দ্যা ওয়াকিং ডেড

অভি ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৬, সোমবার, ০৫:২৮:২০পূর্বাহ্ন টিভি নাটক/সিরিয়াল, মুভি রিভিউ ২২ মন্তব্য
walker02
(আগে কখনো রিভিউ লিখি নাই। সাহস করে লিখে ফেললাম আমার প্রথম রিভিউ অসম্ভব প্রিয় “ওয়াকিং ডেড” কে নিয়ে।)
সিজন ৬ এপিসোড ৯ দেখবার পর, আমি সাথে সাথেই আবার এপিসোডের প্রথম থেকে শুরু করি দেখা। মন্ত্রমুগ্ধের মত দেখতে থাকি গ্রেগ নিকটিরোর কাজ! IMDB রেটিং পেয়েছে ৯.৯, এর আগে একমাত্র ব্রেকিং ব্যাড “Ozymandias” এপিসোড এর জন্য পারফেক্ট ১০ পেয়েছিল! IMDB এর রেটিং এর একটা মহাত্ব আছে। যেকেউ লগইন করে রেটিং দিতে পারে। ৯.৯ পেতে প্রায় সবারই স্কোর ছিল ১০/১০, আমারও! ব্রেকিং ব্যাড এর “Face Off” এপিসোডটা ৯.৯ রেটিং পায় এর আগে! ৯ এর উপরের লিস্টে গেইম অফ থ্রনস এরও বেশ কিছু এপিসোড আছে!
ওয়াকিং ডেড ফ্যান্টাসি হরর জেনেরির মধ্যে পরবে। দুনিয়াটা আমাদেরই দুনিয়া, কিন্তু এক অদ্ভুত ভাইরাসের কারণে সব মৃত মানুষ জেগে উঠেছে। তারা ক্ষুধার্ত, জীবিত প্রাণীর মাংস খাবার জন্য ঘুরে বেড়াচ্ছে রাস্তায়। তাদের কামড়, আচরে খুব দ্রুত জীবিত মানুষটা আর একটা জীবন্ত মৃত মানুষ হয়ে যায়! এই অদ্ভুত মানুষদের হরর জেনেরিতে জম্বি বলে। আমাদের এই টিভি শোতে অবস্য এদের বলা হয় ওয়াকার! ভাইরাসের আক্রমনটা হয় মৃত মানুষের ঘিলুতে। ভাইরাসের বেচে থাকবার জন্য একটা আশ্রয় দরকার, মৃত মানুষের দেহটা আসলে সেটাই। মৃত মানুষকে চলে ফেরে বেড়াতে লাগবে শক্তি, তাই তাকে খেতে হয়। আমাদের পরিচিত পৃথিবীটা চলে গেছে মৃত মানুষের দখলে। আর্মি, পুলিশসহ সব ল এনফোর্সমেন্ট এজেন্সিগুলো আস্তে আস্তে অকেজো হয়ে গেল, সরকার পতন ঘটল, ধীরে ধীরে বিদ্যুত, পানি, গ্যাস সহ সব সাপ্লাই বন্ধ হয়ে গেল! এরকম বেড়াছেড়া পরিস্থিতিতে যেটা হয় মানুষ পাগলের মত রাস্তাঘাটে লুটতরাজ শুরু করে, এপিডেমিক শুরু হবার পর কেউ ঠিকভাবে জানবার আগেই বেশিরভাগ মানুষ আসলে আক্রান্ত হয়ে যায় ভাইরাসে। রাস্তাঘটে ভাঙ্গা চূড়া জ্বালা পোড়া গাড়ি লুটতরাজের ফল। যত মানুষ মারা যাচ্ছে তত জম্বির সংখ্যা বেড়েই চলছে। বেচে থাকা মানুষের সংখ্যা কমেই চলছে।
