হিমু ভাই !! হিমু ভাই !! ওঠো।
সাজেদ আমাকে ধাক্কায় আর মোটামুটি একরকম চিৎকার করছে বলা চলে। আমি শুয়েছিল কমলাপুর ষ্টেশন এর প্লাটফর্মে। ময়লা পরা এক কাথা মুড়ি দিয়ে। সাজেদ ডাকে ঘুম ভাঙ্গে আমার । চোখ মেলে ধীরে ধীরে উঠে বসতে বসতে ঘুম জড়ানো কণ্ঠে সাজেদ কে জিজ্ঞেস করলাম,
-কিরে? এত রাতে তুই এখানে ??
-আমি হিমু হবো। তোমার সাথে থাকবো আজকে থেকে।
-ও। হবি, সমস্যা নাই। রাত ৪ টার সময় এসে ঘুম ভাঙ্গায় বলতে হবে এইটা ? আর এতো রাতে তুই বাইরেই বা কি করে ?
-বাসা থেকে বের হয়েছি রাগ করে। যাবো না আর ফিরে। তোমার সাথে থাকবো এবং হিমু হওয়ার প্রশিক্ষন নিবো, তারপর নিজের মত করে হিমু হয়ে ঘুরে বেড়াবো।
-খুব ভালো। টাকা আছে তোর কাছে ? একটা সিগারেট নিয়ে আয়, শীতের রাতে কাথার নিচে থেকে সিগারেট ঠোঁটে নিয়ে নাক দিয়ে ধোয়া ছাড়তে কেমন লাগে, এটা জানি না। এখন চেষ্টা করে দেখি।
– আছে।

এই বলে পকেট থেকে গোল্ডলিফ এর প্যাকেট আর ম্যাচ বের করে আমাকে দেয় সাজেদ।
আমি সেখান থেকে একটা সিগারেট নিয়ে ধরিয়ে আয়েশ করে টানছি।

এভাবেই সাজেদ হিমু হওয়ার জন্য প্রথমবার আগ্রহ প্রকাশ করে। যদিও সেদিন সাজেদ কে বুঝিয়ে বাসায় পাঠাতে পেরেছিলাম ।

আজ হিমু দিবস,এত দিন ছিলো না।আমি জীবনে কল্পনা করি নাই আমার নামে বা আমার জন্য কোন দিবস হবে। সব দিবস থাকলে ও হিমু দিবস ছিলো না। দিবস টি যারা যখন করেছে তাদের ধন্যবাদ। আমার নামে দিবস শুনে খুব ভালো লাগছে। মন টা খুব খুশী আমার আজ।

