স্বাধীনতার সুখ।

গাজী বুরহান ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭, মঙ্গলবার, ০৯:৫৮:৫৭অপরাহ্ন কবিতা ১০ মন্তব্য

(একজনের কবিতা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে)

এখানকার সবচেয়ে ব্যস্ততম দিনে
প্রচুর জনসমাগম ‘ভাইভাই’ নামক রেস্তোরাঁর
ঠিক মধ্যিখানে একটি চেয়ারের উপর বসে আছি।
হাহাকারযুক্ত নিঃশ্বাস
হইহই কলরবের মাঝে আছাড় খেয়ে পড়েছে।
এক ছোকরা কিছুক্ষণ পরপর
স্থানীয় ‘বাংলা টিস্যু’ নামক গেজেট দিয়ে
আমায় যেন অভিবাদন জানাচ্ছে।

‘এক কাপ চায়ের’ ফরমাশি জানিয়ে
আবারো আড়মোড় ভেঙ্গে বসে আছি।
ছোকরা ‘চা’ দিয়ে ‘সামনে তিরিস’
চিৎকার দিয়ে চলে গেল।
খুব আরাম করে চা’টি খাচ্ছি।।

এরই মাঝে পাশের টেবিলে এক হুজুর
তাবিজ লিখে দিচ্ছেন..
“সাবধান! তুমার সাথে কবর-জীন্নাত,
তাবিজটি বামহাতে
তিনবার বিসমিল্লাহ্‌ বলে বেঁধে দিও।
ইনশাআল্লাহ্‌ রোগমুক্তি হবে।”
খুব আরাম করে চা’টি খাচ্ছি।।
ভাবছি..
এত সাহস এদের কে দিল??

আমি জানি,
একটি কবিতার উপজীব্য হবার মতো
কিছুই নেই এখানে।
প্রতিদিনের মত হৈ হৈ কলরব চলছে
তো চলছেই।
ক্ষুদ্র চুরূটের ধোঁয়াতে আচ্ছন্ন চারপাশ।
এক ছোট গলির মত রেস্তোরাঁয়
এত বিষয় নিয়ে আলোচনা!!
সাহস কে দিল??
পাশের হাটের সুপারিচুরি, জমিজমা থেকে
বার্মার মুসলিম
গণহত্যা পর্যন্ত আলোচনা!!
এত সাহস কে দিল??
এরই মাঝে কিছু লোকের এত বাড়ন্ত সাহস..
অন্যের উপর চা’খেয়ে কথারতুবড়ি,
মধ্যরাতে একটি পান মুখে নিয়ে
হাট থেকে হয় বাড়ি পথের যাত্রী।

এতকিছু করে লোকজন! কিভাবে?
এরই নাম কি স্বাধীনতা??
তাই তো..
আমি হাটছি, ঘুরছি.. কোন বাঁধা নেই।
এই তো স্বাধীন আমি।
কবিতা লিখছি…।
যা ইচ্ছে তাই লিখে কবিতা বলে চালিয়ে দিচ্ছি।
কার সাহস? কিছু বলবে..
আমি স্বাধীন।।
ন’মাস রক্ত ঝরিয়েছে মুক্তি দল
কি.. এম্নি এম্নি??
বঙ্গবন্ধু জেল খেটেছে..
শহীদ জিয়া না খেয়ে থেকেছে
দিনের পর দিন।
আতাউল গণি ঘাম ঝরিয়েছে।
একখণ্ড স্বাধীন ভূমির জন্য।
বড়ছেলে না..
আজাদ ছিল মায়ের একমাত্র ছেলে..
তবুও সে জীবন দিয়েছে।
আমার জন্য, আমাদের জন্য।।
ধন্যবাদ হে নাম না-জানা বীরের দল।
এজন্য যে..
দিনশেষে অশ্রু মুছে
শত হতাশার মাঝেও বলে উঠি..
আজ আমি স্বাধীন।
আজ আমি মুক্ত।
স্বাধীনতার এ এক অবর্ণনীয় সুখ।।

২৮৮জন ২৮৬জন
0 Shares

১০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য