সবে চাকুরি পেল অনিমেষ।নতুন চাকুরির সংবাদে পাড়া-মহল্লায় হুলস্থুল কান্ড ঘটে গেল!ছানাবড়া চোখ করে থাকা পাড়ার তথাকথিত মুরুব্বি,বড় ভাই,দাদাদের এই আশ্চর্যান্বিত অবস্থা বেশ অদেখা আনন্দের খোরাক যোগায় অনিমেষের মাঝে।অনিমেষও কিনা চাকুরি পেয়ে গেল এই কঠিন চাকুরি বাজারের প্রাপ্তি আর অপ্রাপ্তির গোলকধাঁধায়।যাকে দিয়ে কিছুই হবে না বলে শত,সহস্র গঞ্জনা,অবজ্ঞা তরুহীন বৃক্ষের মত মাথা পেতে নিতে হয়েছিল তার ভাইকে,তাকে জুড়েই কিনা আজ পুরো পাড়া-মহল্লায় এত বন্দনা,এত গুঞ্জন,এত বাকা চোখের চাহুনি।

কে এই স্বপ্নকথার অনিমেষ?কেন তাকে নিয়ে এত কথা?

তবে কিছুটা পেছনে ফিরেই গল্পের নায়ক অনিমেষের জীবন তমসা অনুসন্ধানের প্রচেষ্টা করা যাক সাথে থাকা গল্প কথকের ভাঙাচোরা হারিকেনের আলোয় ভর করে।

অনিমেষ যে কিনা অনু নামেই পরিচিত ছিল।বাবা অকালে মারা যাওয়ায় কোলে পিঠে মানুষ করার দ্বায়িত্বটা যে তারই সহোদর অগ্রজ শুভাশিসের উপর বর্তাল।

বাবার রেখে যাওয়া মুদির দোকানের গদিতে বসে স্টিয়ারিং উইলের ঘানি ধরতে হল শুভাশিসকেই।দুই ভাইয়ের বয়সের হেরফের ৬ এর কম নয়।আর যাই হোক অনুকে মানুষের মত মানুষ বানানোর এক অদম্য জেদ চেপে বসল শুভাশিসের মাঝে।

স্কুল ব্যাগ কেনা,নতুন নতুন বই কেনা,টিউটর নিযুক্ত করা,কাপড় চোপড়ের সংস্থান যাবতীয় সব কিছুতেই অন্ত রাখেনি শুভাশিস।চোখ বন্ধ করে যে স্বপ্ন সে দেখে,চোখ খোলে সেই স্বপ্নকেই আলিঙ্গন করতে চায় শুভাশিস অনুর মধ্য দিয়ে।

কিন্ত হঠাৎ অনুর যেন কি হল? পড়াশোনা কিংবা পরিবারের কারো সাথেই তেমন সম্পৃক্ততা রাখছে না অনু।ঠোটে ধোয়া ধোয়া ছাই রঙ আর স্বাস্থ্যের ক্রমাগত অবনতি বুঝতে পারে মা,শুভাশিস দুজনেই।

শুভাশিস ভবিষ্যতের জলছবি একে যায়,আর অনু সেটা পাশ কাটিয়ে যায়।সকাল থেকে সন্ধ্যা অব্দি সে কালো আড্ডায় মশগুল থাকে।স্কুলে যাওয়ার ইতিরেখা বিপদগামী হয়ে সে নিজেই টানতে লাগল।

বকাটে,লম্পট ছেলেদের সাথে তাকে ভিড়িয়ে দিয়ে পাড়া প্রতিবেশীরা পৈশাচিক আনন্দ নেয়ার জোয়ারে ভাসছিল।এটি অজানাই ছিল শুভাশিসের।হঠাৎ তার এক কাজিনের মাধ্যমে সে এই অজানা সত্য জানতে পেরেছিল।

