আমার মা

সুরাইয়া নার্গিস ৮ মার্চ ২০২১, সোমবার, ০৮:০০:২৯অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ১২ মন্তব্য

“আমার মা”

আজ বিশ্ব নারী দিবস।

আজকের এই দিনে পৃথিবীর প্রত্যেক নারীর প্রতি জানাই অসীম শ্রদ্ধা, অশেষ কৃতজ্ঞতা।একটা সংসার সুন্দর সুখি করার জন্য একজন নারীর অবদান অস্বীকার্য।পৃথিবীর সকল মা বোনকে জানাই নারী দিবসের শুভেচ্ছা।

আম্মু সব সময় চেষ্টা করেন প্রতিদিন আমাদের সবার পছন্দ অনুযায়ী রান্না করতে।

সেটা ছিলো শুক্রবার, দুপুরে খাবার মেনু রুটি আর মুরগির মাংস, সবাই কিছুটা অবাক হলাম। আব্বু বললেন এটা তোমাদের মায়ের পছন্দের খাবার।সবাই খুব খুশি হলাম অত্যান্ত আনন্দের সাথে তৃপ্তি করে খেলাম।

খাবার শেষে সবাই আব্বু রুমে হাজির হলাম, আব্বু বললেন আজ তোমাদের একজন নারী সম্পর্কে বলবো।

পৃথিবীতে দু’ধরনের নারী আছে।

১) এক ধরনের নারী যারা সারাজীবন স্বামীর কাছে এটা দেও, ওটা দেও, স্বামীর আর্থিক অবস্থা বিবেচনা না করেই তাকে মানসিক চাপ সৃষ্টি করে সংসারে অশান্তি লাগিয়ে রাখে।

২) আরেক ধরনের নারী স্বামীর কাছে কোনদিন কোন কিছুই চায় না,সার্ধ অনুযায়ী যা দেয় তাতেই নিজের সুখ খুঁজে নেয় বরং সারা জীবন স্বামীর সন্তুুষ্টি অর্জনের জন্য ব্যস্ত থাকে।

আমি বললাম প্রথমটা মেনে নিলাম, দ্বিতীয় ধরনের নারী পৃথিবীতে আছে বলে মনে হয় না।

আব্বু হেসে বললেন, আছে সে তোমাদের খুবই আপন জন তোমাদের মা।

আমাদের বিয়ের ৩৫ বছরে সে আজ পর্যন্ত কোনদিন মুখ ফুটে আমার কাছে কিছুই চায়নি বরং আমি যখন যা দিয়েছি তাতেই মহা খুশি হয়েছে। তার নিজের কোন পছন্দ ছিলো না কারন আমার পছন্দই তার পছন্দ। আমি সব সময় চেয়েছি তোমাদের মা আমার কাছে কিছু আবদার করুক আর আমি সেটা দিতে চাই।

আম্মু হেসে বললেন তোমাদের আব্বু খুব ভালো মানুষ সেটা তোমরা জানো। আমি কিছু চাইলে যদি সে না দিতে পারে তাহলে আমাকে কিছু বলবে না তবে মানসিক ভাবে খুব কষ্ট পাবে।আর আমি চাওয়ার আগেই সে আমার সকল অভাব পূরণ করে দেয় তাই কখনো কিছু চাওয়ার প্রয়োজন হয়নি। আমি তোমার আব্বুকে স্বামী হিসাবে পেয়ে খুব খুশি। আর আমি সব সময় চেষ্টা করি আমার কোন আচরন বা চাওয়া যেন তাকে কোন প্রকার কষ্ট না দেয়।

আব্বু বললেন, ধন্যবাদ। আজ আমি পৃথিবীর সবচেয়ে খুশি এবং সুখি মানুষ কারন এই ৩৫ বছরে তোমার আম্মু আমার কাছে কিছু চেয়েছে, তার রুটি দিয়ে মুরগির  মাংস খেতে ইচ্ছে করছে।তাই আজ আমি নিজের হাতে সব বাজার করছি,তোমার আম্মুর একটা চাওয়া পূরণ করতে পেরে আজ নিজেকে ধন্য মনে করছি।

আমরা সবাই জোরে করতালি দিলাম,আম্মুকে স্যালুট করলাম।

দাদুমনির হাউমাউ করে কাঁদতে শুরু করেদিলেন, আব্বু কারন জানতে চাইলেন। দাদুমনি বললেন, বাবা রে আজ সকালে আমি রুটি দিয়ে মুরগির মাংস খেতে চাইছিলাম বউমার মন চায়নি সে তোমাকে মিথ্যা বলছে।আম্মু বললেন ঘরে ময়দা, মুরগির মাংস ছিলো না,মা বয়স্ক মানুষ খেতে চেয়েছে তুমি এটা শুনছো জানলে মা হয়ত কষ্ট পাবেন তাই নিজের কথা বলছি।আমার সন্তানেরা কিছু চাইলে আমি তাদের সে আবদার পুরণ করি মা আমার সন্তানের মতো তাই তার ইচ্ছাটা আমার চাওয়া বললাম।

সব শুনে মুগ্ধ হয়ে গেলাম, কিছু বলার ভাষা খোঁজে পাচ্ছিলাম না।সবার চোখে আনন্দ আর গর্বের অশ্রু। আব্বু বললেন জীবনে হয়ত কোন একটা পূর্ণ করছিলাম যার কারণে তোমার মতো একজন স্ত্রী পেয়েছি। আল্লাহর কাছে দোয়া করি আজ তুমি আমাকে যে উপহার দিলে তার উওম প্রতিদান যেন তিনি তোমাকে হাসরের ময়দানে দেন। আম্মু হেসে বললেন,দোয়া করো মৃত্যুর আগ মুহুত্ব পর্যন্ত যেন তোমার সেবা করতে পারি।

সেদিনেই সেই কথা গুলো কোনদিন ভুলবো না, চেষ্টা করবো আম্মুর মতো একজন পরিপূর্ণ নারী হতে। আল্লাহর কাছে সব সময় প্রার্থনা করি তিনি যেন আমার আব্বু আম্মুকে ভালো রাখেন, সুখে রাখেন।

দাদুমণি মারা গিয়েছেন, তিনি খুব ভালো মানুষ ছিলেন। আল্লাহ আমার দাদুমণিকে জান্নাতবাসী করুন।

পৃথিবীর সকল নারী মা,বোনের প্রতি রইল শ্রদ্ধা,ও নারী দিবসের শুভেচ্ছা।

১২৩জন ১৩জন
0 Shares

১২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