অবহেলিত বর্তমান

রাফি আরাফাত ২৩ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ০৪:০৯:০৫পূর্বাহ্ন গল্প ১৬ মন্তব্য

নিস্তব্ধতা কখন কাউকে গ্রাস করে জানেন?যখন কেউ নিস্তব্ধ থাকতে চায় না,কিন্তু তার পাশের মানুষ গুলো তাকে নিস্তব্ধ থাকতে বাদ্ধ করে।।ভালবাসায় অতীত নিয়ে ভাবলে ভালবাসা তার শ্রী হারায়।।কিন্তু কোন কোন সময় এর ঠিক উল্টো টাও হতে পারে।।আমরা আমাদের ভালবাসার মানুষটাকে যতটা না বুজার চেষ্টা করি, তার থেকে বেশি বুজাতে চেষ্টা করি।।আমাদের ভালোবাসা গুলো আজ ভালবাসি বললেও, ভাল রাখবো বলে না।।অতীতের জন্য বর্তমান কষ্ট পাচ্ছে আর ভবিষ্যত,সেটাও অতীতকে ঘিরেই নকশাকৃত।।জানেন,আজ অনেক বলার ইচ্ছে হচ্ছে, আমিও তো পারতাম চলে যেতে।।কিন্তু তুমি তো একদিন বলছিলা যে,অতীত যেন আমার বর্তমানে পা না দেয়!!

