বিরহী মহুয়ার মাতাল গন্ধে আকাশ কাঁদে ঐ

চাঁদটাও নুয়ে ছুঁয়ে যায় রক্তরাঙা মহুয়ার সারা অঙ্গ।

বাতাসে বনলতা সাঁওতালি সুর তোলে!

জংলার বুকে সর্পিলাকার নদীর উদ্দামতা ছড়ায় পাহাড়ী-কন্যা।

প্রণয়ের আবেশে সাগরের লোনা বুকে আঁধফোটা ঝিনুকের আত্মাহুতি;

নিঃসঙ্গ গাংচিল ক্ষয়িষ্ণু আবেগে উড়ছে হাওয়ায়

রাতের শৈল্পিক বাসনায় কাঁচপোকা পুড়ছে অবিরত।

হাওড়ের বুক চিরে নিশিপদ্মে ধ্যানমগ্ন- উন্মনা তরঙ্গিনী!

হে পৌরুষদীপ্ত প্রেমিক! পথ হারিয়ে ফেলো না পথের আড়ালে;

দুর্বোধ্য নারীর প্রেমে উন্মাদ, উত্তাল তোমার হৃদয়-সরোবর।

বহ্নিশিখায় পুড়ে খাক হবে তোমার বোহেমিয়ান অনুরাগ!

যেমন করে পুড়ে অঙ্গার হয় পতঙ্গরাজ।

দেবদারু শাখে অশনিসংকেত দুলছে বাদুড়ঝোলা,

পথভোলা পথিক ফিরে যাও তেপান্তরের মাঠ পেরিয়ে

দূর-পাহাড়ের শীতল পাটে।

 

ছবি-নেটের

১৫৪জন ৩৬জন
0 Shares

১৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