ব্লগ – ব্লগিং – ব্লগার

ইঞ্জা ১১ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার, ০৯:১৯:০০অপরাহ্ন সোনেলা বার্তা ৭৭ মন্তব্য

ব্লগ কিঃ

ব্লগ শব্দটি ইংরেজি Blog এর বাংলা প্রতিশব্দ, যা এক ধরনের অনলাইন ব্যক্তিগত দিনলিপি বা ব্যক্তিকেন্দ্রিক পত্রিকা। ইংরেজি Blog শব্দটি Weblog এর সংক্ষিপ্ত রূপ। যিনি ব্লগে পোস্ট করেন তাকে ব্লগার বলা হয়। ব্লগাররা প্রতিনিয়ত তাদের ওয়েবসাইটে কনটেন্ট যুক্ত করেন আর ব্যবহারকারীরা সেখানে তাদের মন্তব্য করতে পারেন। এছাড়াও সাম্প্রতিক কালে ব্লগ ফ্রিলান্স সাংবাদিকতার একটা মাধ্যম হয়ে উঠছে। সাম্প্রতিক ঘটনাসমূহ নিয়ে এক বা একাধিক ব্লগাররা তাদের ব্লগ হালনাগাদ করেন।

বেশিরভাগ ব্লগই কোন একটা নির্দিষ্ট বিষয়সম্পর্কিত ধারাবিবরণী বা খবর জানায়। বাকীগুলো ব্যক্তিগত অনলাইন দিনলীপি। একটি ব্লগ হলো লেখা, ছবি, অন্য ব্লগ, ওয়েব পৃষ্ঠা, এ বিষয়ের অন্য ওয়েব সাইটের লিংক ইত্যাদির সমাহার। পাঠকদের মন্তব্য করার সুযোগ দেয়া ব্লগের অন্যতম একটি দিক। প্রায় ব্লগই মূলত টেক্সট-বেসড বা লেখাভিত্তিক। কিন্তু কিছু ব্লগ আবার শিল্প (আর্ট ব্লগ), ছবি (ফটোব্লগ), ভিডিও (ভিডিও ব্লগিং), সঙ্গীত (এমপিথ্রিব্লগ) আর অডিও (পোডকাস্টিং) ইত্যাদির উপর গড়ে উঠে। মাইক্রোব্লগিং-ও আরেক ধরনের ব্লগিং, যেখানে পোস্টের আকার তূলনামূলক ছোট থাকে। জুন, ২০১৭-এর হিসেবে, ব্লগ খোঁজারু ইঞ্জিন টেকনোরাট্টি প্রায় বাইশ মিলিওনেরও বেশি ব্লগের হদিশ পেয়েছে। —সূত্র গুগল উইকিপিডিয়া 

এখন আসি মূল বক্তব্যে, প্রথমেই ব্লগ কি তা জানলেন, এখন আসি আমাদের সোনেলা ব্লগ নিয়ে আলোচনা করি আমার মন্তব্য দিয়ে। 

আমি ব্লগে একাউন্ট খুলি অনেক আগে হলেও, সত্যিকার অর্থে আমি ব্লগিং শুরু করি ২০১৬ সাল থেকে, কিন্তু তার আগে গুগল, ইয়াহু ঘেটে জানার চেষ্টা করি ব্লগ এবং ব্লগিং কি, সাথে সাথে ব্লগার কিভাবে হতে হয় তা জেনেই আমি ব্লগিং শুরু করি।

প্রথমেই আমার মতামত এবং আন্তর্জাতিক ভাবে ব্লগ সম্পর্কে জানুন, ব্লগ কিন্তু আন্তর্জাতিক ভাবে স্বীকৃত প্লাটফর্ম যেখানে আপনি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিস্তারিত ভাবে লিখবেন, যা জ্ঞান নির্ভর হতে হবে, যা দিয়ে আপনার পাঠকগণ উপকৃত হবেন বা তাতে সামাজিক কিছু দৃষ্টান্ত, নিউজ ইত্যাদি থাকবে।

খেয়াল রাখবেন, ব্লগ কিন্তু ফেইসবুক বা ফেইসবুকের কোনো গ্রুপ নয় যে, যেখানে আপনার ইচ্ছামত লিখতে পারবেন।

যেমন ধরুন, ফেইসবুকে আপনি চাইলে দুই চার লাইনের কবিতা বা একান্ত অনুভূতি লিখতে পারলেও ব্লগে তা পারবেন না, যদি ব্লগে ছোটোখাটো লেখা দেন তাহলে তা হবে খুবই অন্যায়, কারণ এইসব ব্লগিংয়ের অংশ নয়। 

ফেইসবুকে এবং গ্রুপে আপনার লেখার ভিউয়ার হলেন আপনার ফেইসবুক বন্ধুগণ ও গ্রুপ সদস্যগণ, কিন্তু ব্লগের ভিউয়ার হলে সারা বিশ্বের পাঠকগণ।

ফেইসবুকে দেওয়া লেখা নিয়ে গুগল কিন্তু মাথা ঘামায় না, কিন্তু ব্লগের লেখা সবসময়ই গুগল চোখে চোখে রাখে, যেমন ধরুন আপনি কারো লেখা চুরি করে বা নিজেরই অন্য কোথাও প্রকাশিত লেখা ব্লগে দিলে তখন গুগল সার্চে ব্লগটির পোস্ট গুলো নাও পাওয়া যেতে পারে। এই  জন্য সবসময় নিজের আনকোরা নতুন লেখা ব্লগে দিতে হয়।

