মাহবুবুল আলম

মাহবুবুল আলমের জীবন সংক্ষিপ্ত বৃত্তান্ত

জন্ম ও বংশ: কবি-কথাসাহিত্যিক, কলামিস্ট ও শিক্ষাবিদ মাহবুবুল আলম, ১৯৫৯ খ্রীষ্টাব্দের ১ জানুয়ারী, কুমিল্লা জেলার তিতাস উপজেলাধীন হাইধন কান্দি গ্রামের সম্ভ্রান্ত মোল্লা পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। বাবা বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ও স্বনামধন্য শিক্ষক সাহেব আলী মাস্টার, মা বিদুষী গৃহিনী রাবেয়া খাতুনের নয় সন্তানের মধ্যে মাহবুবুল আলম তাঁদের ষষ্ঠ সন্তান।

শিক্ষা: স্থানীয় ইসলামাবাদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা, পাঁচ পুকুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এস.এস.সি, নিমসার জুনাব আলী কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে, তেজগাও কলেজ থেকে বি.এ ও এম.এ ডিগ্রী লাভ করেন।

লেখালেখি: সত্তর দশকের গোড়ার দিকে তিনি সিলেট সমাচার, যুগভেরী, বাংলার বার্তাসহ বিভিন্ন পত্রিকা সাময়িকীতে ছড়া, কবিতা গল্প ফিচার লিখে তার সাহিত্য প্রতিভার বিকাশ ঘটান। সাথে সাথে সাহিত্যাঙ্গণের সম্পাদক হিসাবে মৌলভীবাজারের সমসাময়িক সাহিত্যানুরাগীদের মুখপাত্র সাহিত্যের কাগজ ‘প্রসূন’ সম্পাদনা করেন। একজন শিক্ষাবিদ হিসাবে দেশের শিক্ষা বিস্তারেও তিনি নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন, সেই লক্ষ্যে তিনি প্রতিষ্ঠা করেছেন-সানমুন ক্যাডেট স্কুল এন্ড কলেজ, হলিল্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, মিশো মিউজিক কেয়ার প্রভৃতি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

প্রকাশিত গ্রন্থসংখ্যা: ৩৮। উপন্যাস-৮, কাব্যগ্রন্থ-৯, ছড়ার বই-৩, কলাম সমগ্র-৫, নাটক-৭, গবেষনা-২, শিশুতোষ-২, প্রবন্ধ-নিবন্ধ-২টা।

পুরষ্কার: সাহিত্যক্ষেত্রে অবদানের জন্য তিনি কবিতাঙ্গন এ্যাওয়ার্ড (২০০৭), ড.মমিনুল হক একাডেমি ইউ.কে এ্যাওয়ার্ড (২০০৮) সংশপ্তক বঙ্গবীর ওসমানী পদক, অলইন্ডিয়া চিলরেন্ড লিটারারী ফউন্ডেশন ‘উৎপল হোমরায়’ স্মৃতি পুরস্কার-২০১২ ও ভারতের পূর্ব মেদিনীপুরের কবি ও কবিতা পত্রিকা সন্মাননা-২০১২, দুইবাংলা কবিতা উৎসব সন্মাননা-২০১৩, সাপ্তাহিক কালপুরুষ পত্রিকা সন্মাননা-২০১৩সহ বিভিন্ন পদক ও সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন।

