বিচিত্র মানুষ বিচিত্র পরিবার- ১

জিসান শা ইকরাম ৭ জানুয়ারী ২০১৬, বৃহস্পতিবার, ১২:১২:১৭পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৪২ মন্তব্য

হলের ৬ বছরের সময়কালে তাঁর সাথে কত যে স্মৃতি! প্রকৃত বন্ধু হওয়ার সুবাদে যা যা করা যায় সেসবের আর বিস্তারিততে গেলাম না। বন্ধুত্বের প্রকাশটা প্রায় সবারই এক, হৃদয়ে হৃদয়ে গিট্টু বাঁধার কাহিনীতে ভিন্নতা নেই।
মোটামুটি প্রতিষ্ঠিত এডভোকেট তিনি, প্র্যাকটিস করেন হাইকোর্টে। গলায় গলি হলে যা হয়,অনেক না না করেও ভূড়ি ভোজের আমন্ত্রন রক্ষা করতেই হলো।
বিশাল ড্রইং রুম,আলিশান সোফা,বসে হেলান দিয়ে থাকলেও বিশেষ এক ভাব জাগে মনে।ওয়াল সাইজ  শোকেস , ঝাড়বাতি, কিছু এন্টিক এর ডিসপ্লে, বাপ্রে! দোস্তের টাকা তো দেখি সব ড্রইং রুমে ঢালা হয়েছে। ড্রইং রুমে বসেই ডাইনিং টেবিল দেখা যায় হালকার উপ্রে ঝাপসার মত। ভাবির রুচি আছে মানতেই হবে। কিছুক্ষণের মধ্যেই ভাবি আসলেন পরিচিত হতে। ভাবিকে দেখেই আমি ভিমরিফাইড। দোস্তে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছেন তার বৌয়ের সাথে, কি বলছে আমার কানে কিছুই যাচ্ছে না, তাকিয়েই আছি ভাবির দিকে, ভাগ্যিস মশা ছিলনা বাসায়। কাহিনী হচ্ছে ভাবি সাজতে ভালোবাসেন। সারাক্ষণ এমন সেজে থাকেন যে মনে হবে কোনো পার্টিতে যাবেন।দোস্তের চোখের দিকে তাকালাম,এক্সরে চোখকে ফাঁকি দেয়ার কোন চেষ্টাই করলো না সে, কারন লাভ নেই তাতে।আমি যে ভিতর পর্যন্ত দেখতে পারি তা সে জানে। প্যাঁদানি খেয়ে আয়ের সব টাকাই যে ড্রইং রুম আর বৌয়ের সাজ সজ্জার পিছনে ব্যয় হয়, তা আর আমাকে বলতে হলো না।
##এত সুন্দর একটি পুতুলের মত তোর বৌ, খুবই ভাগ্যবান তুই দোস্ত।

যাই হোক খাবার পর্ব, টেবিলে একটা মাত্র প্লেট। দোস্তকে বললাম তুই আমার সাথে বসবিনা? না না আমরা পরে খাবো ভাইয়া, বললেন ভাবি। বাহ কত্ত টান আপনাদের, মুগ্ধ হইয়া গেলাম ভাবী। রান্না ভালোই, খেলামও ভালোই। খেয়ে ড্রইং রুমে এসে বসে ম্যাগজিন দেখছি। হঠাৎ খেয়াল হলো, আরে আমি যে প্লেটে খেয়েছি, সেই একই প্লেটে দোস্তে খাচ্ছে! নাহ ভুল হতে পারে আমার। দোস্তে খেয়ে উঠলে হালকা নজর রাখছি ডাইনিং টেবিলের দিকে। তাদের বড় ছেলে বসলো খেতে, ঐ একই প্লেট। এরপর ছোট ছেলে সবশেষে ভাবি। তিনি আবার চামচ দিয়ে খাচ্ছেন। আল্লারে এ আমি কোথায় আসলাম?একই প্লেটে প্লেট না ধুয়ে একের পর এক খেয়ে যাচ্ছে সবাই!
দোস্তে আসলো আমার কাছে, আমার কপাল কুঁচকানো সে চেনে।
** ”দোস্ত কাউরে বলিস না প্লিজ, বৌ এর কষ্ট হবে বেশি প্লেট ধুতে তাই এক প্লেটে সবাই খাই আমরা।এই একটি প্লেট ধোবে সে তাও হাতে গ্লোভস পরে।হাত নষ্ট হয়ে যেতে পারে।”
## তুই বৌরে এই অবস্থায় আনছো, প্রথম দিকে আহ্লাদ না দিয়ে এসব ঠিক করতে পারতি।
** চেষ্টা করেছিলাম দোস্ত
## তাহলে?
** তুই তো জানোস দোস্ত আমি প্যাঁদানি খুব এড়িয়ে চলি 🙁

৬১৯জন ৬১৯জন
0 Shares

৪২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