গোপালগঞ্জের শেখ বংশ একসময় বিরাট সম্পদের মালিক ছিল। শেখদের নৌকার বহর ছিল। সেসব নৌকা মাল নিয়ে যেতো কলকাতা। তাদের ছিল বিরাট ব্যবসা। মোগল আমলের ছোট ছোট ইটের তৈরি চকমিলান দালানগুলো বাড়ির শ্রী বৃদ্ধি করে রাখত। বাড়ির চার ভিটায় চারটি দালান ও বাড়ির ভেতরে প্রবেশের জন্য একটি মাত্র দরজা। টুঙ্গিপাড়ার সেই শেখ পরিবারেই ১৯২০ সালের ১৭ই মার্চ জন্ম গ্রহণ করেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

শেখ লুৎফর রহমান ও শেখ সায়েবরা খাতুনের ঘরে জন্মগ্রহণ করেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। শেখ লুৎফর রহমান তাঁর বড় চাচা আব্দুল মজিদের ছোট মেয়ে সায়েবরা খাতুনকে বিয়ে করেছিলেন। শেখ মুজিবের দাদা ও নানার ঘর ছিল পাশাপাশি। শিশুকালে বাবার কাছেই তাঁর লেখাপড়ার হাতেখড়ি। বাবার কাছেই ঘুমাতেন। তাঁর গলা ধরে না ঘুমালে ঘুম আসত না। শেখ মুজিব ছিলেন বংশের বড় এবং প্রথম সন্তান তাই তিনিই সমস্ত আদর পেতেন। তাঁর ‘শেখ মুজিবুর রহমান’ নামটি নানা শেখ আবদুল মজিদই রাখেন।

শেখ মুজিবুর রহমান তখন সপ্তম শ্রেণীর ছাত্র।

তিনি খেলাধুলা করতেন, গান গাইতেন এবং ভালো ব্রতচারী করতেন। হঠাৎ (১৯৩৪ সালে) বেরিবেরি রোগে আক্রান্ত হয়ে তাঁর হার্ট দূর্বল হয়ে পড়ে। বাবা শেখ লুৎফর রহমানের সাথে কলকাতায় যান চিকিৎসা করাতে। কলকাতায় বড় বড় ডাক্তার শিবপদ ভট্টাচার্য, এ কে রায় চৌধুরীসহ আরও অনেককেই দেখান এবং চিকিৎসা চলতে থাকে। এভাবে প্রায় দুই বছর চলতে থাকে।

২৫৭জন ১৮২জন
0 Shares

৫টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য