চীন কখনো কোন যুদ্ধে জড়াইনি

মুন ১৫ এপ্রিল ২০২০, বুধবার, ১০:৩৮:০৬পূর্বাহ্ন সমসাময়িক ১০ মন্তব্য

চীন কখনো কোন যুদ্ধে জড়াইনি দুই দুইটা বিশ্বযুদ্ধ হলো চীন একটাতেও জড়াইনি

  • কোন যুদ্ধে না জড়িয়ে বিশ্বকে তাদের সামরিক শক্তির ব্যবহার না দেখিয়েও চীন পরাশক্তি হয়েছিল

বিশেষ করে বাজার অর্থনীতিতে সে এতটাই বেগবান হয়ে যাচ্ছিলো যে অন্য সব দেশ তার পিছু পড়ে যাচ্ছিলো সবার নাগালের বাহিরে চলে যাচ্ছিলো

যাইহোক যা বলছিলাম চীন কখনো কোন যুদ্ধে জড়াইনি এবার বোধয় পরোক্ষ ভাবে জড়িয়েছে আর সে যুদ্ধ যেসে যুদ্ধ নয় সর্বপ্রথম জীবাণু অস্ত্রর প্রথম বিশ্বযুদ্ধ

সেই যুদ্ধ অনেকেই স্বল্প মেয়াদে করেছে সাদ্দাম হোসাইন ইরাক এ ১৯৮০ সালে দুজাইলে করেছিল যার জন্য তার ফাঁসি হয়েছে
বাসার আল আসাদ ২০১৫ সালে সিরিয়ায় করেছিল আন্তর্জাতিক চাপ আর সমালোচনায় তা বন্ধ করতে বাধ্য হয়

কিন্তু চীন এই জীবাণু যুদ্ধটা খুব সুচারু ভাবে করে যা বিশ্বযুদ্ধে রূপ নেয়

এই বিশযুদ্ধ এক নীরব বিশ্বযুদ্ধ ভয়াবহ বিশ্বযুদ্ধ
যে বিশ্বযুদ্ধ স্তব্ধ করেছে পৃথিবী আতংকিত করেছে মানুষ কে
যে যুদ্ধ বিলীন করে দিচ্ছে বহু জাতিসত্ত্বাকে

কথায় বলে যে বলে না সে বলেনা কিন্তু যখন মুখ খুলে মুখ দিয়ে অগ্নিঝরে

চীন যুদ্ধ করেনাতো করেনা কিন্তু এমন করাই করেছে সব যুদ্ধকে হার মানিয়েছে

কোন দেশের সেনাবাহিনীর মুখোমুখি তার হতে হয়নি বরং অন্য দেশের সেনাবাহিনী তার দেশের সাথে যুদ্ধ করার বদলে তার জনগণকে রক্ষার জন্য বেস্ত হয়ে গিয়েছে

আমি নিশ্চিত আগে যত মহামারী বা মড়ক এসেছে এর বেশির ভাগ ছিল শাসক গোষ্ঠী বা সাম্রাজ্যবাদীদের জীবাণু অস্ত্র

কলেরা গুটি বসন্ত এসব হয়তো ব্রিটিশরাজ তার রাজত্ব নির্বিঘ্ন করতে কলেরা গুটিবসন্ত ছড়িয়ে দিয়েছে জনগণের মাঝখানে হয়তো যেসব এলাকায় তাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন দানাবাদতে পারে সেসব এলাকায় ওখানকার বিপ্লবী বুদ্ধিজীবীরা ওসব নিয়ে বেস্ত থাকবে সরকারের বিরুদ্ধে কাজ নিয়ে বেস্ত থাকতে পারবেনা

পরিশেষে বলতে চাই করোনা ভাইরাস যদি চীনের জীবাণু অস্ত্র হয় তবে চীন এই অস্ত্র ক্ষেপনে ১০০ ভাগ সফল তার এ ভাইরাস এ ভুক্ত ভুগি মার্কিন নেতৃত্বাধীন সারা বিশ্ব সারা বিশ্বকে সে কুপোকাত করে ছেড়েছে এবং এখনো করছে ইউরোপ তার সব থেকে বেশি ভুক্তভোগী

চীন তার জীবাণু অস্ত্র প্রয়োগে সফল এর প্রতিক্রিয়ায় আমেরিকায়ও হয়তো একটা জীবাণু অস্ত্র ছাড়বে অন্য কোন রোগের নামে

প্রথম সেই অস্ত্রটা সন্দেহ দূর করার জন্য আমেরিকাই কিছু জনগণকে সংহার করবে পর কিছুদিন পর
চীনের মতো বাকিরা ঠিক হয়ে যাবে আর ভাইরাস বা রোগটা ছড়িয়ে পড়বে পৃথিবীর অন্নান্য প্রান্তে
দক্ষিণ আমেরিকা চীন রাশিয়া এসব অঞ্চলে

তীর থেকে ধনুক বের হতে হলে ধনুককে প্রথমে পিছে আসতে হয় এর পর ধনুক তীর থেকে ছুটে এবং লক্ষভেদ করে

চীন ঠিক তাই করেছিল নিজের বিশ্বাস যোগ্যতা বাড়াতে ধনুকের মতো পিছনে আসার মতো নিজেরা নিজেদের কিছু জনগণকে বলি দিয়ে দেখালো দেখো আমরাই আক্রান্ত

এর পরই সে মারলো মরণ বান যে বান এ ক্ষতবিক্ষত হলো ইউরোপ এশিয়া

আমেরিকাও এরকমই বান মারবে যেমন মেরেছিলো ২০০১ এ টুইন টাওয়ার ধ্বংসের পর নিজ শত্রুদের সার্চ ভাইরাস দিয়ে সংহার করে প্রথমে নিজের দেশ পরে অন্যদেশ

প্রশ্ন আসতে পারে আমিরিকা এই জীবাণু অস্ত্র ব্যবহার করে তার চিরশত্রু ইসলামী সন্ত্রাসীদের কেন নির্মূল করছেনা

জ্ঞানীদের জন্য জ্ঞানী অস্ত্র ব্যবহার করতে হয় মূর্খদের দমনের জন্য এসব দরকার হয়না এগুলো জ্ঞানীদের অস্ত্রর আচেই শেষ

যেমন এখন মোল্লাদের কথায় মোল্লা মুসুল্লিরা একসাথে জামাতে নামাজ পড়ছে চীন এদের জন্য জীবাণু ভাইরাস ছাড়েনি কিন্তু নিজেদের মুর্খামির কারণে সেই অস্ত্রর অস্ত্র আচেই তারা শেষ হয়ে যাবে

২৬৫জন ১৬৫জন
16 Shares

১০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