সুখ সন্দেশ

পার্থ সারথি পোদ্দার ২৬ মে ২০২০, মঙ্গলবার, ০২:২৯:৫৯অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৩ মন্তব্য

ভীড়ের মাঝে কেউ কেউ নীড়ের সুখ খুঁজেন আবার নীড়ের মাঝেও কেউ কেউ ভীড়ের সুখ খুঁজেন।কেনা-বেচার হাটে কি আর সুখের বিনিময় হয়?প্রখ্যাত ইংরেজ নাট্যকার উইলিয়াম শেক্সপিয়ার বলেন, “আমি সবসময় নিজেকে সুখী ভাবি কারণ আমি কখনো কারো কাছে কিছু প্রত্যাশা করি না।কারো কাছে কিছু প্রত্যাশা করাটা সবসময়ই দুঃখের কারণ হয়ে দাঁড়ায়।”

তাহলে বুঝা যায় প্রত্যাশা হল দুঃখের উৎস ভূমি।কোন কাজে প্রত্যাশা ত্যাগ করা রক্ত-মাংসের মানুষের পক্ষে সত্যি বড্ড কঠিন। হয়তো প্রকৃত সুখী মানুষেরা অদৃশ্য উচ্চাসনে আসীন।উনারা সাধারণ মানুষের মোহ সদৃশ বেগবান মোহের নাগপাশ থেকে বের হতে পেরেছেন বলেই উনারা সুখী।প্রত্যাশা,আকাঙ্খা,বাসনা ইত্যাদি যে নামেই ডাকা হোক না কেন এ যেন দূঃখকেই হাতছানি দিয়ে ডাকার নামান্তর।

প্রত্যাশা শূন্য বা ফল কামনা না করে কর্মের কথা সনাতন ধর্মে শ্রীমদ্ভাগবত গীতায় কর্মযোগ অধ্যায়ের ১৯ নং শ্লোকে বলা হয়েছে,

তস্মাদসক্তঃ সততং কার্যং কর্ম সমাচর

অসক্তোহ্যাচরন কর্ম পরমাপ্নোতি পূরুষঃ

 

যার অর্থ  দাড়াচ্ছে অতএব তুমি আসক্তি শূন্য হইয়া সর্বদা কর্তব্য কর্ম সম্পাদন কর।কারন অনাসক্ত হইয়া কর্মানুষ্টান করিলে পুরুষ পরমপ্রদ (মোক্ষ) প্রাপ্ত হন।

এই নিস্কাম কর্মের আদর্শে বলীয়ান হয়ে যারা চাতক পক্ষীর সুখ পান,তাদের কাছে ইহজাগতিক বাসনা হয়তো বিষ্টা সদৃশ।মোটাদাগে তাই বলা যায় সুখ সত্যি অনুভবের বিষয়।অনুভবে গুপ্ত থাকার কারনেই সুখের প্রাচুর্যে বিবিধ অসুখী মানুষ পাওয়া যায়।আবার বেদনায়ও সুখ পান কেউ কেউ চুপিসারে অনুভবের কতক রঙে!

প্রিয় কবি রুদ্র মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন,

“বেদনার পায়ে চুমু খেয়ে বলি,এইতো জীবন,এইতো মাধুরী,এইতো অধর ছুয়েছে সুখের সুতনু সুনীল রাত।”

 

অনুভবেই যদি সুখ লাভ হয় তবে সুখের চাবি আর কারো কাছে বর্গা না দেয়াই সমীচীন।হেসেখেলে জীবনটা চলে যাওয়ার স্বাক্ষী হতে পারাটাও একটা সুখ।নিজের আত্মার সাথে বাহ্যিক আমি এর নিরবিচ্ছিন্ন যোগাযোগেই সুখ।সুখের প্রারম্ব যেমন কারো জানা নেই,তার অন্তিম যাত্রাও কারো জানা নেই।তাই ভোগ নয় উপভোগেই সুখ।

পরিশেষে একটি প্রচলিত ইংরেজি ম্যাক্সিম দিয়ে ইতিরেখা টেনে দিচ্ছি!

 

Never put the key to your happiness in somebody else’s pocket.Happiness comes from within.

২২৪জন ৪৩জন
0 Shares

২৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য