সীমিত আকারে!

তৌহিদ ৫ মে ২০২০, মঙ্গলবার, ০৩:১২:৪২পূর্বাহ্ন রম্য ২৯ মন্তব্য

করোনা সময়ে এদেশে “সীমিত আকারে” শব্দটি একটি জাতীয় শব্দে পরিণত হয়েছে। সরকারের এই সীমিত আকারের অনেক ঘোষণাতেই মাঝেমধ্যে গ্যাঁড়াকলে জর্জরিত হতে হচ্ছে আমাদের। এসব ঘোষণা পক্ষে বিপক্ষে যাই হোক তা হতে হবে কিন্তু সীমিত আকারে। এই যেমন- সীমিত আকারে দোকানপাট খোলা থাকবে বলে ঘোষণা এসেছে। এখন বাজারে গিয়ে ঈদের বাজার করবেন নাকি সীমিত আকারে হলেও করোনার শিকার হবেন সেটা আপনাদের বিবেচ্য।

তবে সমস্যা হতে পারে ভীন্ন। এই যেমন সরকারের সীমিত আকারে বাজার খোলার ঘোষণা দিয়ে আমরা অনেকেই পড়েছি নানাবিধ বিপাকে। করোনা ছুটিতে বাজার-ঘাট সব বন্ধ থাকবে, ঈদে কাউকে কোন উপহার সামগ্রী, জামাকাপড় কিছু দিতে হবেনা এটা ভেবে আগেই কিছু অসহায় মানুষকে সাহায্য সহযোগীতা করে ফেলেছি। ফলে হাত প্রায় ফাঁকা ফাঁকা অবস্থা।

এখন সীমিত আকারে বাজার খোলার এই ঘোষণায় আমাদের ভাবী সাহেবানগণ এবং আপুগণ কি আমাদের ও পরিবারের কাছ থেকে সীমিত আকারে ঈদ বাজার করার টাকা নেবেন নাকি পুরো আকারেই নেবেন এটা ভেবেই আমি শংকিত। এই সমস্যা সব পতিদেবগণেরই হবে আমি নিশ্চিত।

তো আর কি! পতিদেব গোল্লায় যাক, শেষতক ভাবী সাহেবানগণ এবং আপুদের দীর্ঘ বন্দীদশার অবসান হলো। এতদিন পর বাজার খুলছে আর তাদের পায় কে! এখন মনের আনন্দে আপনারাও ঈদ বাজার করতে বেড়িয়ে পড়ার প্রস্তুতি নিন।

সবাই সকাল ছয়টা হতে রাত আটটা পর্যন্তই সীমিত আকারে বাইরে থাকতে পারবেন এবং রাত আটটার পরে কিছুতেই কাউকে বাইরে থাকতে দেয়া হবেনা আর থাকলেও তা কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হবে। তার মানে আশার কথা হলো, এদেশে করোনা সন্ধ্যা নিশিতেই শক্তিশালী হওয়া শুরু করে এবং ভোর হতে হতে কিছুটা নিস্তেজ হয়ে পড়ে। তাই অবশ্যই অবশ্যই রাত আটটার মধ্যেই ঘরে প্রবেশ করবেন।

মনে রাখবেন, যেহেতু সীমিত আকারে দোকানপাট খোলা থাকবে তাই আপনি প্রতিদিনই সকাল ন’ টায় বাসা থেকে বেড়িয়ে বেলা দশটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত মোট দশ ঘন্টায় অত্যন্ত সীমিত আকারে, আবারো বলছি অত্যন্ত সীমিত আকারেই বাজারসদাই করবেন।

আর হ্যা, বাজারকারীর সকলের সুবিধার্থে আমিও সীমিত আকারে কিছু টিপস দিলাম। এগুলো মেনে চলুন, উপকৃত হবেন নিশ্চিত –

– সবার আগে সেলুন কিংবা পার্লারে যান। কারন আপনি সুদর্শন/সুদর্শনা কিনা তা দেখেই কিন্তু দোকানী আপনাকে মুল্যায়ন করবে।

– যারা অনেকদিন দুই বা তিনজন মিলে হাসিঠাট্টায় মশগুল হয়ে রিক্সায় ওঠেননি তারা এবার মনের আশা পূরণ করে নিন।

– সীমিত আকারে মানে সীমিত আকারেই এটা ভুলবেননা। শপিংমল টু শপিংমল টইটই না করে একদিনে এক শপিংমলেই কাজ সারুন।

– আপনার মত অন্যরাও মার্কেটে যাবে তাদেরকেও সুযোগ দিন। বেশি হুড়োহুড়ি করলে দোকানদার আপনাকে ফটকা জিনিস ধরিয়ে দিতে পারে সেদিকে খেয়াল রাখুন।

– যেদিন যে মার্কেটে যাবেন ফেসবুকে তার চেক ইন দিন। তাহলে অন্যরাও মার্কেটের সার্বিক পরিস্থিতি সম্পর্কে অবগত হতে পারবেন।

– পারলে সীমিত আকারে এক দু’মিনিটের জন্য নতুন কেনা জামাটি পরে ফেসবুক লাইভে আসুন। এতে দোকানদার এবং আপনার বন্ধুবান্ধবী উভয়েই সমানভাবে উপকৃত হবেন।

– বাজারে থাকাকালীন সীমিত আকারে হলেও মাঝেমাঝে খাবার দোকানগুলোর আপডেট দিন। অন্যান্য বাজারকারীদের অভুক্ত অনুভূতি থেকে মুক্ত থাকতে সহায়তা করুন।

– সর্বোপরি সীমিত আকারে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা রাখার এই সিন্ধান্তকে অবশ্যই সাধুবাদ জানাবেন।

শুভ শপিং☺

১৯১জন ১৬জন
0 Shares

২৯টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য