লেখালিখি করা আমার শখ। আমার কাছে মনের ক্ষুধা মেটানোর অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে লেখার মাধ্যমে পাঠকদের সাথে আনন্দ-বেদনাগুলি ভাগাভাগি করা। কিন্তু হুটহাটতো আর যেখানেসেখানে লেখা যায় না। লেখার পরিবেশ, পাঠক সংখ্যা, নিজের আত্মসম্মান এসবই যেখানে রক্ষা পাবে সেখানেই একজন লেখক বিচরণ করবে এটাই স্বাভাবিক।

এ কথা অনস্বীকার্য, লেখার জন্য উপযুক্ত প্লাটফরমটি সোনেলাই আমাকে দিয়েছে। সেই কৃতজ্ঞতাবোধ থেকেই সোনেলার জন্মমাসে পাঠকদের সাথে নিজের অনুভূতি শেয়ার করা উচিত বলে আমি মনে করি।

আমি লেখালিখি করি কেন?

ব্যক্তিগতভাবে আমি খুবই সহজ সরল অনাড়ম্বর জীবন যাপন করি। সহজ জীবনের সহজ আনন্দটুকু সবসময়ই আমি প্রাণভরে উপভোগ করতে চাই। আমি জীবনে সুযোগ সুবিধার অপেক্ষায় থাকি না, দুরাকাঙ্ক্ষায় ছোটাছুটিও করিনা। অতীতকে রোমন্থন করে কষ্ট পাবার চেয়ে বর্তমানকে নিয়ে থাকাটাকেই আমার কাছে আনন্দের মনে হয়।

সময়কে নিজের লেখনশৈলীতে আবদ্ধ করে সেটি সকলের সাথে শেয়ার করাটা আমার কাছে চ্যালেঞ্জিং একটি বিষয়। বলতে পারেন লিখতে বসলে সবসময়ই একধরনের রোমাঞ্চ অনুভব করি আমি। আর সেই ভালোলাগা থেকেই লেখালেখি করি। আমি মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি আমরা যারা লিখি তারা প্রত্যেকেই লিখতে ভালোবাসি বলেই লিখি।

সোনেলা’র শুরুর কথা-

সোনেলা ব্লগের যাত্রা যখন শুরু হয় তখন সময়টা বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী আপামর জনসাধারণের অংশগ্রহণে রাজাকার বিরোধী আন্দোলনের প্রথমার্ধের কথা। চারিদিকে গুনগুন, ফিসফিস আওয়াজে সেই আন্দোলন মহীরুহ রুপে শুরু হতে যাচ্ছে যাচ্ছে ভাব।

দেশে তখন রাজাকারদের ফাঁসির বিচারের বাণী শোনানোর অপেক্ষায় সবাই। এমন একটি শুভমাসের শুভক্ষণে জন্ম হয়েছিলো সোনেলার। সে কারনেই নিজের মন-প্রাণ দিয়ে বাংলা ভাষাকে, বাংলাদেশকে ভালবাসে এমন প্রতিটি মানুষের শরীরে সোনেলার সোনালী আভা লাগবে এটাই স্বাভাবিক এবং লেগেছিলও কিন্তু তাই। এসবই সোনেলায় আমাদের শ্রদ্ধেয় সিনিয়র ব্লগারদের লেখা এবং মন্তব্য থেকে জেনেছি।

আমি সোনেলায় কেন লিখি?

“সোনেলা ব্লগ” আমার কাছে একটি আবেগের নাম। সাহিত্যানুরাগীদের মনের কোণে ঘর করে নেয়া বিশেষ একটি অনুভূতির নাম। ব্লগিং জগতে সোনেলাকে আজ একটি ব্রান্ড হিসেবে সবাই চেনেন এবং জানেন। বিশুদ্ধ মননশীলতায় ভরপুর লেখকদের আনাগোনায় সোনেলা পাঠক হৃদয়ে বিশাল এক স্থান করে নিয়েছে নিজস্ব তার স্বকীয়তায়। এর প্রমান ব্লগের মূল সাইটে প্রবেশ করলেই পাওয়া যায়। আর এ কারনেই সোনেলায় লিখতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি আমি।

সোনেলায় যেভাবে এলাম-

অনলাইন জগতে আমি প্রথমের দিকে কেবল ফেসবুকেই লিখতাম। তখনো ব্লগ, ব্লগিং এসবের কিছুই বুঝতামনা। সোনেলা ব্লগে লেখার জন্য আমাকে আমন্ত্রণ জানিয়ে প্রথম যে মানুষটি আমাকে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন তিনি ব্লগার এম ইঞ্জা ভাই। মুলতঃ আমার লেখনীকে পাঠক সমাজে প্রকাশ্যে নিয়ে আসায় তার অবদান অনস্বীকার্য।

শত ব্যস্ততার মাঝেও শ্রদ্ধেয় জিসান ভাই সময় করে নিজেই আমার ব্লগ আইডি তৈরী করে দিয়েছিলেন। প্রথম যেদিন ব্লগে লগইন করি এবং লেখা পোষ্ট করি সেদিনের সেই আনন্দানুভূতি ভাষায় লিখে প্রকাশ করা এক কথায় অসম্ভব একটি কাজ।

সোনেলা ব্লগ এগিয়ে চলুক তার আপন গতিতে। সোনেলার জন্মমাসে সোনেলায় বিচরণকারী সকল ব্লগার, পাঠক এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের সর্বদা পাশে থেকে আমাদের উৎসাহ দেবার জন্য মন থেকে প্রাণঢালা অভিনন্দন এবং শুভেচ্ছা জানাই।

(চলবে…)

৩৪৫জন ৭০জন
0 Shares

৪৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