যদিও বা কারো লেখা যদি ব্লগে কোনো কারণে উদাহরণ হিসাবে দিতে হয় তাহলে সেইটা সূত্র হিসাবে ব্যবহার করবেন যেমন আমি আমার শুরুর লেখাটিতে করেছি। 

ব্লগে আপনারা যায় দেননা কেন তা সবসময় গুগলে খুঁজে পাওয়া যাবেই, যা অন্য কোনো প্লাটফর্মে সম্ভব নয়, সুতরাং সাবধান। 

ব্লগে আপনারা যারা গল্প কবিতা দেন খেয়াল রাখবেন তা যেন গঠনমূলক হয় এবং বড় আকারের হয়, ছোট আকারের কোনো লেখা ভুলেও দেবেন না, এতে ব্লগের সৌন্দর্য্য হানি তো হয়ই, সাথে সাথে ব্লগের পাঠক ব্লগ বিমুখ হয়ে যায়।

আপনি নিজেকে ব্লগার হিসাবে তখনই দেখবেন যখন আপনি গঠনমূলক লেখা দিয়ে ব্লগিং করবেন, প্রথমেই ঠিক করুন আপনি কি নিয়ে ব্লগিং করতে চান, সেই বিষয়ে প্রথমেই ভালোভাবে জ্ঞান আহরণ করুন বা সেই বিষয়ে ভালো জ্ঞান রাখুন, তারপর সে বিষয়ে বিস্তারিত ভাবে লিখুন।

কি কি নিয়ে ব্লগিং করা যায়ঃ

এ যেমন অনেক বড় একটা প্লাটফর্ম, তেমনই এর লেখার বিষয়ের অভাব নেই, যেমনঃ ফ্লিম, বুক, নাটকের রিভিউ বড় একটা বিষয়, এ নিয়ে আপনি আপনার মতো করে রিভিউ লিখতে পারেন, কিন্তু তখন আপনাকে ছবিটির বা বইয়ের আদ্যোপান্ত জানতে হবে, জানলেই পারবেন রিভিউ লিখতে।

গল্প, কবিতা লিখতে পারেন, সেই ক্ষেত্রে তা উচ্চমানের লেখা যেন হয় তা খেয়াল রাখতে হবে।

যারা রান্না করেন এবং নতুন নতুন বিভিন্ন রান্না করতে অভ্যস্ত তারা রান্নার রেসিপি নিয়ে বিস্তারিত লিখতে পারেন।

ব্লগের সবচাইতে বেস্ট পার্ট হলো সমসাময়িক বিষয়, যা সবাই জানতে চাই, সুতরাং এইটিও একটি উতকৃষ্ট বিষয় হতে পারে।

সাইন্স নিয়ে যাদের জ্ঞান এবং আগ্রহ বেশি তারাও ভালো লেখা দিতে পারেন। 

চিকিৎসা বিষয়ক লেখাও ব্লগিংয়ের উতকৃষ্ট হতে পারে যা সফল ব্লগারগণ লেখেন। 

ভ্রমণকাহিনী লিখতে পারেন, যদিও তা বিশদভাবে লিখতে হবে।

ছবি ব্লগও করতে পারেন, কিন্তু ছবি গুলো হতে হবে উদাহরণ স্বরূপ,  যা তা ছবি দিয়ে কখনো ব্লগিং করবেন না ভুলেও। 

স্বাস্থ্যসেবা বা বার্তাও উতকৃষ্ট ব্লগিং বিষয়, তবে রা জেনে বুঝেই দেওয়া উচিত। 

ইতিহাস নিয়ে যারা পড়াশুনা করেন বা যাএয়া ঐতিহাসিক জায়গা ভ্রমণ করেছেন, তারা বিস্তারিত লিখতে পারেন।

এছাড়াও ব্লগিংয়ের অনেক অনেক বিষয় আছে আপনি ইচ্ছা করলে লিখতে পারেন।

আরেকটা বিষয় অবশ্যই সকল ব্লগারের করা উচিত আর তা হলো, ব্লগে অন্যদের লেখা পড়া এবং কমেন্ট করা, এতে হবে কি অন্যরাও উৎসাহিত হবেন আপনার লেখা পড়তে এবং কমেন্ট করতে, এতে আপনারই লাভ, কেমন লাভঃ

এতে আপনারই পাঠক বৃদ্ধি হবে, কমেন্ট বৃদ্ধি হবে, বুঝলেন। 

পরিশেষে আমার অনুরোধ, প্লিজ বুঝে শুনে ব্লগিং করুন, কবিতা দিন কিন্তু তা বড় এবং ভালোমানের কবিতা হয় যেন সে খেয়াল রাখুন।

তেমনি অন্য বিষয়ে জ্ঞানগর্ভ লেখা লিখুন।

এতে আমাদের প্রিয় ব্লগের শ্রীবৃদ্ধি হবে, সাথে পাঠকও বৃদ্ধি হবে।

হ্যাপি ব্লগিং।

 

ছবিঃ গুগল।

জনস্বার্থেঃ

 

৮১০জন ২৩৮জন
156 Shares

৭৭টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য