I’m Sorry, I Love You

গোধূলি ২০ আগস্ট ২০১৪, বুধবার, ০৯:১৯:৪৩অপরাহ্ন টিভি নাটক/সিরিয়াল ৩৪ মন্তব্য

আমার দেখা প্রথম কোরিয়ান সিরিয়াল “I’m Sorry, I Love You”। আজ পর্যন্ত জীবনে যত সিরিয়াল দেখেছি এখন পর্যন্ত মনে সবচেয়ে গাঢ়ভাবে দাগ কেটেছে এই সিরিয়ালটি। এই সিরিয়ালটিই আমার সবচেয়ে প্রিয় সিরিয়াল। এটা নিয়ে লেখার আগে অনেক ভাবতে হয়েছে, আদৌ লিখবো কিনা। কারণ, হয়ত লেখায় আবেগ সম্পূর্ণতা পাবে না।

“I’m Sorry, I Love You” ২০০৪সালের অন্যতম হিট একটি রোমান্টিক মেলোড্রামা। ১৬টি পর্বের সিরিয়ালে অভিনয় করেছেন So-Ji Sub ও Im Soo Jung। এই সিরিয়ালটিই এই দুজনকে তারকা করে তোলে। Im Soo Jung এরপর সরাসরি বড়পর্দায় চলে যান। আর So-Ji Sub  বেশ ভালভাবেই ছোট পর্দায় সাম্রাজ্য বিস্তার করেন। আমি এই সিরিয়াল দেখে দুজনের ভক্ত হয়ে গিয়েছিলাম। এবং So-Ji Subএর প্রেমেও পড়ে গিয়েছিলাম, সেই প্রেম আজো কাটেনি। 😛

“I’m Sorry, I Love You” হল এক কথায় আবেগ আখ্যান। পুরোটা সময় আপনাকে আবেগে ভাসিয়ে রাখবে সিরিয়ালটি। আপনি নিজে কতটা কোমল সেটাও বুঝতে পারবেন। সিরিয়ালের মূল কাহিনী Cha Moo Hyuk ও Song Eun Chaeকে কেন্দ্র করে। Cha Moo Hyuk অস্ট্রেলিয়ায় বসবাসকারী কোরিয়ান। Cha Moo Hyukকে অস্ট্রেলিয়ান এক দম্পতি দত্তক নিয়েছিল। Cha Moo Hyukএর সাথে তার পালক মা-বাবা ভালো ব্যবহার করতো না। তাই অল্প বয়সেই বাড়ি থেকে পালিয়ে ঘুরে বেড়াতে থাকে রাস্তায় রাস্তায়। যোগ দেয় লোকাল ঠকবাজ ও গুন্ডাদের গ্যাঙে, যারা ট্যুরিস্টদের ঠকিয়ে তাদের টাকা নিয়ে নেয়। Cha Moo Hyukএর জীবনে শুধু একজন মানুষই তার সব কিছু, তার প্রেমিকা Moon Ji Young, যাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখে বেঁচে থাকার। Cha Moo Hyuk চায় অনেক টাকা উপার্জন করতে, তারপর কোরিয়া গিয়ে তার বায়োলজিক্যাল বাবা-মাকে খুঁজে বের করবে সে।

