮ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার, ০৯:১৮:৪৫অপরাহ্ন উপন্যাস ৮ মন্তব্য
পনের. মার্কেটে আজ মনে হয় লোকের ঢল নেমেছে।লোকজন গিজ গিজ করছে। অনেকটা পোকার মত।এর মধ্যে এতগুলো দোকান কোনটা রেখে কোনটা কিনি। এসব ভাবতে ভাবতে তিনি অনেক কিছু কিনে ফেললেন।বয়স্ক মানুষ এতো কিছু তার শরীর সইবে কেন!মাথাটা কেমন চক্কর দিয়ে উঠল। তারাতারি মার্কেট থেকে বেরিয়ে তিনি রিক্সা খুজতে লাগলেন। হারেছ আলীর কথা বেমালুম ভুলে গেলেন। এই [ বিস্তারিত ]

অবশেষে (৬ষ্ঠ পর্ব)

আতা স্বপন ২১ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১১:২২:১৫অপরাহ্ন উপন্যাস ৮ মন্তব্য
তের. মশাটির দিকে তার তিব্র নজর! ঠাশ করে একটা থাবরা দিলেই ল্যটা শেষ। কিন্তু সে আছে দুটানায় । থাবরা দিবে কি দিবে না। দবির মোল্লা লক্ষ করল ডাক্তার সাহেব ইনজেকশনটা দেওয়ার পর থেকেই স্যার একটু একটু করে সুস্থ হয়ে উঠছেন। এইতো পেটের মধ্যে এখন হাত নাই। নিষ্পাপ শিশুর মতে ঘুমাচ্ছেন। মশাটা বসেছে স্যারের চাপার বরাবর। [ বিস্তারিত ]

অবশেষে (৫ম পর্ব)

আতা স্বপন ১৭ মে ২০২০, রবিবার, ১১:১১:২২অপরাহ্ন উপন্যাস ২ মন্তব্য
এগারো. পল্টন থানার এস আই রফিকুল ইসলামের পেটে সমস্যা। বাথরুমের আউট এন্ড ইং প্যারোড চলছে। স্যার এর এহেন দশা দেখে হাবিলদার দবির মোল্লার খুব মায়া লাগছে।তাকে দু একটা সান্তনা সুচক কিছু বলা দরকার। স্যার স্যার! এখনই কি ডাকার সময় হলো। আর সময় পেলে না! এই বলে বাথরুমে ঢুকে গেলেন। খানিকবাদে বের হয়ে বলেন কি বিষয়? [ বিস্তারিত ]

অবশেষে (৪র্থ পর্ব)

আতা স্বপন ১৬ মে ২০২০, শনিবার, ০৯:৪২:২০অপরাহ্ন উপন্যাস ৮ মন্তব্য
নয়. রজত! রজত! রজত! কে? কে? আমি কমলা! ও কমু! কি খবর! ভালো! তোমার কি খবর? চাকরি হল? আর চাকরি। বি.এ পাশ এর আজকাল কোন চাকরি নাই।মাষ্টার্স সি.এ, এম বি এর জমানায় আমার চান্স কোথায়! আর এখন চাকরির জন্য চেষ্টাও করিনা। কেন? জানতে পারি! তাতো পারই। আসলে একসময় চাকুরীর জন্য দৌড়িয়েছি তোমাকে পাবার জন্য। তখন [ বিস্তারিত ]

অবশেষে (৩য় পর্ব)

আতা স্বপন ১৫ মে ২০২০, শুক্রবার, ১০:২৪:০৮অপরাহ্ন উপন্যাস ৫ মন্তব্য
পাঁচ. হাসপাতালের বেডে একটা ছেলে শুয়ে আছে। বয়স দশ কি এগার হবে।মাদ্রসার ছাত্র হতে পারে।গায়ে ছুন্নতি লেবাস। মাথায় টুপি।পথচারী ছিল। কোটের সামেনে দিয়ে আসছিল সে।আইজীবিদের গন্ডগোলে পুলিশ গরম পানি নিক্ষেপ করে। সবাই ছত্রভঙ্গ হয়ে দৌড়তে থাকে। এই হুলস্থুলে মাঝে পথচারী ছেলেটা নিচে পড়ে যায়। মানুষের পায়ের তলায় পড়ে গিয়ে ভালই আঘাত পেয়েছে।নাবিল ছেলেটার মাথায় হাত [ বিস্তারিত ]