২/

তাই আজ রাতে বের হয়েছি হাঁটবো বলে হঠাৎ কি মনে হল আরে সাবরিনা সিরাজী তিতির আপু এত ষ্টেশন নিয়ে লিখে রেললাইন তার খুব প্রিয়। তাই আমি ভাবলাম আজ রেললাইন দিয়ে হাঁটবো অনেক দিন তো রাস্তায় হাঁটলাম আজ না হয় রেললাইন দিয়ে হাঁটি প্রথমে প্লাটফর্মে অনেক মানুষের কোলাহল দেখতে পেলাম,কেউ কেউ খুব ব্যাস্ত হয়ে টিকিট কিনছে তো কেউ বসে বসে ঝিমাচ্ছে। আবার কেউ বা আয়েশ করে সিগারেট খাচ্ছে। আমি আমার মত রেললাইনের দিকে যাচ্ছিলাম কিন্তু ঐ আয়েশি করে বসে থাকা কিছু মানুষের সিগারেট খাওয়া দেখে আমার ও নেশা চেপে গেলো আর সিগারেটের ধোয়াও নাকে গিয়েছে তাই আরো বেশী করে নেশা চেপে ধরেছে।কিন্তু নেশা ধরলে কি হবে আমার গায়ে রুপার দেয়া সেই পকেটবিহীন হলুদ পাঞ্জাবী তাই পকেট যেহেতু নেই তাই টাকা তো থাকার প্রশ্ন আসে না।আর অনেকে ভাবতে পারে বা বলতে পারে প্যান্টের পকেট তো আছে সেখানে টাকা নেই। তাদের বলি আমার প্যান্টের পকেট আছে ঠিকি কিন্তু সেই পকেটে কোনদিনই টাকা ছিলো না আজ ও নেই। তো টাকা না থাকার কারনে সিগারেট খাবার নেশা টা আপাতত মাথা থেকে ঝেড়ে আমার মত আমি রেললাইন দিয়ে হাঁটার উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম। একবার মনে চাইছিলো যারা সিগারেট খাচ্ছে তাদের কে গিয়ে বলি ভাই একটা সিগারেট হবে কিন্তু সে ইচ্ছা মত আর কাজ করলাম না অনেকে নানান রকম চিন্তা করতে পারে তাই আর গেলাম না আবার কেউ কেউ অপমান ও করতে পারে আবার আমার খালি পা দেখে ভেবে বসে বলতে পারে আমি নেশাখোর টাইপ কেউ কিনা তাই মাথা নিচু করে হাঁটা ধরলাম আমার মত। হাঁটতে হাঁটতে রেললাইনের একটু অন্ধকারের দিকে এসে পড়লাম আর তখন দেখলাম একটা ছেলে মাথা নিচু করে বসে আছে আর তার মুখে জ্বলন্ত সিগারেটের আগুন দেখা যাচ্ছে। তখন মনে মনে চিন্তা করলাম এই ছেলেটার কাছ থেকে একটা সিগারেট চেয়ে খেতে হবে। যেই ভাবা সেই কাজ আমি তার কাছে হেঁটে গিয়ে তার সামনে দাঁড়িয়ে বললাম তাকে এই যে ভাই একটা সিগারেট হবে।ছেলেটি আমার কথার কোন উত্তর তো দিলো না এমন কী সে মাথা টা উচু করে আমার দিকে তাকালো ও না। আমি আবার একটু গলা খাকরিয়ে তাকে বললাম ভাই আপনার কাছে কী একটা সিগারেট হবে। এইবার ছেলেটি আমার দিকে না তাকিয়ে প্যাকেট এগিয়ে দিলো আমি একটা সিগারেট নিয়ে তাকে বললাম ভাই আগুন টা একটু দেয়া যাবে। ছেলেটি আবার মাথা নিচু করে সিগারেট খেয়ে যাচ্ছে কিন্তু আমাকে ম্যাচ লাইট বা আগুন কিছুই দিলো না। মেজাজ টা খারাপ হতে যাচ্ছে। এইবার একটু জোরে ছেলেটিকে বললাম ভাই সিগারেট দিয়েছেন আগুন অথবা ম্যাচ টা তো দেবেন। ছেলেটি তার হাতের ম্যাচ আমাকে এগিয়ে দিলো আমি সিগারেট ধরাতে গিয়ে আগুনের যে আলোর বিকিরন ঘটলো সেই আলোতে ছেলেটার পুরো অবয়ব একবার দেখে নিলাম। চিকন পাতলা গড়নের ছেলেটি। এ দেখি সাজেদ! আমি অবাক হয়ে গেলাম। আর তার চোখের দিকে লক্ষ্য করে দেখলাম সে কাঁদছে তার চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। তখন আমার মাথায় ঢুকলো নিশ্চয় ওর কোন সমস্যা আছে। আর আমার সিক্সসেন্স বলে দিলো মোটামোটি ভালো সমস্যাই আছে সে। মাঝে মাঝেই সে রাগ করে বাসা থেকে বেড়িয়ে যায়। কিন্তু কখনও এভাবে কাঁদতে দেখিনি। কিন্তু আজকে নিশ্চয় বড় কোন কারণ আছে। নাহলে সে আমার দিকে একবারও ফিরে তাকাল না কেন বা আমার গলা শুনেও কি চিনে নাই না কি !!

