সম্প্রতি দেখা সিনেমাঃ Rampage (2018)

অলিভার ১০ মার্চ ২০১৯, রবিবার, ০২:৩১:৫৩পূর্বাহ্ন মুভি রিভিউ ৯ মন্তব্য

২০১৮ সালের এপ্রিলে মুক্তি পায় ‘দ্যা রক’ ক্ষ্যাত ‘ডুয়েইন জনসন’ এর এ্যাকশন ঘরনার চলচিত্র ‘Rampage‘। মুভিটিতে ডুয়েইন জনসন অভিনয় করেন ডেভিস ওকোয়ে চরিত্রে।

মুভিতে দেখানো হয় ডেভিস একজন প্রাক্তন মর্কিন সেনা যে বর্তমানে বন্যপ্রাণী দেখাশোনার একটি পার্কে কর্মরত আছে। ডেভিস মানুষের চাইতে বন্যপ্রাণীদের সাথে বেশি বন্ধুভাবাপন্ন একজন ব্যক্তি। এই পার্কের বন্যপ্রাণীদের মধ্যে ‘জর্জ’ নামের একটি গরিলা ডেভিসের প্রিয় বন্ধু। আর্মিতে বন্যপ্রাণীদের রক্ষনাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকাকালীণ সময় সে এই বিলুপ্তপ্রায় গরিলাটিকে উদ্ধার করে এখানে নিয়ে আসে। আর একই সাথে ডেভিসের সাথে জর্জের বোঝাপড়াটা দারুণ ভাবে গড়ে উঠে। জর্জ গরিলা হলেও সে দারুণ বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন একটি গরিলা, এটি মুভির শুরুতেই চমৎকার ভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

 

 

এদিকে ‘এনার্জিন’ নামক এটি প্রতিষ্ঠান তাদের একটি প্রজেক্টে জিন মেনিপুলেশন করে একটি বায়ো-উইপন তৈরি করে, আর সেই উইপনটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্যে একে পাঠায় তাদের স্পেসশিপে অবস্থিত ল্যাবে। সেখানে পরীক্ষাধীন সময় এই উইপনের মারাত্বক দিকটি প্রাকাশ পায়। কিন্তু ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে গেছে, নিয়ন্ত্রণের মাত্রা ছাড়িয়ে সেটি। টেস্ট সাবজেক্ট হিসেবে ব্যবহৃত ইদুরটি ততক্ষণে রূপান্তরিত হয়েছে এক ভয়ানক দানবে। সুযোগ বুঝেই খুন করেছে স্পেসশিপে কর্মরত প্রায় সকলকে। তার মাঝেই কোনভাবে টিকে যাওয়া একজন বিজ্ঞানী এই পরিস্থিতির আপডেট জানিয়ে সাহায্য প্রার্থনা করে ‘এনার্জিন’ এর প্রতিষ্ঠাতা ক্লায়ার উইডেন এর কাছে। কিন্তু এমন পরিস্থিতির কথা জেনেও ক্লায়ার দৃঢ়কণ্ঠে জানায় যে, তাকে কখনই সহায়তা করা হবে যখন সে তাদের বায়ো-উইপনের স্যাম্পল এনার্জিন-এর কাছে পুনরায় হস্তান্তর করতে পারবে। প্রতিকূল পরিবেশে থেকেও শেষ পর্যন্ত স্পেসশিপের ধ্বংসযজ্ঞে বেঁচে যাওয়া বিজ্ঞানি কাঙ্খিত ঐ স্যাম্পল উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। কিন্তু তবুও দুর্ঘটনার কবল থেকে সে বাঁচতে পারে নি। বিদ্ধস্ত যে ইমার্জেন্সি স্কেপশিপে করে সে রওনা হয়েছিল তা পৃথিবীর বায়ুমন্ডলে ঢুকতেই বিষ্ফোরণের স্বীকার হয়। আর একই সাথে ঐ স্পেসশিপে থাকা ঐ বায়ো-উইপনের স্যাম্পল ছড়িয়ে পড়ে আলাদা আলাদা তিন প্রান্তে।

বায়ো-উইপনের স্যাম্পল ছড়িয়ে পড়া তিন প্রান্তে আক্রান্ত হয় তিনটি বন্যপ্রাণী, যার একটি ছিল জর্জ। বায়ো-উইপনের প্রভাবে আক্রান্ত হয়ে জর্জ অশান্ত হয়ে উঠে। রাতের আধারেই সে হিংস্রাত্মক হয়ে আক্রমন করে বসে তার সাথে থাকা অন্য আরেকটি গরিলাকে, জর্জের হাতে খুন হয় সেই গরিলা। এদিকে একই সাথে জর্জের মধ্যে পরিবর্তন আসতে থাকে। জর্জ তার পরিবর্তন বুঝতে পেরে নিজেই ভীত হয়ে উঠে। নিরাপত্তা কর্মীরা তাকে আলাদা করে ফেলে বাকি গরিলাদের থেকে। পরীক্ষা-নিরিক্ষা করে বুঝতে পারে তার মাঝে কোন একটা সমস্যা হয়েছে, যা স্বাভাবিক নিয়মে হবার নয়। বিচলিত হয়ে পড়ে ডেভিস।

 

 

