মাত্র কয়েকদিনের ব্লগার আমি। দিন হিসেব করলে এই কদিনের অভিজ্ঞতা দিয়ে কিছুই লেখা হবে না। তবে সোনেলায় আমি নতুন হলেও নতুন নয়। প্রায় সাত মাসের অধিক সময় আমি সোনেলার নিয়মিত পাঠক। কারো কাছ হতে সোনেলার নাম শুনে এই ব্লগে আসিনি আমি। গত ২০১৯ সনের বই মেলায় বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেয়ার সময় এক বন্ধুর কাছে একটি তথ্য জেনে হতবাক হয়ে গেলাম। বাইবেল এবং রামায়ন দুটো ধর্ম গ্রন্থ এর অনুবাদ করা বই নাকি নিষিদ্ধ করা হয়েছিলো। কোনো ধর্ম গ্রন্থ স্ব স্ব ধর্মের শাসকগন কর্তৃক নিষিদ্ধ হতে পারে এমন ধারনা আমার ছিলোই না।অনলাইনে সার্চ দিলে নাকি এর ডাউনলোড লিংক ও পাওয়া যেতে পারে। বন্ধুর কাছ থেকে লেখক দ্বয়ের নাম লিখে বাসায় ফিরে গুগলে সার্চ দিলাম এটি লিখে
“দ্য রামায়ানা অ্যাজ টোল্ড বাই অব্রে মেনেন” ।
সার্চে কয়েকটি সাইটেই এমন পেলামঃ
১। বিডি লাইভ টুয়েন্টি ফোর ডট কমে, শিরোনামঃ পৃথিবীর ইতিহাসে বিতর্কিত কিছু নিষিদ্ধ বই’র কথা জেনে নিন। এই লেখায় কোনো তথ্য সুত্র নেই।
২। পলিটিক্স নিউজ টুয়েন্টিফোর ডট কমে , শিরোনামঃ বিশ্বের কিছু নিষিদ্ধ বইয়ের গল্প। এই লেখায় শিরোনাম দেয়া আছে সোনিলা ব্লগ। 

৩। ট্রু লিডারশীপ ওয়ার্ড প্রেসে   শিরোনামঃ বিশ্বের কিছু নিষিদ্ধ বইয়ের গল্প। এই লেখায় সূত্র দেয়া আছে গুগল এর।

পাঠক বুঝলেন কিছু? এই তিনটি লেখার মধ্যে পলিটিকস নিউজ প্রথম পোষ্ট দিয়েছিলো। তা দেখে বিডি লাইভ এবং ট্রু লিডারশিপ ওয়ার্ল্ড পোষ্ট দিয়েছে। বিডি লাইভের লেখক মহা চোর আর ধান্ধাবাজ। বেটায় কোন সুত্রই উল্লেখ করেনি। ট্রু লিডারশিপ ওয়ার্ল্ড সুত্র উল্লেখ করেছে গুগলের। পলিটিক্স নিউজ সুত্র দিয়েছে সোনিলা ব্লগ। এই সোনিলা ব্লগটা আবার কি?  কখনো নাম শুনিনি এর। বুঝলাম এটিও কপি পেস্ট লেখা, সৌজন্যর খাতিরে শুধু তথ্য সুত্র দেয়া।  আমার মুল লেখাটি খুঁজে পেতেই হবে। পলিটিক্স নিউজের পোষ্টের শিরোনাম বিশ্বের কিছু নিষিদ্ধ বইয়ের গল্প। বিশ্বের কিছু নিষিদ্ধ বইয়ের গল্প লিখে গুগলে সার্চ দিলাম আবার।
লিখে সার্চ দিলাম আবার গুগলে। পেয়ে গেলাম মুল লেখার লিংক। ব্লগার অর্বানীল এর বিশ্বের কিছু নিষিদ্ধ বইয়ের গল্প…।  অবশেষে সফল আমি 🙂 সম্পুর্ন লেখাটি কেবল মাত্র সোনেলাতেই পেলাম।

