পাঠ প্রতিক্রিয়া – দারবিশ

অলিভার ১৭ এপ্রিল ২০১৭, সোমবার, ০১:৩৫:৪২অপরাহ্ন সাহিত্য ৬ মন্তব্য

 

অদ্ভুত এক বইয়ের নাম ‘দারবিশ’। অদ্ভুত বলছি কারণ বইটির নামই আমাকে বইটি পড়ার জন্যে আগ্রহী করেছিল। তবে বই পড়বার পর যদি জিজ্ঞাস করা হয় এখনো কেন বইটিকে ‘অদ্ভুত’ বলছি? তার জবাবে বলতে হবে- অদ্ভুত এক জীবন দর্শন নিয়ে লেখা একটি উপন্যাস ছিল এই ‘দারবিশ’। যা শুধু নাম দিয়েই নয়, বরং গল্পের ভেতরের কথা গুলি দিয়ে তার জায়গা তৈরি করেছে।

কেমন ভাবে জীবনকে এখানে ব্যাখ্যা করেছে তার একটা ধারণা পাবার জন্যে একটু অংশ কোট করছি-

আমার এক স্কয়ার মিটারের মধ্যে যা আছে এর বাইরে কোনকিছুই আমার না। তোমার জমিন সেটুকুই যেটুকুর উপরে তুমি দাড়িয়ে বা বসে আছ। তোমার টাকা সেটুকুই যেটুকু এখন তোমার পকেটে আছে। যদিও তোমার ব্যাংকে তোমার হাজার কোটি টাকা আছে-তোমার খাদ্য সেটুকুই যেটুকু তোমার পেটে চলে গিয়েছে-যদিও তোমার টেবিল ভরা খাবার। তোমার পোশাক সেইটুকুই যা এই মুহূর্তে তুমি পরে আছ, যদিও তোমার ওয়ারড্রোব ভরা জামাকাপড়। অনেক কিছুর মালিকানা আসলে সেন্স অফ ওনারশিপ। তোমার অনেক কিছু আছে এই অনুভূতিটা বা এই স্মৃতিটা যদি কোনভাবে তোমার মাথা থেকে নাই হয়ে যায় তা হলে চিন্তা করো তো তোমার ভাগে আসলে কী থাকল?

 

হ্যাঁ, এমন কিছু চমৎকার দৃষ্টিভঙ্গির মাধ্যমে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত নেশায় বুদ করে রাখবার মতই গল্প ছিল এই দারবিশের। যেখানে এক বৃদ্ধের মাঝে দিয়ে দেখা যাবে এক তরুণের উপস্থিতি আর উপস্থিতি আপনাকে ঘুরিয়ে নিয়ে আসবে আমেরিকার এক
উন্মত্ত সময়ে। যেখানে যুদ্ধ বন্ধ করতে আরেক অদ্ভুত জীবনকে দেখা যাবে একদম কাছ থেকে। জানা যাবে হিপ্পিদের সংগ্রাম সম্পর্কে। বোঝা যাবে তাদের প্রতিবাদের ভাষা, আর তার প্রয়োগের প্রকাশ দিয়ে।

আরও কিছু অংশ কোট করলাম বইটি থেকে-

আদর্শের নাম দিয়ে তুমি যদি কারো স্বাধীনতা হরণ করো, কারো দেশ দখল করো, কারো সম্পদ লুট করো, তবে সেটা অবশ্যই আদর্শবাদ নয়। আদর্শ সেই শক্তির নাম যেটা দিয়ে তুমি আমার সাথে কথা বলবে, বিতর্ক করবে, আমার ভুলগুলো তোমার আদর্শিক বুদ্ধিমত্তা দিয়ে শুধরে দেবে। আর দিনশেষে আমি ভালোবেসে তোমাকে গ্রহণ করতে পারি অথবা বাতিল করে দিতে পারি। দেশ দখলের চেয়ে হৃদয় দখল করা অনেক কঠিন।

 

এর বাইরেও আরও তিনটি চরিত্র গল্পে রয়েছে। তাদের একজন রোদেলা। সময়ের সাহসী নারী বলতে যাকে কল্পনা করতে যায় তার একটা পরিষ্কার ছায়া দেখা যাবে এই চরিত্রটির মধ্যে। দেখা যাবে তার মনের ভেতরের অবস্থাটাকে। সে একই সময় সঞ্জু’র প্রেয়সী আর একজন কঠিন জুয়ারি। যে তার আত্মমর্যাদাকে, তার সিদ্ধান্তকে বাজিতে তুলে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছে। সঞ্জু চরিত্রটির মাঝে ফুটে উঠবে আমাদের গড়পড়তা চিন্তাভাবনা আর চেতনার প্রকাশ। ক্ষণেই আবেগী আবার ক্ষণেই বদমেজাজি হিসেবে আত্মপ্রকাশ ঘটবে তার। কিন্তু দিন শেষে ভালোবাসার সামনে ঝুঁকে যাবে নতমস্তকে। আরও আছে টুটুল, নির্লোভ আর বিশ্বাসের প্রশান্তিতে ভরপুর এক চরিত্র।

সবশেষে প্রকৃত বিশ্বাসেরই জয় হয়। যে বিশ্বাসে বিশ্বস্ত হওয়া যায় আপন বোধের সাথে, যে বিশ্বাসে নির্ভর করা যায় আপন সিদ্ধান্তের।

 

 

 

 

দারবিশ
লেখকঃ লতিফুল ইসলাম শিবলী
প্রকাশনিঃ নালন্দা
প্রকৃতিঃ সমকালীন উপন্যাস
পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ ১১০
মূল্যঃ ৩০০
অনলাইন শপঃ রকমারি
ব্যক্তিগত রেটিং – ৩.৮/৫

৪৯৬জন ৪৯৬জন
0 Shares

৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