হারিয়ে যাচ্ছে যে সব প্রাচীন ঐতিহ্য—২

জি.মাওলা ৩১ অক্টোবর ২০১৩, বৃহস্পতিবার, ১২:৩১:৪১পূর্বাহ্ন বিবিধ ১০ মন্তব্য


হারিয়ে যাচ্ছে যে সব প্রাচীন ঐতিহ্য—২

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী উরুন-গাইন/ডাইল-চিয়া বিলুপ্তির পথে

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী গ্রামীন বধূদের পছন্দের উরুন-গাইন/ডাইল-চিয়া ও ঢেঁকির ঢুং-ঢাং শব্দ আর শোনা যায় না। কালের বিবর্তনে এখন বিলুপ্তি প্রায় এ দুটি সরল যন্ত্র। আজ থেকে ২০-২৫ বছর পূর্বেকার কথা গ্রামীণ জনপদে গৃহবধূরা উরুন-গাইন /ডাইল-চিয়া ও ঢেঁকির মাধ্যমে ধান ভাংতো, চালের আঠা বানিয়ে নানান ধরনের পিঠা-পুলি বানাতো। এখন ওইসব গ্রামীণ জনপদে আর দেখা মিলছে না উরুন-গাইন /ডাইল-চিয়া ও ঢেঁকির । ঢেঁকি ও উরুন-গাইন দুটিই সরল যন্ত্র। এ দুই এর কাজও এক। বর্তমানে ঢেঁকি দেখা গেলেও দেখা মিলছে না উরুন-গাইনের।
>>এখনকার প্রজন্মের ছেলে-মেয়েরা আর কিছুদিন পর উরুন-গাইন/ডাইল-চিয়া কি জিনিস এবং এ দিয়ে কি কাজ হতো তা জানবে না ।

>>আগে গ্রামের মানুষেরা বড় বড় গাছ-পালা কাটার পর চিন্তা করতো ওই গাছের মুড়াটা তুলে একটা ভালো মানের উরুন /ডাইল বানাতো এবং ভালো শক্ত সোজা ডাল থেকে একটা গাইন/চিয়া তৈরী করতো।

>>আজ আর এসব চোখে পড়ে না। আগের দিনে বিয়ে-সাদী হলে মেয়ের বাপের বাড়ী থেকে স্বামীর বাড়িতে উরুন-গাইন /ডাইল-চিয়া দেয়া হতো এবং ওইগুলো দিয়ে গৃহবধূরা ধান ভাঙ্গিয়ে চাউল এবং চাউলের আঠা বানিয়ে পিঠা-পুলি তৈয়ার করতো।

আর এখনকার গ্রামীণ বউ-ঝিঁরা ধান ভাংগাতো দূরের কথা চাউলের আঠা তৈয়ার করার জন্য বিদ্যুৎ এর মেশিনে নিয়ে যায়। এখন সবকিছু বিদ্যুতের সাহায্যে চালিত মেশিনে করা হয়। তাই উরুন-গাইনের প্রয়োজন নেই। শীত মওসুম এবং পার্বনগুলোতে দিন-রাতে গ্রামীণ বধূদের উরুন-গাইন/ডাইল-চিয়া -এর ঢুং-ঢাং শব্দ এখন আর নেই বললেই চলে। সবমিলিয়ে গ্রাম বাংলার সেই ঐতিহ্যবাহী উরুন-গাইন/ডাইল-চিয়া এখন বিলুপ্তির পথে।
তেমনি ঢেঁকি চাঁটা চাল ও আর করে না গৃহ বধূরা। সব যে বিদ্যুৎ মেশিনেই করা হয় অল্প সময়ে অল্প শ্রমে।

৪১৫জন ৪১৭জন
0 Shares

১০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

️️ 🍂️️ 💝 ️️ 🌟 🌺 💐 💥 🌻 🍄 🌹 💐 ⭐️ 🎉 🎊