সে এবং সে

জিসান শা ইকরাম ২৬ মার্চ ২০১৯, মঙ্গলবার, ১০:৪৭:২৮অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৮০ মন্তব্য

সে

আর সে একসাথেই ২০১২ সনের অক্টোবরে পদার্পন করেছিল এই সোনেলায়, ইচ্ছের আকাশ ছুঁয়ে দিতে। যদিও ব্যাকগ্রাউন্ডে গান বাজেনি তখন সে যে কেন এলোনা কিছু ভাল লাগে না, এবার আসুক তারে আমি মজা দেখাবো। এমনি খুশিতে ঠেলায় ঘুরতে এসেছিল, ভালো লাগায় তাবু টানিয়ে গ্যাট হয়ে বসেছিল। বাঙালীদের যা স্বভাব, বসতে দিলে শুতে চায় – তো সে বসা শোয়ার পর্ব সমাপ্ত করে একেবারে দালান কোঠা বানিয়ে স্থায়ী বসতি স্থাপন করেছে, মজা দিচ্ছে নিচ্ছে।

সারে তিন যুগের বেশি সময় হাতে হাত রাখে একসাথে অতিক্রম করেছি শত সহস্র আনন্দ বেদনার পথ। বিভিন্ন চড়াই উৎরাইয়েও হাত বিচ্ছিন্ন হয়নি কখনো, অবিছিন্ন অবস্থায়ই জীবনেই শেষ দিন পর্যন্ত থাকতে চাই।
সংসার ত্যাগী হয়ে একই সাথে হেঁটেছি থোল্লাকান্দির বালুচরে। বালুচরের প্রবল উজ্জ্বল মুক্তো কুড়িয়েছি। আবার একই সাথে গৃহী হয়েছি।

অনলাইনে লেখা লেখিটা আরম্ভ একই সাথে সাথে ব্লগে। আড্ডাবাজ ব্লগার হিসেবে আমার এবং কবি হিসেবে তার তুমুল নাম ডাক। ঈর্ষান্বিত, আতংকিত হায়েনাদের থাবায় পরিশ্রম করে গড়া সাজানো বাগান তছনছ। বন্ধুর অপমান সহ্য করতে না পেরে সে চলে এসেছিল আগেই, আর ও মুখো হয়নি। অত:পর সোনালী স্বপ্নের বীজ বপন সোনেলায়। বন্ধুর বন্ধু আমার,

লেখা তার নেশা। নিজের আনন্দের জন্যই লেখে সে। সে আনন্দের ভাগ দেয় পাঠকদের। লেখা লেখিতে আমার সাথে তুলনায় তাকে ছোট করা হবে। কারণ আমি লেখকই না। সে লেখক, কবি। সোনেলায় দিনে একটির বেশি লেখা দেয়ার নিয়ম নেই, এই নিয়ম তার লেখায় শিকল। যদি নিয়মটি শিথিল হয় তার লেখা শৃংখল মুক্ত হয়, পাঠকগন আরো লেখা পেতেন তার কাছ থেকে।

এই ছোট ব্লগটিতে এমন একজন আছেন যিনি স্থির অবিচল থেকে লেখায় মগ্ন থাকেন, ধ্যানী ঋষির মত। বসে আছেন আসন গেরে, দুহাত লেখা মগ্নতায়, চোখ বুজে। ধুপ চন্দন কাঠের আদিম সুগন্ধে ‘লেখা দেবতার’ ধ্যানে। ভাবতে ভাল লাগে এমন।

আজ তার ৪০০ তম লেখা এই সোনেলায়। সোনেলার অগুনতি পাঠক, ব্লগার, শুভাকাংখী ও ব্লগ টিমের পক্ষ হতে তাকে জানাই শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

২৩ মার্চ, ২০১৯

৬৬০জন ৬৬০জন
7 Shares

৮০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য