অর্জন

নীরা সাদীয়া ২৩ মার্চ ২০২০, সোমবার, ০৭:২৫:২৭অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৯ মন্তব্য

গ্রামের বাড়ি থেকে খবর এলো চাচাতো বোনের বিয়ে। যেমন তেমন নয়, আপন চাচাতো বোন, তার বিয়ে। আমি বলে দিলাম, “যাবো নাহ্।” কেন যাবো না? কারণ আমার পরীক্ষা। কী পরীক্ষা? ৭ম শ্রেণির ১ম সাময়িক পরীক্ষা! এটাও কি এমন কোন পরীক্ষা যে একটা দিতে না পারলে জীবনে বড় কোন ক্ষতি হয়ে যাবে? আমার কাছে তাই…কারণ এটা দিতে না পারলে ক্লাসে প্রথম হতে পারব না। মনে পড়ে সেই যে শিশু শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছিলাম, এর পর থেকে জীবনের সকল হাসি আনন্দকে সীমাবদ্ধ করে ফেলেছিলাম ক্লাসে ১ম হবার মাঝেই! শিক্ষা জীবনের শেষ অব্দি (মাস্টার্স) এর থেকে বের হতে পারিনি। আমার কষ্ট মানে কারো থেকে ২/১ নাম্বার কম পাওয়া, আর সুখ মানে ক্লাসে ১ম হওয়া।

এই যে প্রতিযোগিতা, এটা আমাকে কি দিলো? হ্যাঁ দিয়েছে হয়ত এককালীন কিছুটা সুখ, একটু বাড়তি কেয়ার। মা, বাবা মুখভরে মানুষকে বলতে পারত “আমার মেয়ে ক্লাসে ১ম হয়েছে!” কিন্তু কেড়ে নিয়েছে বিশাল কিছু! আমি পুতুল খেলতে বসেও পড়ার চিন্তা করতাম। খেতে বসে তাড়াহুড়ো করতাম।বৌ ছি আর দড়িলাফ খেলে অবশ্য খুব আনন্দ পেতাম। এছাড়া আর কোন খেলা আমাকে তেমন টানেনি। লুকিয়ে ‘তিন গোয়েন্দা’ পড়লেও মাথায় থাকতো পরীক্ষার টেনশন। আমি কোনদিন কোন আত্মীয়ের বিয়েতে পুরোটা উপভোগ করতে পারিনি। অথচ বৌয়ের জন্য কেনাকাটা, শপিং, লাগেজ গোছানো হৈহৈ করা এসব আমাকে খুব টানে! মন চাইতো আগে থেকে গিয়ে কদিন ধরে আনন্দ উপভোগ করি। কিন্তু ঐ যে পরীক্ষা, ওটা আমাকে সব কিছু থেকে থামিয়ে রাখতো।

কিসের সাথে কি মেখে মুখ শাদা করা লাগে, কি দিয়ে কি সাজতে হয়, চুলে কত রকম স্টাইল করা যায়, কোনটাই আমি শিখিনি। আমি জানি কোন বই কোন পরীক্ষায় কাজে লাগে। কখন কেমন ব্যাগ কাঁধে ঝোলালে স্মার্ট লাগে, কিসের সাথে কি মিলিয়ে পরা লাগে এতসব ভাবতে গেলে আমার মাথা ভারী হয়ে আসে। মনে হয় এর থেকে কঠিন বোধহয় আর কিছু নেই। আমার ধারনা সবেতেই আমাকে বেমানান লাগবে। তবে আমি জানি কোন রচনায় কি কি পয়েন্ট দিলে মার্কস বেশি আসবে। ছোটবেলা থেকেই নোট করে পড়েছি।

জীবনের কত হাসি,আনন্দ, রং,রস,মিষ্টান্ন সবকিছু উপেক্ষা করে শুধু বৈ (বই) এর মাঝে মুখ গুঁজেছি। চাকরী পেতে হবে এমন মনোভাব তখন ছিলো না। তবে মনে হতো আমাকে একটা ভালো কিছু করতে হবে। বাবা মাকে ভালো রাখতে হবে। নিজের জীবনে যত রকম উপেক্ষা দু চোখে দেখেছি তা থেকে পরিত্রাণ পেতে হবে। সফল হতে হবে।

অথচ জীবন পানি করা এই সনদগুলো, যা অর্ধেক জীবন কয়লা করে অর্জন করলাম, তা আর কদিন পর অকেজো হয়ে পরবে। মুখ থুবড়ে পরবে আমার সারা জীবনের সঞ্চয়! বাকি জীবনটা এত এত এত বড় যে…

আবার যদি একটা সুযোগ পেতাম, ফিরে যেতে পারতাম বাল্যকালে, তাহলে কি করতাম? শুধু মাত্র পরীক্ষা পাশের জন্য যে ৩৩ পেতে হয়, ততটুকুই তুলতাম। আর বাকি দিনগুলো, দিনের বাকি সময়টুকু নিজের মনের ইচ্ছে মত খরচ করতাম। মন যেটাতে অগাধ সুখ পায়, কেবল তাই করতাম। হুম…

৬৫জন ৭জন
6 Shares

৯টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য