..
আমার আর সাবিহার ব্রেক আপের প্রায় ১ বছর হয়ে গেছে।।সম্পর্কটা শুরু হয়েছিল অদ্ভুত ভাবে।।কেন বললাম জানেন??কারন সাবিহাকে আমার বন্ধু কথা বলে পটায়,কিন্তু দেখা করতাম আমি।।কথা বলতে অপারদর্শিতার কারনে এমন হইতো।।কিন্তু আমি ছিলাম অনেক সত্যবাদি।।তাই সেটাও একদিন সাবিহাকে বলে দিছিলাম।।সত্য বলার জন্য সাবিহা আমাকে কিছুই বলেনি।।এরপর সব ভালোই চলছিলো।।ও হা,সাবিহার আগে একটা রিলেশন ছিলো।।সেটার ব্রেক আপ হয় ছেলে নাকি অনেক বেশি কেয়ারলেস ছিলো।।যাই হোক অতীত নিয়ে কথা বলে লাভ নাই।।আমার আর সাবিহার রিলেশনের প্রায় ৬ মাস হয়ে গেছে এতদিনে।।সেদিন রাত ১২ঃ০০ টায় সাবিহার কল আসে।।সচারাচর এতো রাতে সাবিহা বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া কল দেয় না।।
..
তারপর দিন দেখা করার জন্য সেদিন সাবিহা রাতে আমাকে কল দেয়।।তার কথা মতো সেদিন আমি গিয়েছিলাম।।প্রথমে সাবিহা বলছিলো,কেমন আছো?আমি বললাম ভালো, তুমি?সাবিহা কিছু না বলেই বললো,কিছু কথা আছে।।আমি বললাম হুম বলো।।সাবিহা বললো, কাল রোহানের সাথে আমার কথা হয়েছে।।ও হা,আপনাদের তো বলাই হয়নি রোহান সাবিহার সেই কেয়ারলেস বয়ফ্রেন্ড।।আমি বললাম হুম তো কি হয়েছে।।সাবিহা আবার বললো,রোহান ফিরে আসতে চায় আমার কাছে।।আমি বললাম, ও।।তো তুমি কি বললা রোহানকে??সাবিহা বললো আমি কিছু বলিনি।।আচ্ছা এই নিরবতা কি সম্মতি দাওয়া বুঝায়??আমি বুজলাম না তখন!!
..
সাবিহা আবার বললো,রোহান আমার জন্য নিজেকে পরিবর্তন করেছে।।ও ওর সব ভুল শুধরাই নিয়েছে।।আমি কি করবো এখন??আমি বললাম,ওর কাছে তুমি ভালো থাকবা??সাবিহা বললো,জানিনা আমি।।আমি বললাম, সাবিহা শুনো,ভালবাসায় অতীত নিয়ে কেউ কখনো ভাবে না।।আর কখন ভাবে জানো??যখন অতীতের মায়ায় সে আবদ্ধ থাকে।।আমি বলছিনা তুমি আমাকে ভালবাসো না।।আমি জানি তুমি আমাকে ভালবাসো।।কিন্তু আমি এটাও জানি তুমি আমার থেকে বেশি রোহানকে ভালবাসো।।সমস্যা নাই,চলে যাও।।আমি চালিয়ে নিবো।।আরে ব্যাপার না।।এখন কত এমন হচ্ছে।।আর আমি তো তোমাকে নিজেই ভালবাসি বলিনি।।সেটাও আমার বন্ধুকে দিয়ে বলাইছি।।ব্যাপার।।ফেলে দাও।।সাবিহা কিছু বললো না।।শুধু বললো, ভালো থেকো।।
..
চলে যাচ্ছিলো সাবিহা।।আমি অন্য দিকে তাকায় ছিলাম।।আমার চোখে পানি ছিলো।।হঠাৎ সাবিহা আমাকে এসে জোড়ায় ধরে কান্না করে।।আমি বললাম,মায়া বারায় লাভ কি??সাবিহা বললো, তোমার চোখে পানি কেন??আমি বললাম কই নাতো,পোকা পরছে হয়তো।।সাবিহা কিছু না বলেই চলে গেলো।।আমার সেদিন ভিশন কষ্ট হচ্ছিলো।।আচ্ছা আমার কি দোষ ছিলো।। আমি তো ওকে অনেক ভালবাসতাম।।অতীত আর সপ্ন একই জিনিস।।দুই জায়গায় নিজের কাছের মানুষরা অপরাধ করলেও বাধা দাওয়া যায় না।।শুধু দেখে থাকতে হয়।।
..
ভালবাসা নিয়ে তখন থেকে আর ভাবা হয়না৷।কিন্তু কে জানতো আবার কেউ আমার জীবনে আসবে।।আবার কেউ আমার জীবনে আশার আলো জালাবে।।আদ্রিতার সাথে আমার প্রথম দেখা হয় ইউনিভার্সিটিতে।।ওখানেই ওর সাথে আমার কথা ও বন্ধুত্ব।।কিন্তু কখন যে দুইজন, দুইজনকে ভালবেসে ফেলি কেউ বুজতে পারিনি।।অবশেষে সম্পর্কটা ধীরে ধীরে ভালবাসায় পরিনত হলো।।আমাদের ভালোবাসার একমাত্র শর্ত ছিলো,অতীতকে কখনো প্রশ্রয় দাওয়া যাবে না।।ও হা,আদ্রিতারও বয়ফ্রেন্ড ছিলো।।কিন্তু শুনছি ছেলের নাকি বিয়ে হয়ে গেছে।।এ বিষয়ে আমি আর কোনদিন তাকে কিছু জিজ্ঞেস করিনি৷।
..
আজ সহ আমাদের রিলেশনের প্রায় ২ মাস হয়ে গেছে।।আদ্রিতা আর আমি একটা ফাকা জায়গায় বসে ছিলাম।।আমার কোলে আদ্রিতা মাথা দিয়ে ছিলো।।আদ্রিতা বললো,আচ্ছা তুমি আমাকে কোনদিন ছেড়ে যাবা নাতো!!আমি বললাম,কখনোই না।।আদ্রিতা বললো, জানো আমার না খুব করে।।আমি সত্যি তোমাকে অনেক বেশি ভালবাসি।।আমি কিছু বললাম না।।চুপ করে থাকলাম।।আদ্রিতা সেদিন বার বার করে একটা কথাই বলতেছিলো, তুমি তোমার অতীতকে কখনোই আমার থেকে বেশি গুরুত্ব দিবে না।।আমি সেদিন ওকে কথা দিছিলাম,বর্তমানকে আকড়ে ধরে মরতে রাজি আছি আমি কিন্তু অতীতকে প্রশ্রয় দিয়ে বাঁচতে চাই না আমি।।
..
এভাবে প্রায় ৩ মাস পর আদ্রিতা একদিন আমাকে কল করে বলে,জুনায়েদ কল দিছিলো।।জুনায়েদ ছিলো,আদ্রিতার অতীত।।আমি বললাম, কি বাচ্চা হয়েছে তার আকিকার দাওয়াত দিছে নাকি।।আদ্রিতা বললো, জুনায়েদ আমার কাছে চলে এসেছে।।ও ওর বউকে তালাক দিয়ে আমার কাছে চলে এসেছে।।আদ্রিতা বললো, কাল এসো,কথা আছে।।আমার কেমন লাগছিলো সেটা বুজতে পারিনি।।শুধু ভাবতেছিলাম, আমার সাথেই কেন এমন হয় সবসময়।।আসলে আজ খুব বলার ইচ্ছে করছে,
*অতীত তুমি ছলনাময়ী,শক্তিশালী,স্মরণীয়,

