শিরিন হক

  • নিবন্ধন করেছেনঃ ১ বছর ১ মাস ১৪ দিন আগে
  • পোস্ট লিখেছেনঃ ৫৪টি
  • মন্তব্য করেছেনঃ ৮৮৮টি
  • মন্তব্য পেয়েছেনঃ ১১২১টি
প্রিয় পোস্টঃ ২টি

ক্যাপশন ছাড়া

শিরিন হক ৮ জুলাই ২০২০, বুধবার, ০৯:০৫:২৩অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ১১ মন্তব্য
কবিতা বা অন্য লিখে কিছু তাকে না দেখালে পেটের ভাত হজম হয়না যেনো।  লিখেই পাঠিয়ে দিলাম দ্যাখো তো- আমাদের খুনসুটি- শিরিন হক# চুলবুল খুনসুটি করে যাবো দু’জনে । দিনশেষে আমাদের কাব্যেরা জাগবে, একদিন আমাকে ভেবেভেবে তুমি বুঝি কাঁদবে? থাক পরে যতসব ভাবনার কাব্য! এভাবেই  তুমি আমি মুখমুখি বসে থাকবো। #অদ্ভুত!! -মানে #তুমি কি করে লিখো [ বিস্তারিত ]

সময়ের প্রত্যাশায়-

শিরিন হক ৩ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ০৩:৫৭:৩৪পূর্বাহ্ন কবিতা ১৪ মন্তব্য
  স্বপ্নের আকাশে ভাসে সুখের রসদ। চুমুকে চুষে নিতে চাই মুঠোভরা সুখ। চাওয়াটা আকাশ চুম্বী ! প্রত্যাশিত ক্ষণের অপেক্ষায় নির্ঘুম কাটে রাত, ঘড়ির কাঁটা বেজে ওঠার শব্দে। সময়ের দীর্ঘতায় আকাশ কখনো নীল মেঘের আচ্ছাদনে ঢাকা পড়ে। অজানা ভয় পিছু ছাড়েনা! জলের ঘরে স্বপ্নে হাত- পা- চোখ একটু একটু করে প্রসারিত হয়। হৃৎপিন্ড টিকটক করে বেজেই [ বিস্তারিত ]

শব্দের শুদ্ধচারণ

শিরিন হক ২৭ জুন ২০২০, শনিবার, ০৫:২৭:২৭অপরাহ্ন কবিতা ২০ মন্তব্য
      শব্দের শুদ্ধচারণ   শিরিন হক   শুদ্ধচারণ ভূমিতে আবাদ হোক বিশুদ্ধতার বীজ। সেখানে ফলুক সাম্য-অসাম্প্রদায়ীকতা-প্রেম এবং মানবাতার ফসল। নবজাতকের মুষ্টিবদ্ধ হাতে তুলে দেই এক একটি পদ্মকমল। প্রতিটি পথের দ্বার খুলে দিতে- ভুমিষ্ঠ নবজাতক হোক সভ্যতার প্রতীক। মগজের মননশীলতায় গোটা পৃথিবীতে হোক সবুজের আবাদ।   আমি গাইতে আসিনি শরীরের ভাঁজে ভাঁজে গড়ে ওঠা [ বিস্তারিত ]
দিনের কাছে হাত পেতে চেয়েছিলাম রোদ; মৌনতার দৃষ্টিতে কেবল ভালোবাসা! তোমার দৃষ্টির আলোকরশ্মি আমাকে পথ দেখায় ব্যাপকতায়। ৪৯ বছরের অমানবিকতাকে মুছে দিয়ে সেখানে ফলাতে চাই সবুজ শস্যদানা। জরা জীর্ণতাকে উপড়ে ফেলে তোমার খোঁপায় বেলি ফুলের মালা পড়াবো।আমাদের আগামী প্রজন্মের পথে বিছিয়ে দিবো কাঁটা ছাড়া গোলাপ: রাষ্ট্রের কাছে এ আমার অঙ্গীকার। আমি ছুঁয়ে দিতে পারিনা ন্যানো [ বিস্তারিত ]

