লিখাটা অনেক আগেও আমি আমার ফেসবুকে দিয়েছিলাম, এবার এখানে দিলাম।

যারা চলচিত্রে ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করবেন বা চিত্রধারণ বা নির্দেশনা করবেন তাদের জানা খুব জরুরী।

আমার প্রায় মুভি গুলো যৌনতা কেন্দ্রিক পরক্রিয়া বা যৌনতা নির্ভর। মানে যেটাকে বলে বোল্ড মুভি এরিটিকে মুভি ওই টাইপের হয়।

কারণ এসব মুভি করতে আমি সাচ্ছন্দ্য বোধ করি। সমাজের ভিতরে নানা রূপ থাকে যৌনতা, আর অন্যতম একটা রূপ আমি এডাল্টস তুলে ধরি।

রোমান্টিক দৃশ্যে অভিনয় এর সময় নায়ক এর সাথে অনেক ঘনিষ্ঠ হতে হয় চরিত্রে ঢুকার জন্য। মানুষিক ভাবে তার সাথে ঘনিষ্ঠ হতে হয়।

ব্যক্তিগত প্রেম আবেগ যদি নাও থাকে, চিত্রায়ন এর আগেও কিছু দিন তাকে স্বামী বা প্রেমিক হিসেবে কল্পনা করতে হয় এবং সেই কল্পনা টা অনেকটা বাস্তবসম্মতভাবেই করতে হয়। রোমান্টিক দৃশ্য নিয়ে কখনো কোনো নায়িকা খোলা মেলা কিছু বলেন না, এটা অনেক টা স্বামী স্ত্রীর রাত এর সঙ্গম এর মতোই গোপনীয়।

রোমান্টিক দৃশ্যের জন্য নায়ক নায়িকার সম্পর্কের রসায়ন টাও ভালো হতে হয়। অর্থাৎ বাস্তব জীবন এ তার সাথে সম্পর্ক টা অবশ্যই মানুষিক সম্পর্ক অবাধ থাকতে হয়। যেমন আমরা বন্ধু বা কাজিন দের মধ্যে কারো কারো সাথে খুব ঘনিষ্ঠ হয়। যেমন গল্প করার সময় ইয়ার্কি ফাজলামো করে আমরা বলি, এই আমি তোর বৌ হবো তোর বাচ্ছা আমার পেটে নেবো বা বলি যা তোকে কবুল করে নিলাম তুই আজ থেকে আমার স্বামী। যাদের সাথে আমরা মানুষিক ভাবে ঘনিষ্ঠ তারা কেও আমার প্রেমিক বা স্বামী নয় অদূর ভবিষ্যত এ হবার সম্ভবনাও নেই। কিন্তু তাদের সাথে আমরা মানুষিকভাবে সব থেকে বেশি ঘনিষ্ঠ। তাদের সাথে আমাদের সম্পর্কের রসায়ন টা সব থেকে ভালো।

ঠিক অভিনয় এর ক্ষেত্রেও তেমনি নায়ক নায়িকার সম্পর্কের রসায়ন তা সুনিদিষ্ট থাকতে হবে। নায়ক হয়তো আমার থেকে বয়সে অনেক বড়। বাস্তব জীবন এ আমি তাকে ভাইয়া বলি মানিও, কিন্তু বাস্তব জীবন এ তার সাথে মানুসিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে ঘনিষ্ঠ থাকতে হবে। তার সাথে স্বাভাবিক ভদ্রতা মূলক কথার সাথে সাথে যৌনতা বিষয়ক ঠাট্টা মস্করা করা যেতে পারে বা এরকম বিষয় নিয়ে খোলা মন এ আলাপ করা যেতে পারে।

যেমন দুলা ভাই কে তো সবাই আমরা ভাই জানি। কিন্তু তার সাথে ঠাট্টা মস্করায় আমরা কঠিন রোমান্টিক অনেক কথা বলে ফেলি, যৌন মস্করা করি। কিন্তু সেতো আমার বড় ভাইয়ার মতো তবুও আমরা তার সাথে এমন করি কারণ তার সাথে আমার সম্পর্কের রসায়নটা এরকম রসালো। সেজন্যই আমরা তার সাথে অবাধে প্রাপ্তবয়স্ক ঠাট্টা মস্করা নির্বিঘ্নে করি।
আবার ডাক্তার অপরিচিত একজন লোক তার সাথে আমাদের ভদ্রতার সম্পর্ক। ভাবগাম্ভীর্যের সম্পর্ক। কিন্তু তার সাথে আমরা আমাদের গোপনীয় অনেক কথা বিনা দ্বিধায় বলি। নিজের যৌনতা বিষয়ক অনেক কথা তার কাছে বলি প্রসঙ্গক্রমে, কিন্তু সে তো অপরিচিত কিন্তু তার সাথে আমার সম্পর্কের রসায়ন টাই ওরকম।

