মামুন চৌধুরী

আমার বাবা প্রায়শই বলতেন লেখকরা ফকির হয়। ফকির হওয়ার ইচ্ছা থাকলে লিখতে থাক। সে কারনে মাঝখানে একদম বাদ রেখেছিলাম । কিন্তু কলমের যে মুখ চুপ থাকে না..................

  • নিবন্ধন করেছেনঃ ৫ মাস ২৬ দিন আগে
  • পোস্ট লিখেছেনঃ ৬টি
  • মন্তব্য করেছেনঃ ১৭টি
  • মন্তব্য পেয়েছেনঃ ৪৬টি

জীবনের উলঙ্গ অভিজ্ঞতা।

মামুন চৌধুরী ২৩ এপ্রিল ২০১৯, মঙ্গলবার, ০৩:০৩:৩৫অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৪ মন্তব্য
যাত্রা!!!!!!!! এক সময় পত্রিকায় কলাম লেখার খুব ঝোক ছিল। সে সময় আমার লেখা গুলো ছদ্মনাম শব্দ শ্রমিক বা নন্দ ঘোষ নামে প্রচার হত। সে কারনে সমাজে প্রচলিত অনেক কম্ম অনেকে তলেতলে পছন্দ করত। কিন্ত মুখে আনত না। সেই বিষয়গুলি দেখার ও বোঝার চেষ্টা করতাম এবং তার উপর আবোল তাবোল কিছু লিখে কলাম সম্পন্ন করতাম। সে [ বিস্তারিত ]
আমাদের সময় ডিজে হাইস্কুলে দুপুরের টিফিন খাবার দেয়া হত। সে টিফিনের জন্য দিতে হত দুটাকা। টিফিনের মেনু ছিলু বর্ণিল যেমন- ঘি মাখা একমগ মুড়ি, কোনদিন ডিম, কোনদিন পাউরুটি কলা। টিফিনের দায়িত্বে ছিলেন শ্রদ্ধেয় প্রয়া্ত কোরবান আলী স্যার। কোন কোন দিন বলত এ হনুমান বালতিটা ধর, সেদিন হয়ত বাড়তি টিফিন জুড়তো কপালে। ৮৯ ব্যাচের ছাত্রদের পিকনিকের [ বিস্তারিত ]

একটি কৈশরের অস্ত্রপাচার (তিন)

মামুন চৌধুরী ২৮ মার্চ ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১২:১৭:২০পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৯ মন্তব্য
শেষে ক্লাসে গমন। স্বপন স্যার ছিলেন প্রচন্ড রকমের রসিক শিক্ষক। ক্লাসে এসে বললেন কিরে চৌধুরী প্রেমের ক্লাস কেমন হল। স্বপন স্যার ছিলেন বাবার বন্ধু কিন্তু তিনি বাসষ্ট্যান্ডের দিকে আসতেন না, তাই বাবার সাথে দেখা হবার সম্ভাবনা কম। স্বপন স্যার জগন্নাথ মন্দির সংলগ্ন চেম্বারে হোমিওপ্যাথিক ডাক্তারী করতেন এবং ডাক্তারী ডেরাতেই প্রাইভেট পড়াতেন। উনি আমার প্রাইভেট শিক্ষকও [ বিস্তারিত ]
মহান স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা। স্বাধীনতার চেতনাকে পুঁজি করে আমরা কোন ব্যবসা করব না, এ শপথ গ্রহন করি। Chandril Bhattacharya বক্তব্য অবলম্বনে – আজকাল যে যুগ সংস্কৃতিমনা বলতে গেলে জীব জড়িয়ে যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে কমিয়ে যাচ্ছে তো বটেই। কিন্তু কমে যাচ্ছে কিনা তার উত্তর খুব ছোট করে বললে বলব- আমি জানি না। এ নিয়ে যতই [ বিস্তারিত ]
শিক্ষকের হাতের সুশ্রী হালকা গড়নের বেত্রদন্ড তাঁদের শোভাবর্ধন করত সবসময় ।এ কালের শিক্ষকের বেত্রাঘাত যেমন অনেক শিক্ষকের নিজের শরীরেই এমন ভাবে আছড়ে পড়ে তিনি চাকুরিটিই হারাতে বসেন। তখনকার দিনে এ রকম হবার সম্ভাবনাই ছিল না। এ কালের বিজ্ঞানের আবিষ্কৃত বেত্রাঘাত দুরে থাক, বেত্রদন্ড দেখলেই নাকি শিশুদের মানসিক বিকাশ বাধাগ্রস্থ্য হয়। সে যাকগে – সম্ভবত ১৯৮৮ [ বিস্তারিত ]

একটি কৈশরের অস্ত্রপাচার

মামুন চৌধুরী ২১ মার্চ ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১১:৪৫:৫২অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ১০ মন্তব্য
কৈশোরের তালশাস বা প্রচন্ড ঝড়ে আমগাছের নিচে দাড়িয়ে আম কুড়ানোর মত ভয়ঙ্কর আনন্দ যাদের জীবনে নেই তাদের জীবনটা মেশিনের মতই নিরস ও নিরানন্দ। দশ্যিপনার বয়সটি ছিল বাঙ্গালী নদীর অবয়বে, ভয়াল করতোয়া পাড়ি দেওয়া। আবার টিএন্ডটির সামনে তৎকালীন নয়ার পুকুর নামে পরিচিত, আজকের শেরপুরের সবচেয়ে বড় নর্দমাটিতে ঝাপাঝাপি ছিল নিত্যদিনকার। পিতার চোখরাঙ্গানী সত্তেও বতর্মান আহলে হাদিস [ বিস্তারিত ]

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য