স্পনটেনিয়াস

নীলাঞ্জনা নীলা ৬ এপ্রিল ২০১৭, বৃহস্পতিবার, ১০:০৮:০৯পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি, কবিতা ৩৬ মন্তব্য
?????????????......
?????????????……

তুই, যাকে আমি কোনো এককালে ভালোবেসেছিলাম। উদ্দেশ্যহীনভাবে ভালোবেসেই যাচ্ছিলাম। বিষণ্ণ ছায়া ভেবে কখনোবা ক্যামেলিয়া ফুল। কখনো দেখেছিস ক্যামেলিয়া ফুল দেখতে কেমন? প্রেমহীন আলোর ভেতরে আমি খুঁজে যাচ্ছিলাম নীল আগুণ। যেখানে রোজ নিজেকে জ্বালাতে আর পোড়াতে রেখে দিতাম শুকনো কাঠের মতো। জানিস কয়লা যখন আগুণে পোড়ে সে কাঁদে? শুধু তার নাম দিয়েছি স্ফুলিঙ্গ। রোজ কতো কতো হৃদয় মরে যায়, সে কথা জেনে বুঝেও তোর ওই শ্যাওলা পথেই পা রেখেছিলাম।

কমা, সেমিকোলনের মতো সবগুলো বিষাদীয় সমস্যা উপুড় করে রেখে এসেছিলাম পুরোনো খাতার ভেতর। রাশিয়ান নভেলের মতো শীতল-যাপন সময়টুকুকে অন্য এক অধ্যায়ের পরিচ্ছেদে ফেলে রেখে চলে এসেছিলাম। কি বোকা আমি! ভালোবাসা মানুষকে বোকা করে দেয়, জানতাম। কতোবার লিখেছি কবিতায় এবং গল্পেও। তোকে না সবার থেকে আলাদা ভেবেছিলাম, এই পৃথিবীতে তুই একাই এমন একজন। বিবর্তনে শরীর বদলেছে শুধু। মানুষের ভেতর এখনও ধূর্ত পশুর মতো কিছু নাপাক চরিত্র থেকেই গেছে। তুইও যে মানুষ, আমিও।

আমার অপরাধ নিজেকে পাল্টে ফেলে তোর ইচ্ছেমতো হয়ে যাওয়া। অরণ্যের মাদকতা, মরুভূমির ক্যাম্পফায়ার, সমুদ্রের নোণা জল, আকাশের মায়াময়তা সবকিছুই এ জীবনে ছিলো। আমার স্পনটেনিয়াস জীবনকে পাহাড়ের মতো স্থির করে এনে তোর কাছেই রেখেছিলাম। ওটাই আমার ভুল ছিলো। রোজ বহু হৃদয় ভাঙ্গে, তারপর একদিন মরে যায়। তবে আমি মরে যাইনি, এই দ্যাখ দিব্যি বেঁচে আছি। মরে গিয়ে বেঁচে গেছিস তুই আর আমি বেঁচে থেকে আবার ফিরে পেয়েছি আমার স্পনটেনিয়াস জীবন। কি করবো বল, নিঃশ্বাসের গলা টিপে ধরার সাহস আমার নেই!

হ্যামিল্টন, কানাডা
২৮ মার্চ, ২০১৭ ইং।

৪৪৯জন ৪৪৭জন
2 Shares

৩৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