Song Eun Chae বিখ্যাত গায়ক Choi Yoonএর বেস্ট ফ্রেন্ড ও একইসাথে তার ফ্যাশন কোঅরডিনেটর। Choi Yoonকে গভীরভাবে পছন্দ করে Song Eun Chae, যদিও Choi Yoon ভালো ফ্রেন্ড ছাড়া আর কিছুই ভাবে না Eun Chae কে। অস্ট্রেলিয়াতে এক ফটোশুটে যায় Choi Yoon ও জনপ্রিয় অভিনেত্রী Min Joo এবং সাথে Eun Chae। সেখানে গিয়েই Choi Yoon ও Min Joo জুটি হয়ে যায় যদিও Min Jooর Choi Yoonএর প্রতি তেমন কোন অনুভূতি ছিল না। বলতে গেলে Choi Yoonএর জোরাজুরিতেই রাজী হয় সে। Eun Chae বিষণ্ণ মনে একাই আগে আগে কোরিয়া ফেরার সিদ্ধান্ত নেয়, রাস্তায় ঠকবাজদের পাল্লায় পড়ে স্যুটকেস হারিয়ে যায়। রাস্তায় বসে কাঁদতে থাকে সে, তখন Cha Moo Hyuk দেখে তাকে। Cha Moo Hyukকে দেখে  আনন্দে লাফাতে থাকে Eun Chae, ভিনদেশে ভিনভাষীদের মাঝে অসহায় বোধ করছিল সে। কোরিয়ান একজনকে পেয়ে সে ভাবল, তার বিপদ কেটে গেছে। প্রথমে কথা বললেও সাহায্য করতে কোন আগ্রহ দেখাল না Cha Moo Hyuk, Eun Cha ফলো করতে শুরু করে তাকে। তখন ঠকবাজ Cha Moo Hyuk বদ মতলব আঁটল, বারে নিয়ে যায় Eun Chaeকে। কিন্তু হঠাত কি মনে করে নিজেই বিপদ থেকে উদ্ধার করে তাকে, খুঁজে পায় Eun Chaeর স্যুটকেস যা আসলে তার গ্যাং মেরে দিয়েছিল। রাতে আশ্রয় দেয় থাকার। পরদিন Eun Chae ফিরে যায় কোরিয়া।

এদিকে Cha Moo hyuk হঠাত খেয়াল করে তার প্রেমিকা Moon Ji Young অন্য একলোকের সাথে ঘুরছে। তখন Moon Ji Young জানায়, ঐ লোককেই বিয়ে করবে সে, শুধু ভালোবাসা দিয়ে জীবন চলে না, বাঁচার জন্য টাকা লাগে। বিয়ের দাওয়াত দেয় সে। Cha Moo Hyuk ভগ্নহৃদয়ে প্রেমিকার বিয়েতে যায় প্রেমিকাকে দেখবার জন্য। সেখানে প্রেমিকার হবু জামাইকে খুন করার জন্য ভাড়াটে খুনি যায়, যাকে খেয়াল করে Cha Moo Hyuk। Mo0n Ji Young ও তার জামাইদের দিকে বন্দুক টার্গেট করা দেখে তাদের বাঁচাতে যায় সে। তখন ২টা বুলেট ঢুকে যায় Cha Moo Hyukএর ব্রেনে। অপারেশন করে একটি বের করে আনা সম্ভব হয়, আরেকটি বের করা সম্ভব হয় না। অলৌকিকভাবে বেঁচে গেলেও আয়ু বেশিদিন নেই জানিয়ে দেয় ডাক্তাররা। ১ বছর বা ৬ মাস বা তারও কম। তখন Moon Ji Young অনেক টাকা দেয় Cha Moo Hyukকে এবং বলে সে যেন কোরিয়া গিয়ে নিজের মা-বাবাকে খুঁজে বের করে, শেষ মুহূর্তগুলো তাদের সাথেই কাটায় যেন।

