ফেইসবুক জগতে আমি আসি ২০১২ সালে, সে সময়েই একজন মানুষের সাথে ফেইসবুক বন্ধুত্ব হয় যার নাম জিসান শা ইকরাম, উনার ব্যক্তিত্ব আমাকে এক সময় টানতে থাকে বিধায় আমি উনাকে ভাইজান ডাকা শুরু করলাম, উনি আমাকে একদিন সোনেলা ব্লগে আমন্ত্রণ জানালে আমি ব্লগে প্রবেশ করে লাইক দিয়ে বেরিয়ে এলাম, আসলে ব্লগ কি তা আমার জানা ছিলোনা, এক সময় লাইক দেওয়ার কারণেই ব্লগের প্রায় লেখা আমার নোটিফিকেশনে আসতে শুরু করলো, আমিও পড়তে লাগলাম, ব্লগকে জানতে লাগলাম।

এক সময় ব্লগারদেরকে কুপিয়ে খুন করা শুরু হলো, এতে ব্লগের প্রতি ভীতশ্রদ্ধ হয়ে উঠলাম, ব্লগের লেখায় পড়া ছেড়ে দিলাম। ২০১৬ সালের কোনো একদিন সোনেলার এক ব্লগার হুমকি দিলেন যদি কেউ সোনেলা ব্লগে না লিখেন তাহলে উনি কারো সাথে ফেইসবুকিয় সম্পর্ক রাখবেন না, কয়েকদিন পর দেখলাম উনি আমার লিস্টে নেই, মনে দুঃখ পেলেও চুপচাপ রইলাম।

সেই বছরের কোনো একদিন ইচ্ছে হলো সোনেলায় কি আছে দেখি, গেলাম পেইজে দিলাম উঁকি, ওমা কি সুন্দর সুন্দর লেখা আর ব্লগারদের গঠনমূলক মন্তব্য দেখে নিজেই পটে গেলাম, এরপর থেকে নিজে নিজেই সোনেলায় যায়, লেখা পড়ি কিন্তু মন্তব্য করতে গেলেই বিপত্তি, সদস্য ছাড়া মন্তব্য করা যায়না, বাধ্য হয়ে একাউন্ট করে দুই একদিন মন্তব্য করে চুপচাপ থাকতাম। 

এর মধ্যে বজ্রপাত নিয়ে একটা লেখা এলো মাথায়, ভাবলাম এটাই দিই, লিখে ফেললাম, ব্লগে প্রবেশ করে দিয়েই ফেললাম “ঠাডা” নামে। দিয়েই আমি ভৌঁ দৌড়, কয়েকদিন শুধু উঁকি দিয়ে দেখি সিনিয়র ব্লগাররা আমার লেখার গঠনমূলক আলোচনা করে মন্তব্য দিচ্ছে। এরপর আরও কিছু পোস্ট দিলাম, অন্যদের লেখায় মন্তব্য চলছে, সিনিয়ররা আমাকে লেখা শেখাচ্ছে, ভুল গুলো জানাচ্ছে, আমি শিখছি।

যিনি ধমকি দিয়েছিলেন উনি হলেন আমাদের সবার প্রিয় জিসান ভাইজান, উনি তো ডাবল উৎসাহ দিচ্ছেন আমাকে, আমি ধীরে ধীরে অলেখক থেকে লেখক হতে শুরু করেছি, আমার এই লেখার পিছনে জিসান ভাইজান, হেলাল ভাইজান সহ অন্যান্য ব্লগারদের আমি কৃতজ্ঞচিত্তে স্বরণ করি। 

এইভাবে শম্বুকগতিতে চলতে চলতে ভাবলাম একটা বড় গল্প লিখি, প্লট মাথায় ঘুরছিলো, শুরু করলাম “ভালোবাসি তোমায়”, লিখছি আর লিখছি, একটা পর্ব যায়, দুইটা যায় করতে করতে চল্লিশ পর্বে শেষ করলাম, ব্লগাররা সবাই মহা খুশি, এতো বড় লেখা আমি দিতে পারবো তাতো আমারই সন্দেহ ছিলো, খুবই সফল এক গল্প লিখে আমি গল্পকার, সাথে সমসাময়িক বিষয় ছিলো আমার আগ্রহের, তাও লিখতাম প্রচুর, চিকিৎসা, অদ্ভুতুরে লেখা, একান্ত অনুভূতি সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমি সিদ্ধহস্ত হতে শুরু করেছি, এর মধ্যে জিসান ভাইজান বললেন, ” ইঞ্জা ভাইজান খুব ভালো করছেন, এই ব্লগের বাইরে আর কোথাও যাবেননা”।
আমিও জবাব দিলাম, “প্রশ্নই উঠেনা ভাইজান”। 

এভাবেই বিচরণ করছিলাম সোনেলার প্রিয় প্রাঙ্গণে। ধীরে ধীরে সোনেলার পরিসর বৃদ্ধি পাচ্ছে। নতুন নতুন ব্লগারদের চমৎকার পোষ্ট গুলো আমাকে মোহাবিষ্ট করে দিচ্ছিল। আজকের দিনের সোনেলাকে দেখলে, আগের তুলনায় আরও  স্বয়ংসম্পূর্ণ দেখায় যা শুধু মাত্র ব্লগারদের একান্ত ভালোবাসার কারণে, সোনেলার ব্লগ কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ আমাদেরকে সেই ভালোবাসা এবং সম্মান দেওয়ার জন্য। 

আজকের দিনে আমি সোনেলায় তিনশতের উপরে পোস্ট দিয়েছি যার অক্লান্ত সাপোর্টে তা হলো সোনেলা ব্লগ। সোনেলার সাপোর্ট ছাড়া আমি অলেখক এখন লেখক হতে পারতাম না, আমার লেখক স্বত্বাকে চেনার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই জিসান ভাইজানকে। আশা করি যতদিন লেখার ক্ষমতা থাকবে, ততদিন আমি লিখে যাবো সোনেলার উঠোনে।

 আজ সোনেলা ব্লগ, সেরাদের সেরা ব্লগ হিসাবে সারা বিশ্বে সমাদৃত, ভালোবাসি সোনেলা তোমায়।
ভালোবাসি সোনেলার প্রতিটি ব্লগারকে।
ভালোবাসি সোনেলার সকল পাঠককে।

ভালো থেকো সোনেলা, তোমার জন্য আমি সবসময় অতন্দ্র প্রহরীর মতো আছি তোমার সাথে।

৩৭৬জন ৬৯জন
0 Shares

৪৭টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