স্মৃতি ফিরে দেখা

হালিমা আক্তার ১৩ আগস্ট ২০২২, শনিবার, ০৩:৩১:১৫অপরাহ্ন স্মৃতিকথা ২০ মন্তব্য

চাটি না মাটি।

ফুটলে ঘটি।

ফুটলে দিবি।

না ফুটলে নিবি।

আমাদের ছোট বেলার কাদামাটি দিয়ে খেলা। খেলার সঠিক নাম আজ আর মনে নেই। আঠালো মাটি সংগ্রহ করে তা দিয়ে ঘটির মতো বানিয়ে ফুটানো হতো।কি অপরূপ খেলা। এখনকার ছেলেমেয়েরা চিন্তা করতে পারবেনা কাদামাটি দিয়ে খেলা যায়।

বন্ধু মুক্তার টাইম লাইনে মাটি দিয়ে তৈরি খেলনা হাড়ি পাতিলের ছবি দেখে হারিয়ে গেলাম শৈশবের সেই সোনা ঝরা দিনগুলোতে। মাটি দিয়ে হাড়ি পাতিল সহ নানা তৈজসপত্র বানাতাম। মিছিমিছি রান্না করে তাতে আবার খাওয়া হত। শুধু কাদামাটি দিয়ে নয়, নানা রকম খেলা ছিল আমাদের সময়।

চুড়ি ভাঙ্গা দিয়ে খেলতাম। মা, চাচি, খালাদের চুড়ি ভেঙ্গে গেলে তা সংগ্রহ করে রাখতাম। চুড়ি ভাঙ্গা গুলো কয়েকটি মাটির টিবির মতো বানিয়ে, কোন একটির মধ্যে লুকিয়ে রাখা হতো। অপর পক্ষ বলতে পারলে চুড়ি ভাঙ্গা নিয়ে নিবে। না বলতে পারলে সম পরিমাণে চুড়ি ভাঙ্গা দিয়ে দিবে।

খুব জনপ্রিয় ছিল পুতুল খেলা। কনে পুতুল, বর পুতুল বানিয়ে বিয়ের আয়োজন করা হতো। সেই বিয়ের আয়োজন কিন্তু কম ছিল না। হাতে লেখা নিমন্ত্রণ পত্র। অতিথিদের আপ্যায়নের জন্য ব্যবস্থা করা হতো। কোথায় হারিয়ে গেল মধুর সেই দিনগুলো।

মাটিতে দাগ কেটে খেলা হতো কুতকুত। ছিল রশি লাফ। গোল করে বসে রুমাল চোর খেলা হতো। আয় রে আমার বেলি। বেলি বলে ডাকতেই অপর পক্ষে একজন যার ছদ্মনাম বেলি চোখ বাঁধা কপালে টোকা দিয়ে যেত‌। খেলাটির নাম ছিল ফুলটোকা। খেজুর দানা দিয়ে খেলা হতো চার গুটি। পাথর সংগ্রহ করে খেলা হতে পাঁচ পাথরের খেলা।

আমাদের সবাই খেলাগুলো ছিল প্রকৃতি ঘেঁষা। প্রকৃতির ধুলো মাটির সাথে জড়িয়ে ছিল আমাদের শৈশব। জীবন ছিল প্রকৃতির মত উজ্জ্বল উচ্ছল। বর্তমান সময়ই শিশুরা প্রকৃতি থেকে অনেক দূরে। খেলার সময় কোথায় তাদের। সারাদিন পড়াশোনা আর পড়াশোনা। জীবন যেন যন্ত্রের মত চলছে। যেটুকু খেলাধুলা করে সেটাও যন্ত্র নির্ভর।

সময়ের সাথে অনেক কিছু পরিবর্তন হয়েছে এবং পরিবর্তন হবে। এই পরিবর্তনকে সাথে নিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। আমরা দল বেঁধে খেলা করতাম। সমবয়সীরা দলবেঁধে গল্প করতাম। এতে করে পারস্পরিক বোঝাপড়া ছিল চমৎকার। খেলার সাথীদের সাথে আত্মার সম্পর্ক গড়ে উঠতো। কোথায় হারিয়ে গেল সেই দিন গুলো। মনের অজান্তেই বেজে ওঠে – তোমরা ভুলেই গেছ মল্লিকাদের নাম।

ছবি সংগ্রহ- নেট থেকে।

 

 

১৯৯জন ৬০জন
0 Shares

২০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