Cha Moo Hyuk কোরিয়াতে এসে জানতে পারে, সে একাই বঞ্চিত না। তার যমজ বোনও বঞ্চিত,  যে কিনা মানসিক প্রতিবন্ধী ও বোনের একটা ছেলে আছে। Cha Moo hyuk ও তার বোন দুজনেই অনাদরে অবহেলায় বড় হয়েছে। তাদের মা আর কেউ না কোরিয়ার এক সময়কার অন্যতম বিখ্যাত অভিনেত্রী Oh Deul-Hee, যার ছেলে Choi Yoon। কেন ২ই সন্তানকে ফেলে এক সন্তানকে বড় করল মহিলা? তাদের কি সে মা না? প্রতিশোধ নেবার সিদ্ধান্ত নেয় Cha Moo Hyuk। যাকে সবচেয়ে ভালবাসত সেই প্রেমিকাও আজ অন্যলোকের স্ত্রী। প্রতিশোধ ছাড়া বেঁচে থাকার আর কোন কারণ নেই তার। Eun Chaeর বাবা আবার Oh-Deul heeর ম্যানেজার ও ড্রাইভার, মা কেয়ারটেকার। Oh Deul Hee-র বাসার বেজমেন্টে থাকে Eun Chae-র পরিবার। Cha Moo Hyuk এসে ঘুরঘুর করতে লাগলো বাড়ীর আশেপাশে। Eun Chae দেখেই চিনতে পারল। সে ভাবল, এই লোক তার প্রেমে পড়েছে এবং তার জন্য কোরিয়া চলে এসেছে। সে Cha Moo Hyuk কে “Ajussi”(Mr.) সম্বোধন করতো। সে নানাভাবে তাকে বুঝায় অস্ট্রেলিয়া ফিরে যাওয়ার জন্য, কিন্তু Cha Moo Hyuk তার গোপন উদ্দেশ্যর কথা প্রকাশ করে না। কিভাবে বাড়িতে ঢোকা যায় সেই প্লান করে সে। ধীরে ধীরে Choi Yoonএর সাথে বন্ধুত্ব পাতিয়ে ফেলে সে, Choi yoon তাকে নিজের ম্যানেজার পদে নিযুক্ত করে। Choi Yoonএর আশেপাশে থাকতে থাকতেই সে Song Eun chaeর Choi yoonএর প্রতি অনুরাগ বুঝতে পারে এবং ধীরে ধীরে ঈর্ষান্বিত হয়ে ওঠে। কারণ Moon Ji Youngএর কাছে থেকে সে এমন ভালবাসাই চেয়েছিল যা সে পায় নি। Choi Yoonএর কাছে থেকে সে সব কিছু ছিনিয়ে নিতে চায় প্রতিশোধ নেবার জন্য , শুধুমাত্র Eun Chaeকে চায় নিজের জন্য। হঠাত করেই Cha Moo Hyuk এর মন স্বার্থপর ও লোভী হয়ে ওঠে ভালবাসা পাবার জন্য। অল্পকিছুদিনের জন্য হলেও সে ভালবাসা চায়, শেষ কটা দিন সে Eun Chaeকে নিজের পাশে পেতে চায়, তার ভালবাসা পেতে চায়।

Choi Yoon ও Min Jooর মাঝখানে থেকে পুরোপুরি সরে যাওয়ার জন্য আফ্রিকা চলে যাবার সিদ্ধান্ত নেয় Eun Chae। যাবার আগে সে দেখা করতে যায় Cha Moo Hyukএর সাথে। Cha Moo Hyuk তার প্রেমিকাকে বিয়ে করা থেকে আটকানোর জন্য বলেছিল, “আগে আমার জন্য কিমচি(কোরিয়ান তরকারি) বানায়ে দাও অনেক, তারপর তুমি যেও।” সে সেই একিভাবে Eun Chaeকে বলে, “আফ্রিকা যাবার আগে কিমচি বানায়ে দিয়ে যাও।” Eun Chae বলে, ” স্যরি, আমি তো কিমচি বানাতে জানি না।” বলে বিদায় জানিয়ে চলে যেতে লাগে। কয়েক পা গিয়েই ঘুরে বলে, ” কিন্তু আমি কাকদোগী(আরেক পদের তরকারি) বানাতে পারি। ওটা চলবে?” Cha Moo Hyuk তখন মৃদু হাসল।

Cha Moo Hyukএর বোন ও ভাগ্নের সাথে পরিচয় হল Eun Chaeর। কাকদোগীতে প্রচুর ঝাল দিয়ে ফেলে Eun Chae, Eun Chaeকে খুশি করার জন্য খেতে লাগে Cha Moo Hyuk। কাকদোগী বানানো শেষ, Cha Moo Hyukএর বোন ও ভাগ্নে ঘুমিয়ে পড়েছে। Eun Chae ঘরের বাইরে এসে দেখে, Cha Moo Hyuk ও ঘুমাচ্ছে। Eun Chae যখন যেতে লাগে, Cha Moo Hyuk পিছন থেকে আলতো করে জড়িয়ে ধরে Eun Chaeকে।