তদুপরি পাড়ার তথাকথিত পোড়া সমাজের একাংশ যখন অনুকে কারো দোকানে ঢুকানোর অযাচিত উপদেশ নিয়ে আসে,শুভাশিসের তখন বুঝতে বাকি থাকে না যে কারা তার মেধাবী ভাইকে বখাটেদের খাতায় নাম লিখিয়েছিল।

ব্যাবসায় বেশ খরা যাচ্ছিল।মূলধনের সংকটে যখন নাভিশ্বাস,তখন খরচ আরো বাড়তে লাগছিল উচ্ছন্নে যাওয়া অনুর খরচার সংস্থানে।খরচাটা যদি স্বপ্ন পূরনের ভোগে লাগত দুঃখ ছিল না,খরচটা যে বেড়ে গেল জীবনকে শ্মশান বানানোর কারনে সেটাই কষ্ট।এই কথা বলেই মাকে জড়িয়ে ধরে কাদতে লাগল শুভাশিস।

দোকান ভিটার মালিক হঠাৎ দোকান ছাড়ার কথা বলল শুভাশিসকে এক মাসের নোটিশে।মাথায় যেন বাজ পড়ল হঠাৎ দোকান ছাড়ার এই অলঙ্ঘনীয় নির্দেশে।কি আর করা অগত্যা দোকানও ছাড়তে হল তাকে।কিন্ত বিধি বাম! এর ভিতরে কোন দোকান তার সীমার পরিধি সমকক্ষ করে বের করতে পারল না।

জীবন যখন জীবিকার মাধ্যমে বেচে থাকার প্রয়াস করে,শুভাশিসও বাবার অবর্তমানে মা আর অনুকে নিয়ে মাসিক বেতনে জৈনক ব্যক্তির দোকানে ঢুকে বেচে থাকার খড়কুটো ধরে।

অনুর কি জানি কি হল ফের! আছমকা ভাইয়ের এই হাড়ভাঙ্গা কষ্টের সাগরে ডুব দিতে লাগল।তার ভাইয়ের রাঙা স্বপ্ন,দোকান হারানো,আর্থিক মন্দাদশা তার মাঝে নবজাগরণ সৃষ্টি করল।

যে বেগে সে নষ্ট হচ্ছিল,তার দ্বিগুণ বেগে ঘুরে দাড়াতে লাগল।তার ভাইয়ের স্বপ্ন তাকে ঘুমেও জাগিয়ে রাখে।

পাড়া-মহল্লার কতিপয় মানুষের হিংসাত্মক কর্মকাণ্ড তাকে নিরাশ না করে বরংচ এগিয়ে যাওয়ার মুষ্টিবদ্ধ দৃঢ়তা দিতে থাকে।

রাতজাগা কষ্ট আর গগনচুম্বি প্রত্যাশার সেতুপথ ধরে জীবন নদীর দুঃখের পাড় ছেড়ে সুখের পাড়ে আজ আবার (অনু) অনিমেষ।পাড়ার কুচক্রী মহলও যখন তাকে মাল্যদানের জন্য এগিয়ে আসে,অনিমেষ সেই মাল্য সগর্বে,সহাস্যে,সানন্দে তার ভাই শুভাশিসের গলে পড়িয়ে দেয়।আজ থেকে অনিমেষ সরকারি চাকুরিজীবি।নিজের ব্যাপারে মিতব্যয়ী আর আদরের ভাইয়ের ব্যাপারে সীমাহীন অমিতব্যয়ী শুভাশিসের আনন্দ যে কোন কৌটাতেই ধরে রাখার নয়।আর তার রেশ ধরেই কাছে,দূরে সবাইকে মিষ্টিমুখ করায় শুভাশিস।আর এভাবেই স্বপ্নযাত্রায় বড় ভাইয়ের মুখ উজ্জ্বল করে অনিমেষ তথাকথিত পোড়া সমাজকে নতুন এক অভিজ্ঞতা সঞ্চারে সহযোগিতা করে।

৩৮৩জন ৩জন
86 Shares

২০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য