অবশেষে (২য় পর্ব)

আতা স্বপন ১৪ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১১:৩১:০২অপরাহ্ন উপন্যাস ৮ মন্তব্য
তিন. কলিং বেল বাজছে। বড়ই মেহেবানী দরওজা খুলিয়ে।বাংলাদেশে অন্য ভাষার চাষ হচ্ছে। বিষয়টা তমিজ উদ্দিনকে ভাবিয়ে তুলছে। রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই বলে আন্দোলন করেছে ছাত্র বয়সে ।আজ সেই ভাষা বাদ দিয়া অন্য ভাষা ফিরে আসছে নবরুপে। আফসোস! বড়ই আফসোস! দড়জা খুললেন তিনি। আসাসালামু আলাইকুম।আমি সাজ্জাদ। ওয়ালাইকুম আসসালাম! তোমাকেতো চিনলাম না বাবা! আমি নাবিল স্যারের ছাত্র। [ বিস্তারিত ]
“আমি তোমার জন্য এসেছি -(পর্ব- ঊনত্রিশ) আকরাম সাহেবকে নিয়ে কয়েকজন বার্থরুমে প্রবেশ করলো মানুষের ভিড় ঠেলে মিরা, প্রিয়া, আজাদ ভিতরে ঢুকলো। মনোয়ারাকে দেখে আজাদ চিৎকার করে বললো ভাবি আমাকে আরো আগে কেন কিছু জানালেন না! চোখের দেখাটা একবার দেখতে পারতাম। এখন তো সব শেষ মিরা শান্ত করার চেষ্টা করলো না, কাঁদুক মনের কষ্ট কমবে বলেই [ বিস্তারিত ]

অবশেষে (১পর্ব)

