বিপ্লব আর প্রতি-বিপ্লব শিখেছি সেই ১৯৭১ এর দিনগুলোতে ।
এপ্রিল থেকে বেশ কিছুদিন পালিয়ে ছিলাম পেয়ারা বাগান খ্যাত এলাকার আশে পাশেই । সিরাজ সিকাদারের পূর্ব বাংলার সর্বহারা পার্টি এই এলাকায় গঠিত হয়েছিল। বেশ কিছুদিন মুক্তাঞ্চল ছিল ঐ এলাকা । কালো ড্রেস পরে মুক্তি যোদ্ধারা আসতেন বাড়ি বাড়ি , রাতে ছিল তাদের যাতায়াত বেশি। নুর ইসলাম পণ্ডিত , মজিদ , কনিকা দিদি , মনিকা দিদির নাম গুলো শুধু মনে আছে । সর্বহারা পার্টির কার্যক্রম শুরু হবার আগে মুক্তি যোদ্ধারা ছিল একদল । হঠাত দুই দল হয়ে গেল । মাঝে মাঝে নিজেদের মধ্যে গোলাগুলিও হতো । তখনই ঐ ছোট বয়সে কনিকা দিদি বুঝিয়েছিলেন বিপ্লবের মাঝে প্রতি-বিপ্লব ঘটে গিয়েছে।
(কনিকা , মনিকা দিদি , জানিনা কোথায় আপনারা এখন । প্রতিবিপ্লবীদের বুলেট কি আ্ননাদের জীবন কেড়ে নিয়েছিল ? খুজবো আপনাদের অবশ্যই আগামী কাল থেকে ) ।

শ্রেনী শত্রু নিধন শব্দটাও শিখি তখন । প্রথম যারা মুক্তি যোদ্ধা ছিল – তাঁর কেন জানি সর্বহারা পার্টির চোখে শ্রেনী শত্রু হয়ে গেলেন। দুপক্ষই দিন এবং রাতের বিভন্ন সময়ে আমাদের আশ্রয় দানকারী বাড়িতে দেখতাম আমি ।

১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ এর পরে শ্রেনী শত্রু নিধন বেশ জনপ্রিয় হয়। শ্রেনী শত্রু হয়ে যায় অধিকাংশ আওয়ামী লীগাররা । আমার জানামতে এই শ্রেনী শ্ত্রুর তালিকায় বা খতম হওয়া তালিকায় রাজাকাররা খুব কম ছিল । জানা মতে বলছি একারনে – আমার খুব কাছের এক আত্মীয় সর্বহারা পার্টির আঞ্চলিক বড় নেতা ছিলেন এবং তিনি আমাকে অত্যন্ত শ্নেহ করতেন।

কোন এক বিচিত্র কারনে দেশ স্বাধীন হবার পরেও দলটির নাম ছিল ” পূর্ব বাংলা সর্বহারা পার্টি ” । চীনের কারনে কি তখন এই পার্টি বাংলাদেশের স্বাধীনতা মেনে নেয় নি ? পূর্ব বাংলা পরে অবশ্য বাদ দিয়ে দেয়া হয়েছিল – তবে অবশ্যই তা বঙ্গবন্ধু নিহত হবার পরে।

কেন জানি আজ পুরানো কথা মনে পড়ে গেল । ভালো থাকুন সবাই ।
ভালো থাকুক আমাদের দেশের মুক্তিকামী অজেয় বীর বাঙ্গালীরা ।

শাহাবাগ আন্দোলন সম্পর্কে পূর্ব বাংলা সর্বহারা পার্টির মতামত । এই নামে যে এটি এখনো আছে , জানা ছিল না।

৩৫০জন ৩৪৯জন
0 Shares

৭টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য