শিরিন হক

  • নিবন্ধন করেছেনঃ ৬ মাস ৭ দিন আগে
  • পোস্ট লিখেছেনঃ ৩৪টি
  • মন্তব্য করেছেনঃ ৬৮৯টি
  • মন্তব্য পেয়েছেনঃ ৭৪৭টি
প্রিয় পোস্টঃ ২টি

অবেলায়

শিরিন হক ২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ০১:৫৭:২৩পূর্বাহ্ন কবিতা ১৭ মন্তব্য
সে রাতে আমারও মন ভেঙে ছিলো। অন্ধকার অমাবস্যায় একাকী নীরবতায় নিবিড় অশ্রু নীরে ভাসিয়েছি নিজেকে। যদি আর নাপাই তোমার দেখা আর যদি না হয় কথা ফিরে যদি আর না আসো আমার গৃহে। সেদিন আমিও মনে মনে ভেবেছি কত কী। সেদিন একবার শুধু একবার তোমার হাত দুটো ছুঁয়ে দিতে চেয়েছিলো মন। শুধু একবার তৃষিত ঠোঁট তোমার ঠোঁটে [ বিস্তারিত ]

স্বার্থপর

শিরিন হক ২১ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ০১:৪৮:২৮পূর্বাহ্ন কবিতা ২২ মন্তব্য
স্বার্থের কারণে প্রিয়জন চলে যায় দূরে। স্বার্থের কারণে জন্মদাত্রী মাকে বিদ্যাশ্রম এ রেখে আসে পুত্র, মা তার অনাগত সন্তানকে দেখতে দেয় না পৃথিবীর আলো। আপন ভাইয়ের হাতে খুন হয় ভাই। শুধু স্বার্থের কারণে একমাত্র আদরের ছোট বোন হয়ে যায় অপ্রিয়। ধনী গরীবের ব্যাবধানে আত্মীয় হয় পর। এই স্বার্থের কারণে জনগণ ব্যবহৃত হয় আমলাদের কাছে, খাদ্য [ বিস্তারিত ]

এক কৌটো ভালোবাসা।

শিরিন হক ১৭ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ০১:৫৮:০১অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৯ মন্তব্য
টক, ঝাল,মিষ্টি শুনলেই জিভে জল মানে আচার। কেউ আবার ভালোবাসার মধ্যে টক ঝাল মিষ্টি খোঁজে তা নাইবা বললাম। আচারকে ঘিরে ভালোবাসা প্রতিটি বাঙালি মনে, খেয়ে বা খাইয়ে। ছোট বেলায় মায়ের হাতের আচার আজো জিভে পানি এনে দেয়। এখনো মা আচার বানিয়ে পাঠান ঠিকই, স্বামী আর সন্তানদের জন্য সে আচার ভাগে জোটে না, তবুও ভালোবাসার স্বাদ [ বিস্তারিত ]

মধ্য রাতে মেঘের ছায়া

শিরিন হক ১৪ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ১১:৪২:৫১অপরাহ্ন গল্প ১৮ মন্তব্য
অধরা- যাবেন? অমিত- কোথায়? অধরা- ছাদে। অমিত- এত রাতে, চলেন। আবৃত্তি শুনাবেন আপনি একটা। আমি মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে আপনার আবৃত্তি শুনবো। অধরা- ভালো যদি না হয়। অমিত- তবুও শুনবো। রাত আর কবিতা  দুটোই আমার প্রিয়। অধরা- চা খাবেন? অমিত- না! কবিতা খেতে চাই। সিগারেট খেতে পারি? অধরা- হম! কি করে বুঝলেন আমি কবিতা পারবো। অমিত- আপনার কণ্ঠ বলে [ বিস্তারিত ]

বিবেক

শিরিন হক ১২ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, ০১:০১:১০পূর্বাহ্ন কবিতা ১৯ মন্তব্য
আলো -এখনো নিরব রয়েছ? আধার- উদ্দেশ্য কী তোমার? আলো- মানবতার পরাজয় একি মানা যায়! আধার- সত্যি সত্যি এও কী হয়? আলো- মুর্খ, যুবক যুবা মরছে আজ। শীলতার হানি একি মানা যায়! আধার- কী আছে করার। আলো- এখনো বিবেক এই কথা বলে! আধার- প্রতিবাদ, মানববন্ধন, বিচার, সভা হচ্ছে তো। আলো- সমবেত হই, মিলাই হাত, কাঁধে কাঁধ [ বিস্তারিত ]