আমি সিগারেট ধরিয়ে তার পাশে বসলাম। পাশে বসে সিগারেট খাচ্ছি আর আকাশের দিকে তাকিয়ে মেঘের আর চাঁদের লোকচুরি খেলা দেখছি,খুব ভালো লাগছিলো আর মাথায় যে সিগারাটের নেশা চেপে ছিলো সেটা ও চলে গেছে। আমি সিগারেট টানছি হঠাৎ করে সাজেদের গলার আওয়াজ ভাই আপনার সমস্যা কি? আমাকে বিরক্ত কেন করছেন প্লিজ আপনি জানতো আমাকে একটু একা থাকতে দিন। আর সিগারেট যদি আরো লাগে নিয়ে যান। আমি তখন বুঝতে পারলাম যাক খুব ভালোই কষ্টে আছে সাজেদের। আমি সাজেদ কে জিজ্ঞেস করলাম ভাইয়া কিছু যদি মনে না করো আমি কী তোমার সাথে কিছুক্ষন কথা বলতে পারি। তোমার নাম টা কি জানতে পারি ?? সে তখন তার নাম না বলে আমাকে অবাক করে দিয়ে বলে, হিমু ভাই তোমাকে চিনতে পেরেছি কিন্তু এখন আমার কারো সাথে কথা বলতে ইচ্ছে করছে না, তুমি প্লিজ যাও। আমি আবার তাকে জিজ্ঞেস করলাম এইখানে একা একা বসে কাঁদছিস কেন ?? কী হয়েছে আমাকে কী বলা যায় না ?? আমি না তোর আইডল ?? তখন সাজেদ জোর গলায় ধমকের সূরে আমাকে বলল তোমাকে না যেতে বলেছি! কেন শুধু শুধু আমাকে বিরক্ত করছ? আমি তাহার এই জোরে ধমকের সুরে দমে যাবার পাত্র নয়। কারন আমি হিমু আর আমার বাবা আমাকে সব কিছু কিভাবে উপেক্ষা করে চলতে হয় তা তিনি আমাকে খুব সূক্ষ্ম ভাবে শিখিয়ে দিয়েছেন। আর তাই আমি সাজেদের ধমকের কথা মাথায় না নিয়ে তাকে আবার জিজ্ঞেস করলাম ভাইয়া কী হয়েছে তোর এইখানে বসে আছিস কেন। আর কাঁদছিস বা কেন আমাকে তুই বলতে পারিস আর না হয় আমার একটু কষ্ট করতে হবে আর তুই তো জানিস আমার সিক্সসেন্স খুব ভালো। আর আমার সিক্সসেন্স বলছে তুই এইখানে এসেছিস সুইসাইড করতে অনেকক্ষণ ধরে চেষ্টা ও করছিস কিন্তু সাহসে কুলাতে পারছিস না। তবে এইবারের ট্রেন আসলে ঠিক তুই ঝাঁপ দিবি বলে ঠিক করেছিস। আর তাই ট্রেন আসার অপেক্ষা করছিস আর সিগারেট খেয়ে সময় পার করছিস। কি ঠিক না। এইবার সে আমার আমার দিকে ফিরে তাকালো। আর বললো তোমাকে নিয়ে ভালোই সমস্যা। হিমু হতে চাইলে হতে দিবে না, মরতে আসছি, সেটাও দিচ্ছ না, কোত্থেকে হাজির হলে তুমি এখানে ?? শুন, আমি হলাম হিমু। আর আমার কাজ ভবঘুরের মত রাতের বেলায় রাস্তায় হেঁটে বেড়ানো, আর আমার বাবার শেষ ইচ্ছা আমাকে মহাপুরুষ বানাবে সেই ইচ্ছা পুরোন করার জন্য রাতের বেলায় ঘুরে বেড়াই। মাঝে মাঝে কিছু জায়গায় প্রয়োজনে পৌঁছে যাই, সেভাবেই এখন তোর সামনে আমি। কি হয়েছে তোর? বল তো। সাজেদ এতদিন ধরে আমার সাথে আছে, কখনও ওর বিষয়ে কোন কিছু আমি জিজ্ঞেস করিনি। আজকে প্রয়োজনে করতে হচ্ছে। সে বলল একতো বিশ্ববিদ্যালয়ের সেমিষ্টার ড্রপ হয়েছে। তার ভেতর প্রেমিকা তাকে ছেড়ে অন্য একজনের সাথে এখন চুটিয়ে প্রেম করছে। আর বাসায় সেমিষ্টার ড্রপের কথা বলেছিলো তখন আব্বু মেরেছে আর আম্মু বকেছে এত সব যন্ত্রণা নিয়ে সাজেদ হতাশ হয়ে পড়েছে আর তার এই সেমিষ্টার ড্রপের কারন তার প্রেমিকা তাকে ছেড়ে চলে গেছে বলে। আর সাজেদ বেঁচে থাকাটা মুল্যহীন ভেবে আজ সে সুইসাইড করতে এসেছিলো। সাজেদের কথা গুলো শুনার পর আমার মায়ের কথা মনে পড়ছিলো আমার মা যদি বেঁচে থাকতো তাহলে হয়তো আজ আমি হিমু না হয়ে বড় কোন ডাক্তার, বা ইঞ্জিনিয়ার হতাম। আর সাজেদ প্রেমিকার কথা ভেবে আমার খুব রুপার কথা মনে পড়লো রুপা আমাকে কত ভালোবাসে এই একটা মেয়ে যে কিনা আমাকে পাগলের মত ভালোবাসে আমার সব পাগলামি মানে এই হিমু মহাপুরুষগিরি সব কিছু সহ্য করে প্রতি জোছনা রাতে আমার জন্য আমার পছন্দের নীল শাড়ী পড়ে ওদের