  • নিবন্ধন করেছেনঃ ৪ বছর ৯ মাস ১৯ দিন আগে
  • পোস্ট লিখেছেনঃ ৭৯টি
  • মন্তব্য করেছেনঃ ৬১৩টি
  • মন্তব্য পেয়েছেনঃ ৯৩৯টি
মাহবুবুল আলম ।। বাংলা বার মাসের মধ্যে পৌষ ও মাঘ মাস হলো আমাদের শীত ঋতু। শীতের সংস্কৃতি নিয়ে বিষদ লিখতে যাওয়ার আগে সবার আগে সংস্কৃতি শব্দটির ব্যাখ্যার দাবি রাখে। তাই সর্বাগ্রেই আমি এ শব্দটির ব্যাখ্যা দিতে চাই। সংস্কৃতি শব্দটির ব্যাখ্যা বা সংজ্ঞা নিয়ে পন্ডিতদের মধ্যে মতভেদ থাকলেও এর রক্ষনশীল ব্যাখ্যাটি এ রকম: একটি জাতির দীর্ঘদিনের [ বিস্তারিত ]
মাহবুবুল আলম /’/ প্রবাদ রয়েছে বাঙালির ১২মাসে ১৩ পার্বণ। পৌষ সংক্রান্তি বা মকর সংক্রান্তি বাঙালি সংস্কৃতিতে একটি বিশেষ উৎসবের দিন। পৌষ মাসের শেষের দিন এই উৎসব পালন করা হয়। এই দিন বাঙালিরা বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজন করে থাকে। তার মধ্যে পিঠা খাওয়া, ঘুড়ি উড়ানো অন্যতম। সন্ধ্যায় পটকা ফুটিয়ে ফানুস উড়িয়ে উৎসবের সমাপ্তি করে। পৌষ সংক্রান্তি [ বিস্তারিত ]
কিস্তিবন্দি এক. আখলিমা বেগম তার সংসার নামক ভাঙা নৌকার হাল কিছুতেই আর ধরে রাখতে পারছে না । তার সংসার নামের ভাঙা নৌকা যেন গভীর সমুদ্রে উথাল পাতাল ঢেউয়ের দোলায় দিশাহীন ঘুরছে। আখলিমার স্বামী মুনির মিয়াও নানা অসুখে বিসুখে কাবু। আয় রোজগারের অভাবে কখনো খেয়ে, কখনো না খেয়ে কাটে তাদের দিন। মুনির মিয়া তার ভাঙা শরীর [ বিস্তারিত ]

পলিথিন আবার ফিরে এসেছে

মাহবুবুল আলম ২৯ ডিসেম্বর ২০১৯, রবিবার, ১০:৪৯:০৩পূর্বাহ্ন সমসাময়িক ২৭ মন্তব্য
মাহবুবুল আলম পলিথিনে পলিথিনে আবার সয়লাব হয়ে গেছে আমাদের  হাট বাজার থেকে শুরু করে কাঁচা বাজার, পান চুনওয়ালা থেকে শুরু করে মাছ মাংস তরিতরকারী, বিপণী বিতান থেকে শুরু করে অভিজাত শপিংমল পর্যন্ত। সব ভোগ্যপণ্যের সাথেই এখন দোকানীরা পলিথিনে মালামাল গছিয়ে দিচ্ছে; আর আমরাও এ পলিথিনের কু-প্রভাবের কথা জেনেও তা গ্রহণ করতে কখনো অস্বীকার করছি না। [ বিস্তারিত ]

জন্মদাগ

মাহবুবুল আলম ২৮ ডিসেম্বর ২০১৯, শনিবার, ০১:২২:০৬অপরাহ্ন কবিতা ১৬ মন্তব্য
মাহবুবুল আলম যতবারই শরীরের জন্মদাগটি চোখে পড়ে ততবারই তোমার মুখটি চোখে ভেসে ওঠে আর কেমন এক গভীরতম বেদনায় ছেয়ে যায় হৃদয়ের অলিন্দ, এর নিগূঢ অন্তঃপুর চারিদিকে খুঁজে ফিরি কোথাও তুমি নেই। একটি ভ্রুণকে উদরে ধারণ করে, শরীরের রক্ত পানি করে, তিলে তিলে বড় করেছো আমারই নশ্বর শরীর, অার এ সুঠাম দেহে সগৌরবে একদিন নিবিড় যতনে [ বিস্তারিত ]