আতা স্বপন ১৩ মে ২০২০, বুধবার, ১১:০১:৩২পূর্বাহ্ন উপন্যাস ৮ মন্তব্য
এক. বাহ! মাছিটাতো খুব সুন্দর! এটা কি মৌমাছি? না! মৌমাছিতো আরেকটু ছোট। এটা তবে কি ? বল্লা হবে ! বাড়ীতে জানালার পাশে বল্লার একটা চাক হয়েছিল। জানলা খুলতে যেয়ে ভুল করে একবার সেখানে হাত দিয়ে ফেলেছিলাম । আর যাই কোথায়? হুল ফুটিয়ে দিল। হু এটা বল্লাই হবে! ফুলের দোকানটার পাশে দাড়িযে আছে সে। সুরম্য সুঠাম [ বিস্তারিত ]
আমি তোমার জন্য এসেছি (পর্ব-সাতাশ) সাথে সাথে প্রিয়ার পাশের লোকটা চমকে গেল! বাঘ দেখার মতো উৎসাহ্ নিয়ে প্রিয়ার উপর দিয়ে জানালার দিকে মুখ বাড়াল। লোকটাকে দেখে মনে হচ্ছিল পারলে প্রিয়াসহ জানালার বাইরে গিয়ে পড়বে। কি আর্চয্য! পাগল নাকি! আপনার সমস্যা কি? লোকটা নিচু স্বরে বললো জ্বী মানে আপু। এত মানে মানে করছেন কেন! বলুন? লোকটা [ বিস্তারিত ]
আমি তোমার জন্য এসেছি (পর্ব-ছাব্বিশ)   আকরাম সাহেবের বয়স হয়েছে বেশ কিছুদিন ধরে একা চলাফেরা করতে পারেন না, অসুস্থ। ছেলেরা প্রায় সবাই বাবার কাছাকাছি থাকেন, মনোয়ারা চায় মৃত্যুর আগে মানুষটা প্রিয় মানুষদের কাছে থাকুক।   -আরমানের এক ছেলে, এক মেয়ে স্কুলে পড়া শেষ করে উচ্চ মাধ্যমিকে পড়ে। -সায়মনের দুই মেয়ে ওরাও স্কুলে পড়ে। – আরাফাতের [ বিস্তারিত ]
আমি তোমার জন্য এসেছি (পর্ব-চব্বিশ)   – জানি না দাদাভাই। বউমা প্রিয়ার স্কুল কখন ছুটি হবে, আরাফ জানতে চেয়েছে.? -মা, প্রিয়ার স্কুল ছুটি হবে বিকাল ৪ টায়। আরাফের দেয়াল ঘড়িতে চোখ পড়ল সময় ১.৩০ মিনিট আরো প্রায়২.৩০মিনিট বাকি। মিরার কথা শোনে আরাফের মনটা খারাপ হয়ে গেল। ওহ্ তাহলে আমার সাথে আজ প্রিয়ার দেখা হবে না, [ বিস্তারিত ]
আমি তোমার জন্য এসেছি (পর্ব-তেইশ)   -কিছু না! পিচ্চি প্রিয়া বলে আরাফ। -ওহ! মম আপনাকে খেতে ডাকছে। -চল। -আরাফ দেখল প্রিয়া খুব হাস্য উজ্বল, তো! রাতে ঘুম কেমন হলো? -জ্বী ভাইয়া ভালো। -তোমার পড়াশোনা কেমন চলছে.? -জ্বী ভালো। কথা বলতে বলতে দুজনেই ডাইনিং রুমে ঢুকল।   আরাফ দেখল টেবিলে খাবার সাজানো, মিরা কাজে ব্যস্ত সবার [ বিস্তারিত ]
আমি তোমার জন্য এসেছি (পর্ব-বাইশ) -আমি টেবিলে খাবার দিলাম সবাই খেতে আসেন মিরার ডাক শোনা গেল। মা কোথায়? আকরাম জানতে চাইল। আজাদ বললো মায়ের প্রেশার বেড়েছে রাতে খাবেন না, চলেন স্যার,ভাবি খেতে চলেন আমরা খেয়ে নেই। সবাই টেবিলে বসল  আরাফ চারপাশ চেয়ে দেখল প্রিয়া কোথাও নেই। আজাদের দিকে চেয়ে দেখল তারও মন খারাপ প্লেটে নাড়া [ বিস্তারিত ]
“আমি তোমার জন্য এসেছি-(পর্ব-একুশ) একটা প্রস্তাব নিয়ে আমাদের কাছে আসছে। কি প্রস্তাব দাদুমনি..? শোন আরাফ তোমাকে পছন্দ করে, বিয়ে করতে চায় আকরাম,মনোয়ারা ওদের ছেলের পছন্দ মেনে নিয়েছে তারাও তোমাকে আরাফের জন্য বউ হিসাবে পছন্দ করেছে। আমাদের ব্যাপারটা জানিয়েছে তোমার বাবা,মা আমিও চাই আরাফের সাথে তোমার বিয়ে দিতে এখন তোমার মতামত কি..? প্রিয়া কিছুক্ষন চুপ করে [ বিস্তারিত ]

আমি তোমার জন্য এসেছি (পর্ব-বিশ)

সুরাইয়া নার্গিস ২৩ এপ্রিল ২০২০, বৃহস্পতিবার, ০১:০০:৩৮অপরাহ্ন উপন্যাস ১৪ মন্তব্য
আমি তোমার জন্য এসেছি- (পর্ব-বিশ) প্রিয়া মা-মনি তোমার পড়াশোনা কেমন চলছে..? জ্বী আঙ্কেল ভালো। আচ্ছা তুমি একটু ভিতরে যাও আমরা একটু অন্য বিষয় কথা বলবো। জ্বী আঙ্কেল বলেই প্রিয়া পড়তে নিজের রুমে চলে গেল। আরাফ বুঝতে পারল কি বিষয়ে কথা বলবে তাই সেও বিছানা ছেড়ে উঠে যেতে চাইল। মনোয়ারা তাকে থামিয়ে দিল, আলোচনায় তোমার থাকা [ বিস্তারিত ]

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