মূল চরিত্র রিক গ্রিম পুলিশ অফিসার, প্রথম এপিসোডে গুলি খেয়ে হাসপাতালে জ্ঞান হারানো অবস্থায় ভর্তি করানো হয়। পুরো এপিডেমিকের শুরুর পাগলা সময়টা আসলে ঘুমিয়েই কাটিয়ে দেয় রিক। ঘুম ভেঙ্গে হাসপাতালের বন্ধ দরজা খুলে দেখে যেন এক যুদ্ধক্ষেত্র। অন্ধকার হাসপাতাল করিডোরের ২-১ টা বাতি প্রানপন চেষ্টা করে যাচ্ছে জেনারেটরের ক্ষীন শক্তিতে জ্বলে উঠতে, আধখাওয়া মানুষের দেহ, দেয়ালে গুলির দাগ। রিক কিছু বুঝে উঠতে পারছে না, কি হয়েছে। তার মনে পড়ল তার সুন্দরী বউ আর ফুটফুটে ছেলের কথা। দুর্বল দেহটা কোনমতে টেনেটেনে হাসপাতালের বাইরে এলো! হাসপাতালের বাইরে সেনাবাহিনীর বিদ্ধস্ত হেলিকপ্টার, ট্যাংক, মৃত মানুষের দেহাবশেষ, সে এক বিভিষিকা! রিক বের হয়ে পরলো তার পরিবারের খোঁজে! অদ্ভুত এক গল্প, না দেখলেই নয়।
জম্বি সম্পর্কিত যেকোন কিছুতে আমার আগ্রহ খুবই কম! কারন সত্যিকার অর্থে ব্যাপারটা অসম্ভব। একই ভাবে গেইম অফ থ্রোন্সের ড্রাগন বা আউলা আগুন (ওয়াইল্ড ফায়ার)। কিন্তু এগুলো আসলে মেটাফোর! জম্বি একটা বিরাট সমস্যা, কিন্তু সভ্যতা যখন শেষ হয়ে যায় মানুষগুলো পশু হয়ে যায়। বেঁচে থাকবার জন্য সার্ভাইভারদের বড় সমস্যা আসলে জম্বি না, সেটা মানুষই! সিমিত খাবার, কাপড়, ঔষধ ইত্যাদি নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস নিয়ে বেঁচে থাকা মানুষরাই যুদ্ধ শুরু করে, সাথে জম্বি শুধুই একটা বাড়তি সমস্যা। তাই ওয়াকিং ডেড জম্বি শো হলেও, এটার বিষয়বস্তু কিন্তু জম্বি না! মানুষ হঠাৎ করে সভ্যতা শেষ হয়ে গেলে কিভাবে বেঁচে থাকবে, কতটুকু মানুষ হিসাবে বেঁচে থাকবে সেটাই মুল বিষয়!
বেশি বলতে গেলে উল্লেখযোগ্য ঘটনা বলে ফেলবো, সারপ্রাইজের মজাটা নষ্ট হয়ে যাবে। সিজন ৬ এখন চলতেছে, তার মানে গত ৬ বছর ধরে এটা আমি দেখছি! প্রতি সিজন শেষে ভাবি এইটাই সেরা, পরের বছর আমার ভুল ভেঁঙ্গে আরো ভাল কিছু করে ফেলে! প্রচন্ড সৃষ্টিশীল রবার্ট কির্কমানের লেখা, আর বেশ কিছু অত্যন্ত প্রতিভাবান ডিরেক্টরের দ্বারা তৈরি। পিছনে আছে AMC এর মত ধনী চ্যানেল! যারা ব্রেকিং ব্যাড দিয়ে দুনিয়া ব্রেক করে ফেলছিল! মোবাইলফোনটা দুরে রেখে সিজন ১ এপিসোড ১ টা দেখলেই হবে, ৪ সপ্তাহ পর আমরা একসাথে সিজন ৬ দেখব আমি মোটামুটি নিশ্চিত! এক কথায় অসাধারন!
AMC’s
THE WALKING DEAD
walker01
২১৮জন ২১৮জন
0 Shares

২২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য