গুচ্ছ ছড়া

মাহবুবুল আলম ২৬ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১০:৪৩:৩৯পূর্বাহ্ন অন্যান্য ২০ মন্তব্য
১ || খাচ্ছে জাতি বাঁশ ।। শিক্ষামন্ত্রী মহাগুরু তার কথাই খাঁটি সৃজনশীলে কত ছাত্রের জীবন হলো মাটি।   তাও বেড়ছে জিপিএ-ফাইভ বাড়ছে এ-প্লাস পাঠদানে হয় হেলাফেলা হয় না কোথাও ক্লাস।   আজ জারি এক পরিপত্র কালকে ওটা বাদ নানান রকম নীতির ঠেলায় শিক্ষা যে বরবাদ।   এখন শুনি পিএসসি নাই দুহাজার  সাল থেকে শিক্ষামন্ত্রীর এই [ বিস্তারিত ]
সকাল সকাল ঘুম থেকে ওঠেই মৃদুলের ব্যাগ গুচগাছ করা দেখে বলতে গেলে বাড়ির সবাই এসে জড়ো হয়েছে বাংলোঘরে। ফরিদা ভানু বলছে- : বাবা মৃদুল আমার কাল্কার কথায় কি তুমি কষ্ঠ পাইছ। : না মামী কষ্ট পাব কেন । আর আপনি তো আমাকে কষ্ট পাওয়ার মতো কোনো কথা বলেননি। আমার একটা জরুরী কাজ পড়েছে। দশটার মধ্যেই [ বিস্তারিত ]
পিউ’র মনটা এ মুহুর্তে খুব খারাপ। বরের বাড়িতে নাসিমাকে নিয়ে বেশ কথাবার্তা হচ্ছে। মৃদুলের সাথে কথা শেষ করার পরই ঘটনাটা ঘটেছে। এ বাড়িতে আসার পর থেকেই নাসিমার মনটা বিষণ্নতায় কেমন ঢেকে আছে । কতক্ষণ পরপরই সে কাঁদছে। কেঁদে কেঁদে তার চোখ দুটি বেশ ফুলে ওঠেছে। এমন সুন্দরী বউ পেয়ে বর পক্ষের সবাই খুব খুশি। কিন্তু [ বিস্তারিত ]

বিরূপ বসন্ত (ধারাবাহিক উপন্যাস) পর্ব-১০

মাহবুবুল আলম ১৭ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১০:৩৬:৩০পূর্বাহ্ন উপন্যাস ১৯ মন্তব্য
মৃদুলের এখন একটা সিগারেট টানার খুব ইচ্ছা হচ্ছে। সুনসান বাড়ি। সবাই যার যার মতো ঘুমিয়ে গেছে। ঝিঁ ঝিঁ পোকা ডাকছে। গাছের তলায় কয়েল করে শুয়ে আছে টাইগার। মাঝে মাঝে কোনো কিছুর সামান্য আওয়াজ হলেই কান খাড়া করে তাকাচ্ছে। অন্ধকারে তার চোখের মনি ঝলঝল করে ওঠছে। এমন নিবিচ্ছিন্ন একাকীত্বে কি আর করা। সিগারেটেরও তেষ্টা পেয়েছে। সিগারেট [ বিস্তারিত ]
রাহুগ্রস্ত ঋতুর বিভীষিকাময় দুঃস্বপ্নের কথা মনে হলে বুক থেকে ঝরে পড়ে দীর্ঘনিঃশ্বাস, দুঃস্বপ্নের ঘোরে আৎকে ওঠি ঘুম ভেঙে, তখন বিভীষিকার ক্ষতচিহ্ন বুকের পাজরে, জখম পেশি, অস্তিমজ্জায় জেগে ওঠে সেই শব্দহীন বাকরুদ্ধতার দিনগুলো প্রজ্জোল দীপ্তিময় হয়ে ওঠে ডায়রীরর পাতায় পাতায়, শরীরের আঘাতে আঘাতে, ক্ষতচিহ্নে। সেদিন আমাদের নির্দোষ প্রাণের দাবীকে স্তব্দ করে দিতে হায়েনা শ্বাপদেরা জনপদের পথে [ বিস্তারিত ]