শিশু শ্রম

শিরিন হক ৯ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ০৫:৪৮:৩২পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২২ মন্তব্য
বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি দেশ।এখানে নানা রোগ, দরিদ্রতা, প্রাকৃতিক বিপর্যয়,  অধিক জনসংখ্যা  সহ নানারকম সমস্যা। এই সমস্যা নিজেরাই একটি সমস্যা নয় এর বিস্তার ঘটাচ্ছে আরো সমস্যা নিয়ে তার মধ্যে শিশু শ্রম একটি। পারিবারিক অবস্থার নানা সমস্যার শিকার হতে হয় কোমল মতি শিশুদের। চাষাবাদে সহযোগিতা, পরিবারকে সাহায্য। রাজা জমিদার বাড়িতে পেটের দায়ে কাজ করতে [ বিস্তারিত ]

ছন্নছাড়া সবুজ মাঠ

শিরিন হক ৭ জুলাই ২০১৯, রবিবার, ১২:১১:১৩পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৫ মন্তব্য
আমার ভুবনের হাওয়ারা বয়ে যায় হাওয়াদের মতো। ভোর আসে পাখিদের ডাকে, আষাঢ়ে খানিক রোদ্দুর খানিক বৃষ্টি। সোদা মাটির গন্ধ যার আস্বাদ বুকের গহীনে বিরোহী ডাহুক ডেকে যায় মনে বিকেলের আলো। ঘর! বলতে ছোট একটা বাংলো যেখানে কাজের ফাঁকে আরাম কেদারায় নিজেকে বসিয়ে রাখা। তথাকথিত যারা কাজ নিয়ে থাকেন তাদের একটা ঘর একটা পরিবার আছে। শেকড় [ বিস্তারিত ]

আমার মনের নোঙর তোমার ঘাটে ভিড়াই

শিরিন হক ৫ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, ০৩:০৮:০৩অপরাহ্ন কবিতা ৩১ মন্তব্য
ইচ্ছেগুলো বড্ড অবুঝ দেখায় শুধু দূরের সবুজ। বৃষ্টি ভেজা দিন তোমার আমার ইচ্ছে গুলো কল্পনাতেই মিল। সব কিছু ঠিকই আছে নেই শুধু সে সুর একলা পথে হাটি শূন্য সমুদ্দুর। দূরের আকাশ নীলিমা তার সবুজ ঘাসের পরে মন খারাপের গল্প শুনি বৃষ্টি হলে তবে। কল্পনাতে ছন্দপতন গভীর রাতে পাহারাওয়ালার বাঁশি হঠাৎ করেই চমকে উঠি একলা চলার [ বিস্তারিত ]

একজন শহীদ বলছি

শিরিন হক ১ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ০১:৪১:০২পূর্বাহ্ন কবিতা ৩৩ মন্তব্য
একজন শহীদ বলছি আমি সেই শহীদদের একজন শহীদ। মুক্তি যুদ্ধের জন্য জীবন উৎসর্গ করেছিলাম। তোমাদের জন্য, একটি স্বাধীন দেশের জন্য আমার মায়ের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য আমি আমার জীবন উৎসর্গ করেছিলাম। রেখে গেছিলাম একটি লাল সবুজ পতাকা, একটি স্বাধীন দেশ।। আমার জীবনের মূল্যে। শুধু কী স্বাধীন দেশের স্বপ্ন বুনে হায়নার ঝাঁঝালো বুলেটের সম্মুখে বুক পেতে [ বিস্তারিত ]
দেখেছি সেই ছোটবেলা থেকেই প্রতিবেশী চাচি প্রতিদিন মার খেতেন, আমাদের বাসায় এসে কাঁদতেন তবুও মানিয়ে নিয়ে ছিলেন সেই জীবন। সদ্য বিবাহিত কিশোরীকে দেখেছি যৌতুকের শিকার হতে। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বাবা বাড়ি চলে আসতে। সবার অনুরোধে সেও মানিয়ে নিয়েছিল শশুরবাড়ি। মানিয়ে নেওয়ার জন্য আমার বান্ধবী কে দেখেছি মাতাল চরিত্রহীন স্বামীর সংসার করতে। বলেছিল দুটো [ বিস্তারিত ]