বুঝতে পারলাম এবার সব কিছু। পলিটিক্স নিউজের লেখক ভুল করে সোনেলা ব্লগ না লিখে সোনিলা ব্লগ তথ্য সুত্র দিয়েছেন। হুবহু কপি করে পোষ্ট দিয়েছেন। পলিটিক্স নিউজ থেকে বিডি লাইভ টুয়েন্টি ফোর ডট কমের লেখক হুবহু কপি করে দিয়েছেন। মূল লেখাটি সোনেলা ব্লগেরই।
আমি খুবই অবাক হলাম সোনেলা ব্লগের পোষ্ট দেখে। এত দামী এবং জরুরী একটি লেখা সোনেলা ব্লগে! এর তেমন প্রচারও নেই। কজনই বা জানেন এমন একটি ব্লগ আছে বাংলা ব্লগ জগতে!  সেই যে সোনেলায় এলাম, আর গেলাম না। পাঠক হিসেবে নিয়মিত কিছুক্ষনের জন্য আসতামই সোনেলা ব্লগে। পুরাতন লেখার সাথে সাথে নতুন ব্লগারদের লেখাও পড়া আরম্ভ করলাম। সোনেলার সমসাময়িক পোষ্ট গুলো অসাধারন। কয়েকজন কবি আছেন যারা খুব ভালো কবিতা লেখেন। গল্প লেখক কম নয় এখানে। তবে মুভি রিভিউ এবং টেকি পোস্টের অভাব আছে এখানে।

সোনেলা ব্লগের যা ভালো লাগে তা হচ্ছেঃ
এই ব্লগের ব্লগারদের আন্তরিকতা, স্বতঃস্ফূর্ততা। অন্যন্য ব্লগে যা বিরল। অন্যান্য ব্লগ ঝিমানো, সোনেলা ব্লগ জাগ্রত এবং অত্যন্ত গতিশীল একটি ব্লগ।

সোনেলা ব্লগের যা খারাপ লাগে তা হচ্ছেঃ
১। ব্লগের মডারেটর এবং ডেভলপার এর পরিচয় সবাই জানে। এটি অত্যন্ত গোপন বিষয় বিধায় তা প্রকাশ্যে আনা ঠিক হয়নি। এতে মডারেটর বা ডেভলপার স্বাধীন ভাবে লিখতে পারেন না, অর্থাৎ তাঁদের লেখা অন্য ব্লগারগণ সাধারণ ব্লগ হিসেবে নিতে পারার কথা নয়।
২। পোষ্টে গঠন মুলক সমালোচনা নেই বললেই চলে। সম্ভবত ব্লগারদের মনে কষ্ট লাগবে একারনে কেহই সমালোচনা করেন না। এতে কিন্তু ব্লগারদেরই ক্ষতি করা হচ্ছে। গঠনমূলক সমালোচনাই পারে একজন ব্লগারকে সঠিক লেখার পথ দেখাতে। আমার লেখায় আমি কঠিন সমালোচনা চাই। ভালো না লাগলে বলবেন কেন ভালো লাগলো না। ভালো লাগলেও বলবেন কেন ভালো লাগলো। আবার ভালো হয়েছে আমার লেখা, এই অংশ বেশ দুর্বল- এমন সমালোচনা আমি চাই।

সোনেলার উঠোনে সামান্য একটু স্থান পেয়ে নিজেকে ধন্য মনে করছি।

আজ সোনেলার জন্ম বার্ষিকী। প্রতিষ্ঠার অষ্টম বছরে পদার্পণ করলো আজ। বাংলা ব্লগের ক্রান্তি কালে এত দীর্ঘ সময় যাবত একটি ব্লগ এত সতেজ ভাবে চালু রাখা সত্যিই প্রশংসার দাবীদার। সোনেলা ব্লগ আরো সচল হোক, লেখায় আরো সমৃদ্ধ হয়ে উঠুক আজকের এই দিনে এমন প্রত্যাশা ব্যাক্ত করছি আমি। আর সোনেলা সংশ্লিষ্ট সকলকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।

৩৯৮জন ৩১১জন
10 Shares

২০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য