বিরূপ বসন্ত (ধারাবাহিক উপন্যাস) পর্ব-৯

মাহবুবুল আলম ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১০:২৬:১৪পূর্বাহ্ন উপন্যাস ২৩ মন্তব্য
পিউ মোটেই নাসিমার সাথে বরের বাড়ি যেতে রাজি হয়নি। সবার জোরাজুরি ও নাসিমার অনুরোধে তাকে শেষ পর্যন্ত যেতে হয়েছে। যাওয়ার আগে এক পলকের দেখায় পিউ মৃদুলকে বলেছে- মৃদুল ভাইয়া, আমি আপনাকে রেখে কিছুতেই যেতে চাইনি। সবাই মিলে আমাকে জোর করে পাঠালো। নেহায়েৎই আমি ইচ্ছার বিরুদ্ধে ওখানে যাচ্ছি। ভেবেছিলাম নাসিমা আপুর বিদায়ের পর আপনার সাথে আজ [ বিস্তারিত ]
  নাসিমাকে সন্ধ্যার আগে আগেই বিদায় করা হয়েছে। নদীর ঘাট পর্যন্ত তাকে এগিয়ে দিতে সবাই গেলেও যায়নি শুধু মৃদুল। একটা ভাঙ্গা হাটের নাইটগার্ড হয়ে সে যেন বসে আছে বৈঠক খানার রেলিং ঘেরা বারান্দায়। সন্ধ্যার পাতলা অন্ধকার ধীরে ধীরে গ্রাস করছে প্রকৃতি ও প্রতিবেশকে। বিদায়ের সময় নাসিমার বুক ফাটা আর্তনাদ, উচ্চস্বরের চিৎকার। তার কাছাকাছি  এসে মাটিতে [ বিস্তারিত ]

বিরূপ বসন্ত (ধারাবাহিক) পর্ব-৭

মাহবুবুল আলম ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ০৬:৩৯:০২অপরাহ্ন উপন্যাস ১৭ মন্তব্য
  গেটের কাছে গেট মানি নিয়ে বার্গেনিংটা এখন মৃদুলের কাছে অসহ্য ঠেকছে। গলা উচিয়ে পিউকে একবার ডাকতে চায় মৃদুল। কিন্তু কি যেন ভেবে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে। এ বাড়িতে অন্যান্য বিয়ের অনুষ্ঠানে দেখেছে গেট মানি নিয়ে ছেলেপেলেরা সমস্যা সৃষ্টি করলে বড় মামা এগিয়ে গিয়ে ধমক লাগিয়েছে। ছেলে ছোকরাদের হাত থেকে বরযাত্রীদের ছুটিয়ে এনে তোয়াজ করে বসিয়েছে। [ বিস্তারিত ]

গুচ্ছকবিতা

মাহবুবুল আলম ৫ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ০৫:৫৬:০৩অপরাহ্ন কবিতা ২৩ মন্তব্য
মা’কে নিয়ে পঙক্তিমালা || মা যে আমার হারিয়ে গেছে কবে এক এক করে বছর দশতো হবে সেই থেকেই মা’কে খুঁজি নীল আকাশের তারায় পাই না খুঁজে মা’কে আমার খোঁজবো যে আর কোথায়? তারপরেও মা’কে খুঁজি চাঁদে তাঁকে ছাড়া মন যে ভীষণ কাঁদে মা’কে নিয়ে বুকের ভেতর কত স্মৃতির পাহাড় কল্পলোকে সেই স্মৃতিরা ছড়ায় হাহাকার। চোখের [ বিস্তারিত ]
বরযাত্রী নদীঘাটে এসে পৌঁছার খবর এসেছে। এই অঞ্চলটির রাস্তাঘাট তেমন উন্নত নয়। নদীপথে চলাচলই স্বাচ্ছন্দ্য,তাই লঞ্চে করে বর যাত্রী এসেছে। নাসিমার বাবা কাদিম আলী মোল্লাসহ অন্যান্য মুরব্বিরা বরযাত্রীদের এগিয়ে আনতে লঞ্চঘাটে গেছে। বরযাত্রী এসে যাওয়ার খবরে ভিতর বাড়িতেও মাহিলাদের মধ্যে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। লঞ্চ ঘাট থেকে বরযাত্রীরা আসতে আসতে পনের মিনিটের মতো সময় লাগবে। সাজগোজ [ বিস্তারিত ]

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য