খুব ক্ষীণ স্বরে বলে, “যেও না।” নরম Eun Chae Cha Moo Hyukএর কাকুতি ফেলতে পারে না। সে আফ্রিকা যায় না। এদিকে Choi Yoon বুঝতে পারে যে তার জীবন Eun Chaeকে ছাড়া অসম্পূর্ণ। নানা কারনে Eun Chaeকে ফিরে যেতে হয় নিজের বাড়িতে।

একটা সময় Cha Moo Hyuk জোর করে দখল করতে চেয়েছিল Eun Chaeকে, আর  Eun Chae নিজেই দুর্বল হয়ে পড়েছে। Eun Chae ও Cha Moo Hyukএর মাঝে বাঁধা শুধু সমাজ, পরিবার না সময়ও তাদের বাঁধা। যা Eun Chae জানে না। কোন পরিণতি নেই জেনেও নিজের শেষ সময়টাতে Cha Moo Hyuk চায় Eun Chaeকে।

কাহিনী পড়ে আপাত দৃষ্টিতে যা মনে হবে, সিরিয়ালটি দেখার পর পুরো ধারণা বদলে যাবে। কাহিনী পড়ার পর Cha Moo Hyukএর উপর রাগ হয়েছিল। নিজে মরবে জেনেও কেন সে একটা নিষ্পাপ মেয়েকে ভালবাসায় জড়াচ্ছে? সিরিয়ালটি দেখার পর মানুষের আবেগ-অনুভুতি সম্পর্কে পুরো ধারণা বদলে গেছে? আমরা অনেক সময় জেনেই অনেক ভুল করি। আসলে আবেগের বেগের রশি কারো হাতেই নেই। সিরিয়ালটি দেখে Cha Moo Hyuk, Eun chae প্রতিটি চরিত্রকেই ভালবেসে ফেলেছি।

সিরিয়ালটি শুধু নরনারীর ভালবাসার উপর ফোকাস করে নি, মা-ছেলে, মা-মেয়ে, বাবা-মেয়ে, বোন-বোন, ভাইবোন, মামা-ভাগ্নে সম্পর্কের উপর ফোকাস করেছে। সিরিয়ালটির ইফেক্ট কয় সেকেন্ড, কয় মিনিট, কয় ঘন্টা, কয় দিন, কয় সপ্তাহ, কয় মাস, কয় বছর থাকবে- কোন গ্যারান্টি দিতে পারছি না। কারণ আমার উপর ইফেক্ট আজো যায় নি। যতই লিখি না কেন, কম মনে হয়। এই সিরিয়ালের মোহনিয়তা ভাষায় প্রকাশ করা সভব না।

বিঃ দ্রঃ আমার প্রথম প্রফ পরীক্ষার পর সিরিয়ালটি দেখেছিলাম। তখন বাসায় যে ব্রডব্যান্ড ইউজ করতাম তার স্পীড বেশ স্লো ছিল। আমি রাতে ঠিকমতো ঘুমাতে পারতাম না। ১ঘন্টা পরপর ঘুম থেকে উঠে ডাউনলোড দিতাম। সিরিয়ালটি দেখে আমি হেসেছি, কেঁদেছি। হাসার জন্য কিছু না লাগলেও, কাঁদার সময় টিস্যু পেপার লাগবে। এই সিরিয়ালটি দেখার পর থেকেই আমি কোরিয়ান সিরিয়াল দেখা শুরু করি। এখনো দেখি, সাম্নেও দেখবো। কোরিয়ান সিরিয়ালের একটা বিশেষত্ব, সিরিয়ালগুলোতে আবেগ-অনুভুতিই মুখ্য ব্যাপার, হিন্দী সিরিয়ালের মত কুটনামি না, ইংলিশ সিরিয়ালের মত জটিলতাও না এবং একইসাথে বেশ মার্জিত বিদেশী হিসেবে।

ডাউনলোড করার লিঙ্ক –

১৯৭জন ১৯৭জন
0 Shares

৩৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য