ঠিক আমার নায়ক এর সাথে আমার সম্পর্কের রসায়ন টা দুলা ভাই এবং ডাক্তার এর যুগল বন্ধি হতে হবে, ভাব গাম্ভীর্য ভদ্রতা সন্মান যেমন রাখতে হবে তেমনি আবার হালকা মানুষিকতার ঠাট্টা মস্করা মূলক মানুষিকতাও রাখতে হবে। তবেই নায়ক এর সাথে একটা রসালো রোমান্টিক রাসায়নিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত হবে।

এরকম রসালো রাসায়নিক সম্পর্কের কারণেই নায়ক নায়িকারা এক ঘর ভর্তি লোকের সামনে ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করে। আমার হিরোর সাথে এরকম সম্পর্কের রসায়ন এর কারণেই আমি তার সাথে একই বিছানায় শুই, একই চাদর এর তোলায় দুইজন শুই। অনেক সময় আমার শরীর এ হাতাকাটা শর্ট মেক্সসি থাকে তার শরীর পুরা উদোম থাকে এক ঘর লোকের সামনে ডিরেক্টর, ক্যামেরা ম্যান, স্পট বয় যাদের সামনে আমরা একে অপরকে জড়িয়ে ধরি। স্বামী স্ত্রীর মতো সংগম ভোগ এর অভিনয় করি সেটা একসময় সারাদেশ পাবলিকও দেখে, কিন্তু আমার স্বামীর সাথে আমি এই রকম যৌনসঙ্গম ডিরেক্টর ক্যামেরা ম্যান এর সামনে করতে পারবো না, লজ্জা করবে এটাই হচ্ছে সম্পর্কের রসায়ন। এই রসালো রাসায়নিক সম্পর্কের উপর ভিত্তি করেই আমরা রোমান্টিক দৃশ্যে অভিনয় করি।
ঠিক যেমন একজন ভাবগর্বীর্য সম্পর্কের ডাক্তার এর সাথে আমি আমার গোপন বিষয় নিয়ে কথা বলি। যৌনতার বিষয় নিয়ে আলাপ করি, কিন্তু তার সাথে আমি যৌনতা করি না। বা আমার দুলাভাই এর সাথে যৌনতাউত্তেজক অনেক ঠাট্টা মস্করা করি, কিন্তু তার সাথেও আমরা যৌনতায় লিপ্ত হইনা। নিজেদের স্বয়ংক্রিয় ভাবে নিয়ন্ত্রণ করি বা কোনো আড্ডাস্থল এ বন্ধু বা কাজিন দের সাথে আড্ডার সময় অনেক যৌনতাপ্রবণ কথা হয় ঠাট্টা মস্করা হয়, কিন্তু তাদের সাথেও আমরা কখনো যৌনতায় লিপ্ত হই না। ঠিক তেমনি আমার নায়ক এর সাথে যখন আমি বিছানায় শুই তার গায়ের গন্ধ বগল এর গন্ধ বুকের পশম এর উত্তপ্ত ছুঁয়া হাতের তালুর গরম ভ্যাপ সবই অনুভব করি উপভোগ করি তার বৌ এর মতোই তার প্রতি বিলীন হয়ে যাই সেও স্বামীর মতোই। আমার সাথে আমার গায়ে উঠে যৌনসংগম এর অভিনয় করে, কিন্তু বাস্তবে সেখানে কোন যৌনতা হয় না। কিছুই হয়না রোমান্টিক দৃশ্যের এই রসালো রাসায়নিক সম্পর্কটাই হচ্ছে এরকম “সবই আছে আবার কিছুই নেই, কিছুই নেই কিন্তু সবই আছে”।

যে সব অভিনেতা অভিনেত্রীরা এই রসালো রাসায়নিক সম্পর্কের শিল্প কে রপ্ত করতে পেরেছেন তারাই নির্বিঘ্নে রোমান্টিক ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করতে পেরেছেন। চরিত্রায়ন এবং চিত্রায়ন সুনিস্দিষ্টভাবে যারা করতে পেরেছেন, তারাই হচ্ছে প্রকৃত শিল্পী। যারাই রোমান্টিক ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করবেন তারা রসালো রোমান্টিক সম্পর্কের শিল্প কে রপ্ত করবেন। অভিনয় চরিত্রায়ন শিল্পায়ন হবে নির্বিঘ্ন।

৫০০জন ২৮৮জন
38 Shares

১৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