সোনেলা দিগন্তে জলসিড়ির ধারে

সোনা বউ

ফারজানা আক্তার ২০ আগস্ট ২০২১, শুক্রবার, ০৫:১৬:৪১অপরাহ্ন কবিতা ২০ মন্তব্য

এই তো তুমি,আমার তুমি

আমার স্বপ্নের রাণী

তোমার প্রহরে গুনেছি দিন

সোনা বউ, কি!

 

টোপ পরা গালে কি লাজুকতা

আমার প্রথম কবিতা তোমাকে নিয়ে

আমার কল্পনার আচড়ে তোমায় গড়েছি

কখনও নিঃসঙ্গতায়,কখন কোলাহলে

কতজনের ভিড়ে তোমাকে খুজেঁছি,

একটা শূন্যতা সব সময় থেকেছে।

 

কখনও গান শুনতে,কখনও বৃষ্টিস্নাত

কখনও প্রভাতে,কখনও গোধুলীতে

কখনও ঝড়ো ঝাপটা রাতে

সুন্দর স্বপ্নে ভেঙ্গেছে ঘুম কত রাত্রি!

 

ভেবেছি দুজনে মিলে হাতটা ধরে,

ঘুরে বেড়াব দেশ বিদেশ-

ভ্রমণপিপাসু মন কত ভেবেছে।

 

সোনা বউ,কত ক্লান্তি বিকেল

মনে হয়েছে এই তো এসেছ-

এক কাপ চা হাতে কাচেঁর চুড়ির টুং টুং শব্দে,

তুমি সেজেছ আমার প্রিয় কিছু চাওয়াকে নিয়ে;

কেমন করে পেরেছো বলতো সোনা বউ!

 

তুমিও কি আমার মত মুখিয়ে ছিলে

দুজনের দেখা হবার প্রতীক্ষায়।

 

একসাথে জ্যোৎস্নারাত,বৃষ্টির রিমঝিম

সূর্যের চলে যাওয়া,ফিরে আসা

পড়ন্ত বিকেলে কখনও কনক্রিটের রাস্তা

কখন এবড়ো থেবড়ো পথ

কখনও হাতে হাত রেখে,নীরবে তাকিয়ে রইবে।

 

বল সোনা বউ,এভাবে চোখ ছল ছল কেন

আমার আজ পূর্ণতায় চোখ বেয়ে জল নয়

যেন খুশি,মাইল পথ পাড়ি দিবার খুশি

 

তুমি যখন শার্টের বোতাম আটকিয়ে

এলো চুলে সাজ দাও,মনে হয় বাঁচি হাজার বছর

দু জনের খুনসুটিতে দুজন ক্লান্ত হয় না

অন্যরা আড় চোখে দেখে

 তুমি আমি দিনকে দিন

এক সুতায় গাঁথি

 

সোনা বউ,,শুনছ কি? কি মোহতায়

কি মুগ্ধতায় কি বিতৃষ্ণায়

আজও আছি দুজনেছেলেপুলে যার যার জীবনে

দুজনে বুড়ো হয়ে একসাথে এতটা জীবন।

 

তবু ভাবি কি সুখ,তোমার স্নেহের পরশ

আমার জ্বর গায়ে সেবিকার রূপে ফির

মনে হয় হাজার বছর এমনি করে বাঁচি

২০৫জন ২০৫জন
0 Shares

২০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য