বাড়ির বারান্দায় অথবা ছাদে দাঁড়িয়ে আমার জন্য অপেক্ষা করে। আর আমি কিনা তার এই অতিমাত্রায় ভালোবাসা উপেক্ষা করে হিমুগিরি আবেগহীন মানুষ হয়ে ভবঘুরের মত ঘুরে বেড়ায়। শুধু মাত্র আমার বাবার ইচ্ছা পুরুন করার জন্য। এই সব ভাবতে ভাবতে মনে হল আহারে প্রেম আজকাল প্রেম মানে সময় পাস করা, আজ একে ভালো লাগেছে কাল ভালোলাগেনি বাদ দিয়ে পুরশু আবার আরেক জনের সাথে। সব কিছুই মোহ। একটা মোহ নামের গোলক ধাঁধা,আর এই গোলক ধাঁধার নাম দিয়েছে ভালোবাসা। আসলে ভালোবাসা বলতে আমার কাছে মনে হয় কিছুই নেই। সব কিছু অভিনয়। যদি ভালোবাসা থাকতো তবে কেউ কাউকে ছেড়ে চলে যেতে পারতো না?? ভালোবাসা বলতে তো আবেগ একজনের প্রতি আরেক জনের অনুভূতি তাই না ? তাহলে কিভাবে এই আবেগ মায়া অনুভূতি ভুলে তাকে ছেড়ে চলে যাই বা অন্য একজন কে ভালোবাসে ?? আমার মতে এইটা কোন ভালোবাসা নয় এই গুলো ভালোবাসা বা প্রেম প্রেম খেলা এক ধরনের ইমোশন ইমোশন গেম। আর এই গেমে প্রথমে দুজনে দুজনের ইমোশন বদলা বদলি করে, আর তারপর শুরু হয় কে কার ইমোশন ডাস্টবিনে ফেলে দিয়ে গেমে জয়ী হতে পারে। যে জয়ী হয় তার সারাজীবন মুখে বিজয়ের হাসি ফুটে থাকে আর যে হেরে যাই তার সারাজীবন চোখের জলে বালিশ ভেজে আর নিজেকে তিলে তিলে শেষ করতে শুরু করে।আমার বাবা ঠিক করেছেন আমাকে হিমু হবার মহাপুরুষ হবার রাস্তা দেখিয়ে দিয়েছেন তা না হলে আমার ও হয়তো হতে পারতো সাজেদের মত পরিস্থিতি আমি হয়তো এইরকম সুইসাইড করতে আসতাম। কিন্তু এত কিছুর পরে ও মনে হয় রুপা আমাকে সত্যিকারের ভালোবাসে আর তার এই ভালোবাসা একদম খাঁটি এইটা কেন বললাম তার কারন রুপা খুবই সুন্দুরী আবার অনেক ধনী পরিবারের মেয়ে তাকে পাবার জন্য অনেক ছেলে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে আবার কেউ কেউ হয়তো লাইনের সিরিয়াল নিয়ে মারামারি ও করছে একটু আগে যদি যাওয়া যাই। কিন্তু রুপা কারো সাথে প্রেম করেনি বা কারো কাছে যাই ও নি। তাকে আমি এত অবহেলা করি কিন্তু তারপর ও সে আমাকে ভালোবাসে আমাকে একটু খানি স্পর্শ করতে চাই, আমার সাথে জোছনা বিলাস করতে চাই। আচ্ছা আমি রুপার কথা ভাবছি কেন? আমি হিমু , আমি মহাপুরুষ হতে চাই আমার এই সব প্রেম ভালোবাসা, আবেগ মায়া জড়ানো যাবে না। আর আমার বাবা তার পুত্রের জন্য যে আদেশ লিখেগেছে সে খানে খুব ভালো করে লিখা আছে , প্রেম , ভালোবাসা, আবেগ , মায়া এই সব কিছু হতে দূরে থাকতে। এই সকল কিছুর সাথে জড়িয়ে গেলে তুমি মহাপুরুষ হতে পারবে না , তোমাকে আবেগের বাহুডোরে বন্দি করে ফেলবে। তুমি গৃহ ত্যাগ করতে পারবে না গৃহ তোমাকে টেনে ধরবে।
আমি সাজেদের সব শুনে তাকে কিছু উপদেশ দিতে যাবো কিন্তু তার আগে সাজেদ বলে বসলো হিমু দা আমাকে তোমার মত হিমু হতে হবে। আমি ও তোমার সাথে হাঁটবো। আর রুপা আপুকে একবার দেখবো তুমি কি আমাকে দেখাবে।আমাকে তোমার শিষ্য বানিয়ে নাও না। এর আগে তো বহুবার ফিরিয়ে দিয়েছ, এবার তো দিও না প্লিজ। এই কথা শুনে তো আমি পুরা অবাক !!!!! তাহলে আমি এতক্ষণ যা কিছু ভাবছিলাম তা কি জোরে জোরে বলছিলাম ??? আমি তখন আর একটা সিগারেট ধরলাম আর খুব তৃপ্তি সহকারে আয়েশ করে টানছি। মন টা ভালো লাগছে ফুরফুরা লাগছে হতাশগ্রস্ত একটি ছেলে কে বেঁচে থাকার আনন্দ টা বুঝাতে পেরেছি। সে এখন বাঁচতে চাই তবে হিমু হয়ে সকল প্রেম, ভালোবাসা, আবেগ , মায়া উপেক্ষা করে বাঁচতে চাই।

৩৫২জন ৩৫০জন
0 Shares

১২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য