ইচ্ছে ছিলো…

শিরিন হক ৩ জুন ২০২০, বুধবার, ০৪:০৯:২২অপরাহ্ন কবিতা ৯ মন্তব্য
আমাদের কতশত ইচ্ছে ছিলো! তোমার একটা লম্বা ছুটি আর- বাচ্চাদের স্কুল ছুটি হলে, তার পর আমরা সাধ্যকে উপযোগ করে ইচ্ছেদের কাটাছেঁড়া করবো। সমুদ্র বা পাহাড় দেখিনি কখনো… যে কোনো একটা বেছে নেবো। সময়ের তালে দৌড়ে দৌড়ে তুমি যখন ক্লান্ত আমিও বলিনি আমি কি চাই। সমুদ্রের তীরে যেয়ে উসুল করে নেবো ইচ্ছের আদর, আমার অপূর্ণতাকে ভাসিয়ে [ বিস্তারিত ]
    মিতা–২// আছো??   মিতা–১//কেউ নেয়নি খোঁজ!   মিতা–২// কেউ আর তুমি এক?   মিতা–১//আমি ভাবলাম ,খোঁজ নেয়া মানুষ বহুত জুটে গেছে , সেজন্য মিতা আমার মনে করলো না সারারাত।   মিতা–২// এমনই হয় তাই না? অভিযোগের পাল্লাটা তোমার জন্য জমা। কেবল জানি তুমি নিবেই আমার খোঁজ। যেমনি করেই নিচ্ছো তুমি রোজ। হয়তো আমায় [ বিস্তারিত ]

কার হাড়িতে ভাত বসালেন?

শিরিন হক ১৪ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার, ০৫:১২:২১পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ১৩ মন্তব্য
কার হাড়িতে ভাত বসালেন? সাধারণ মানুষ নাকি ব্যবসায়ীদের?? দিনমজুরের তো একটা পথ আছে… সবদিক বন্ধ হলেও হাত পেতে চাইতে পারবে। আমাদের মতো মধ্যবিত্তের মুখে ভাত তুলতে তো পরের গোলামী করতে হয়। হঠাৎ বেসরকারি শিল্পকারখানার মালিকদের বলে দিলেন, তারা যেনো কর্মচারীদের ৬০% বেতন পরিশোধ করে। তারচেয়ে এটা বলে দিতে পারতেন, মধ্যবিত্ত মানুষ এখন থেকে একবেলা ভাত, [ বিস্তারিত ]

মা দিবস কেনো?

শিরিন হক ১২ মে ২০২০, মঙ্গলবার, ০৪:১৪:৩৪পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ১৪ মন্তব্য
কয়দিন মাকে নিয়া রেস্টুরেন্ট এ গিয়ে বলেছি, “মা কি খাবে বলো???” চকোলেটের প্যাকেট হাতে নিয়ে কয়দিন বলেছি,  “এটা তোমার জন্য…” কয়দিন মায়ের পাশে গিয়ে বসে বলেছি, -মা তোমার সাথে গল্প করবো। -চলো ঘুরে আসি -চলো কিছু কেনাকাটা করি -আজ তোমার প্রিয় ডিস রান্না করেছি, তুমি খাবে? কতদিন বলেছি, – মা তুমি ক্ষমা করো, জীবনে যত [ বিস্তারিত ]

প্যাঁচোয়া

শিরিন হক ৭ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১০:০৫:১৩অপরাহ্ন কবিতা ১৭ মন্তব্য
জিলাপির প্যাঁচ দিয়ে হয় যত কারবার। মনের প্যাঁচ আছে যত, চেষ্টা ঢাকবার। বড় খোকা মারেন প্যাঁচ মোক্ষম সময়ে প্যাঁচ শুধু জিলাপিতে, নেই আর কিছুতে? রাজা প্যাঁচ মেরে জান রাজ্যনীতিতে, গোপাল রাখে প্যাঁচ বুদ্ধির ঝুড়িতে। যত প্যাঁচ কু-তে আছে, সু -কেবল প্যাঁচ হীন। শব্দে প্যাঁচ লেগে লেখকের যায় দিন। দেশটা হয়েছে মারপ্যাঁচে বন্দি। মানুষ খুঁজছে বাঁচবার [ বিস্তারিত ]

বন্যা তোমাকে

শিরিন হক ৩ মে ২০২০, রবিবার, ১১:২৬:০২অপরাহ্ন চিঠি ২৯ মন্তব্য
মিতা বন্যা~   কেমন আছো আজকাল? জানি খুব একটা ভালো হয়তো নেই । সময়টাই যে যাচ্ছেনা ভালো! বলেছিলে কিছু যেন লিখি তোমায়, বেশ লম্বা করে। কি লিখি বলোতো?   একটা কবিতা লিখতে বলেছো। বহুবার চেষ্টা করেও একটা কবিতা দাঁড় করাতে পারিনি জানো। কবিতা -গল্প, উপন্যাস চাইলেই  কি লেখা যায়? কতগুলো শব্দ ঘুরপাক খাচ্ছে ,কুড়ে খাচ্ছে [ বিস্তারিত ]

বরিশাইল্লারা খুব খারাপ!