আগামী

শিরিন হক ২৭ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ০৯:৩০:৫৬পূর্বাহ্ন কবিতা ২০ মন্তব্য
খড় তাপদাহে জ্বলছি। জ্বলছি আজন্মকাল। তৃষিত হৃদয়ের আর্তনাদ কেউ শুনবে না জানি। বিধাতা বিমুখ করে আছে, মানবতা যেখানে আহত। জ্বলন্ত দাবানলে আজ গোটা পৃথিবী। একফোঁটা বৃষ্টি-কনা, একটা মানবিকতা স্বপ্ন  এনে দিতে পারে হাজার মনে। আগমনি ঘন্টা বাজিয়ে। আমি সেই দিনের প্রতিক্ষায়। আকাশের পানে চেয়ে রই আমি মানবতার প্রতিক্ষায় গোটা জাতির দিকে চেয়ে রই। আজন্মকাল জ্বলতে [ বিস্তারিত ]

তুই

শিরিন হক ২৫ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার, ১০:১২:০৮অপরাহ্ন কবিতা ২৩ মন্তব্য
সুধাময়ী হাসি, হাসিতে ভুবন হাসে মুহূর্তের পরে শোক ভুলে যাই দেখে। তোর পবিত্র হাসি, নিরখিতে ভালবাসি, এ হাসি অনন্ত সুখ জীবনে আমার চঞ্চল দৃষ্টি কি অপরূপ সৃষ্টি বিধাতার। বাক্যে বাহারি জাদুর ছোঁয়া অকপটে করে খেলা তোর ওষ্ঠে সারাক্ষণ চিত্ত নীরে প্রতিবিম্ব হয় তোর মায়াজাল। বুকের পাঁজরে রেখে তোরে চেপে এক সর্গীয় সুখ পাই এ জীবন [ বিস্তারিত ]

বিশ্বাস

শিরিন হক ২৩ জুন ২০১৯, রবিবার, ১১:৪৫:২৩অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৩ মন্তব্য
বিশ্বাস শব্দটা সম্পর্কের উপর ভিত্তি করেই গড়ে ওঠে। সৃষ্টি কর্তার কিছু নিদর্শন দেখে অদৃশ্য বিধাতার উপর বিশ্বাস এনে আরাধনা করে মানব জাতি মনেপ্রাণে। ভূমিষ্ঠ শিশুর হাত মায়ের হাতে রাখে ভাবে এই তার নিরাপদ হাত।তারপর থেকে বিপদ আপদে দৌড়ে গিয়ে মুখ লুকায় মায়ের বুকে তার বিশ্বাস বাবা মাই তাকে রক্ষা করবে। সত কষ্ট কে উপেক্ষা করে [ বিস্তারিত ]

হৃদয় গহীনে অনুভাব

শিরিন হক ২২ জুন ২০১৯, শনিবার, ১১:৪০:৪০অপরাহ্ন কবিতা ১৬ মন্তব্য
জীবন হত মরুভূমি সম, বৃথাই হত জন্ম। মনো মাঝে যদি না থাকিত ভালোবাসা। নানা ভঙ্গিতে, সঙ্গীতে, প্রকৃতির রূপে। নানা বর্নে, রঙে রয়েছে চিত্তে এর নেশা। নিশিত রাতের গভীর চিরে নতুন প্রভাত দেখা ক্লান্ত দুপুরে উদাস বাঁশরি আন মনে আকুল প্রাণে সুর শোনা। জোৎস্নালোকে হারাবার তরে, তরী বেয়ে দোল খাওয়া। নদীর কলতান, ভাটিয়ালি গান একলা আপন [ বিস্তারিত ]

শাড়ি

শিরিন হক ২১ জুন ২০১৯, শুক্রবার, ১১:৩১:৩২অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩২ মন্তব্য
মেয়ে হয়ে জন্ম শাড়ি পড়ব না তাই কী হয়। বোনের ওড়না পেচিয় সেই শাড়ি পড়া শুরু। ছোটবেলায় পুতুলের বিয়ে দিতে নিজেকে মা বাবানোর কত্ত শত শখ। শাড়ি পেচিয়ে হোচট খেতে খেতে শিখেছি শাড়ি পড়া। সবার কত্ত কথা কেউ বলে পাকনা বুড়ি কেউ বলে বউ, বাবা আমার বলতো শুধু মা। মায়ের জন্য যত কাপড় কিনে আনতো, [ বিস্তারিত ]

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য