বর্তমান তুমি আবেগী,সিদ্ধান্তহীন,বেহায়া,

ভবিষ্যত!!আমাকে অতীতের ফল ভোগ করতে হবে।।
..
বিকেল বেলা গেলাম আদ্রিতার সাথে দেখা করতে।।আদ্রিতা বলা শুরু করলো।।বললো, তার জন্য জুনায়েদ তার স্ত্রীকে তালাক দিয়ে চলে এসেছে।।পরিবার জোর করে তাকে বিয়ে দিয়ে দেয়৷।তাই সে কিছু বলতে পারেনি৷।কিন্তু এখন সে আমাকে বিয়ে করতে চায়৷।আমি কি করবো বলো।।আমি বললাম,যদি তুমি বলতা আমি ওকে বলছি আমি এখন পারবো না।।তাহলে আমি তোমাকে কিছু বলতে পারতাম।।কিন্তু তুমি আমাকে এসে বললা আমি কি করবো বলো।।যাই হোক,শুনো ভালো থাকবা আর সবসময় হাসি খুশি থাকবা।।আমার কথা ভাববা না।।আজ থেকে আমিও তোমার অতীত।।আদ্রিতা বললো,আমি গেলে তুমি কি করবা??আমি বললাম তোমাকে দাওয়া কথা রাখবো।।আদ্রিতা বুজছে কিনা আমি জানিনা।।সেদিন যাওয়ার আগে আদ্রিতাকে খুব বলতে ইচ্ছে করছিলো,আমিও তোমার মতো করে বাঁচতে চাই।।
..
কাল আদ্রিতার বিয়ে হয়ে গেছে।।হঠাৎ এক অপরিচিত নাম্বার থেকে কল আসলো।।কল ধরে বললো, আমি আদ্রিতা।।আমি বললাম ওহ কেমন আছো।।আদ্রিতা কিছু না বলেই আমাকে বললো,সাবিহা তোমার কাছে ফিরে আসতে চেয়েছিলো??আমি বললাম হুম।।আদ্রিতা বললো,সেটা আমাকে বলো নি কেন?আর তুমি সাবিহাকে না করে দিছো কেন?আমি বললাম,যে অতীত আমাকে কষ্ট দিয়েছে তার কাছে যেতে চাইনি আমি আবার।।আর তোমাকে কথা দিছিলাম।।আদ্রিতা বললো,ভালো কে বেশি বাসতো,তুমি নাকি, জুনায়েদ আমাকে??আমি বললাম, জুনায়েদ।।আদ্রিতা বললো কেন??আমি বললাম,সাবিহা আমার অতীত।। আমি আমার অতীতকে না করে তোমার কাছে এসেছি।।আর জুনায়েদ তার স্ত্রীকে না করে তোমার কাছে এসেছে।।আদ্রিতা কিছু বললো না।।
..
কলটা কেটে দিয়ে খুব কাদতে ইচ্ছে করছিলো।। আচ্ছা আমি কি আদ্রিতাকে কম ভালবাসতাম।। আদ্রিতা কি এখনও আমাকে মিস করে।।
..
[তুমি ভালো থাকলে আমি ভালো থাকবো,কথাটা আমাদের বলতে ভুল হয়।।আমাদের বলা উচিৎ,তুমি আমার কাছে ভালো থাকলেই আমি ভালো থাকবো]

৮০২জন ৬৫৮জন
35 Shares

১৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