শিরিন হক ২৫ এপ্রিল ২০২০, শনিবার, ১২:১৪:২১পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২০ মন্তব্য
“একটা লাথি খাবি শয়তান” কথাটা যে কাউকে যেমন বলা যায় না, তেমনি কোনো একজনকে অনায়াসে বলে দিতে পারি ভালোবাসার দাবিতে। আবার বলতে পারি হারামি, কুত্তা,বান্দর,খবিস,ব্লাব্লা ব্লা।   তবে কেউ যখন আপনার সামনে বলবে “বরিশালের মানুষ খুব খারাপ!” এরা ভীষণ “ঠকবাজ ধান্ধাবাজ”।আপনি তর্ক জুড়ে দিলেন অথবা তাউল্লা গরম করে তার ছায়া মাড়াবেন না।কিন্তু তার সাথে বন্ধুত্ব? [ বিস্তারিত ]

একটি স্তুতি এবং আরও কিছু….

শিরিন হক ১৩ এপ্রিল ২০২০, সোমবার, ১২:৫৩:২৬পূর্বাহ্ন কবিতা ২৮ মন্তব্য
মাতাল জ্যোৎস্নার মতো অনন্য সুন্দর যতো, সবই তো তোমার- পেয়েছো যা প্রাপ্তির আখরে। ইচ্ছে গুলো পাখির ডানায় উড়িয়ে, আকাশ দেখো অবারিত সবুজের দিগন্তে। ঘুমঘোর মেঘেরা থাকনা ঘুমে, নাইবা হলো শ্রান্ত ভোর, শীলত পাটির তলে থাকুক কিছু কথা। মৃদুমন্দ বাতাসের উচ্ছ্বাসে স্বপ্নেরা করুক খেলা। যে পদ্মদিঘীর জলে ফোঁটে রক্তকমল সেই জলের গভীরতা ক’জন বোঝে বলো? কালো [ বিস্তারিত ]
  #করোনায় “কেউ মরছেনা”, “মরছে সর্দি-কাশি, জ্বর নিয়ে”। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি এবং আপনার মন্ত্রীদের এবং ডাক্তারদের সেদিকে একটু নজর দিতে বলুন। নইলে বাংলাদেশকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছেন আপনি নিজেই তা বুঝতে পারছেননা। #আমদের মৌলিক চাহিদার একটি সুচিকিৎসা এই যদি তার নমুনা হয় তবে চাইনা এমন দেশ। চাইনা স্বাধীনতার অধিকার।চাইনা সুনাগরিকের উপাধি। #তিনমাস চলে গেছে প্রস্তুতি নিতে [ বিস্তারিত ]

প্রার্থনীয়

শিরিন হক ২২ মার্চ ২০২০, রবিবার, ০৭:৪৪:৫৮অপরাহ্ন কবিতা ১২ মন্তব্য
  যাপিত জীবনের পথে সীমাহীন ভাবনায় নিমগ্ন আজ পৃথিবীর বুক। শঙ্কাকুল স্রোতে ভেসে যাচ্ছে চলমান সময়। একেকটি ফুল ঝরে পড়ে; ঝরে পড়ে পাতা সময়ের কাছে জীবনের মূল্য বড্ড অসহায় আজ। সবুজ অরণ্য আজ ধূসর মনে হয়। মানুষের চিৎকার আর্তনাদ গুমোট হয়ে কেবলি রক্তক্ষরণ বুক পাঁজরে। দুঃসময়ের ক্রান্তিলগ্নে বেঁচে থাকার অদম্য চেষ্টা। হে অসীমের প্রতিপালক হে [ বিস্তারিত ]

করোনার মোকাবেলায় আমি

শিরিন হক ২০ মার্চ ২০২০, শুক্রবার, ০১:০১:২০পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৭ মন্তব্য
করোনা রোধে বাড়িওয়ালা সকল ভাড়াটিয়াদের সতর্ক করে দিয়েছেন যেনো কোন মেহমান বাসায় না আসেন বা আমরা কোথাও বেড়াতে না যাই।এক ভাড়াটিয়ার ছেলে বৌ ইতালি প্রবাসে তারা দেশে আসলেও যেনো এ বাসায় না উঠান সে ক্ষেত্রে কঠোর হুসিয়ারি।তাছাড়া ডেঙ্গু ঠেকাতে ফ্লাটের চারপাশ পরিচ্ছন্ন রাখা বেইজমেন্ট পরিষ্কারে বিশেষ ব্যাবস্তা নিয়েছেন।বাড়িওয়ালার এহেনো কাজের জন্য তাকে ধন্যবাদ এবং সাহযোগীতা [ বিস্তারিত ]

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য