অন্যদিকে মিলিয়ন ডলারের প্রজেক্ট এভাবে হাতছাড়া হয়ে যাবার কারনে পাগল হয়ে উঠে ক্লায়ার। যে কোন মূল্যেই ফিরে চায় সে তার প্রজেক্টের স্যাম্পল। আর সেই ধারাবাকিহতায় ঐ স্যাম্পল উদ্ধারে পাঠায় ভাড়া করা কিছু খুনে সৈনিকদের। কিন্তু স্যাম্পল উদ্ধারের এই মিশন ব্যর্থ হয় যখন খুনে সৈনিকদের সবাই মারা পড়ে বায়ো-উইপনের প্রভাবে আক্রান্ত নেকড়ের কবলে।

 

 

ওদিকে নিজের আবিস্কারের এমন ভয়ানক অবস্থা জানতে পেরে প্রাক্তন এনার্জন এর কর্মী কেইট চলে যায় জর্জকে সংরক্ষণ করা পার্কে। সেখানে সে ডেভিসকে বোঝাতে সক্ষম হয় যে, এই অবস্থা থেকে সে জর্জকে রেহাই দিতে সক্ষম। আর এরই মাঝে জর্জ নিজের নিয়ন্ত্রন হারায়। ক্ষুদ্ধ হয়ে জর্জ আপন সেল ভেঙ্গে বেরিয়ে পড়ে লোকালয়ে। অবশ্য খুব বেশিদূর যেতে পারে নি সে। এফ.বি.আই এর অতর্কিত আক্রমনে জর্জ সঙ্গা হারায়। তারা জর্জকে নিয়ে যেতে চায় তাদের ক্যাম্পে। সাথে নিয়ে যায় ডেভিস আর কেইটকে। ডেভিসের অনুরোধ স্বত্তেও এই অভিযানের দায়িত্বে থাকা হার্ভে রাসেল জর্জকে নিয়ে রওনা হয় উড়োজাহাজে।

পথিমধ্যে জর্জ আবারও তার জ্ঞান ফিরে পেয়েই শুরু করে তার ধ্বংসযজ্ঞ। ডেভিস উপস্থিত বুদ্ধি প্রয়োগে কেইট এবং রাসেলকে উদ্ধার করে এই ধ্বংসযজ্ঞ হতে। জর্জের তান্ডবে ভুপতিত হয় তাদের বহনকারী উড়োজাহাজ। তারা ধারণা করেছিল বিমান ভুপতিত হবার এই ঘটনাতেই মারা পড়বে জর্জ। কিন্তু সবাইকে ভুল প্রমাণ করে জর্জ এই ধ্বংসস্তুপ থেকে পালায়।

এরই মাঝে ক্লেয়ার নতুন ফন্দি বের করে। সে তাদের যোগাযোগ মডিউলের বিশেষ পরিবর্তন এনে একত্রিত করতে চায় বায়ো-উইপনের প্রভাবে আক্রান্ত জানোয়ার গুলোকে। সে এমন এক মাইক্রোওয়েভ সাউন্ডের সৃষ্টি করে যা শুনে আক্রান্ত জানোয়ার গুলি ধেয়ে আসবে শব্দ উৎপাদনকারী এনার্জিকের টাওয়ারের দিকে। আর সেই শব্দের প্রভাবেই তিন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা তিন জানোয়ার ধেয়ে আসতে থাকে শহরের দিকে। মার্কিন মেলিটারিরা চেষ্টা করে তাদের থামাতে, এম্বুস করে এদের ধ্বংস করতে চেষ্টা করে। বোমা হামলা চালায়, কিন্তু কিছুতেই কোন লাভ হচ্ছিল না। বরং তাদের গড়া একের পর এক নিরাপত্তা বলয় ভেঙ্গে চুরমার করে শহরের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল জানোয়ারগুলো।

 

 

মার্কিন মেলিটারি অবস্থার নিয়ন্ত্রন হারিয়ে শহর থেকে মানুষকে নিরাপদ অবস্থানে সরিয়ে নিতে শুরু করে। আর জানোয়ার গুলোর ধ্বংসলীলা থামাতে বিষ্ফোরক দিয়ে পুরো শহর সহ গুড়িয়ে দেবার প্রস্তুতি নেয়। ডেভিস এমন সিদ্ধান্ত থেকে ধারণা করে যে এই অল্প সময়ে পুরো শহরের লোকজন বের করে নিয়ে আসা সম্ভব নয়। আর তাই কেইটকে নিয়ে মিলিটারি ক্যাম্প থেকে পালিয়ে রওনা হয় এনার্জিন-এর দিকে।

শেষ পর্যন্ত অনেক ক্লাইমেক্স পেরিয়ে ডেভিস আর কেইট বায়ো-উইপনের এন্টিডোট উদ্ধার করে জর্জকে তার নিয়ন্ত্রণে ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়। আর একই সাথে জর্জের সহায়তায় বাকি দুই জানোয়ার শেয়াল ও কুমিরকে খুন করে দূর্যোগপূর্ণ অবস্থার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আসে নিজেদের দিকে। শহরশুদ্ধ মানুষকে হিংস্র জানোয়ার আর বোমার বিষ্ফোরনের নিশ্চিত মৃত্যু থেকে বের করে নিয়ে আসে ডেভিস এবং জর্জ।

 

 

যারা নিয়মিত মুভি দেখেন তারা এই একই ধরণের স্ক্রিপ্ট ধরে এগিয়ে চলা অনেক-অনেক মুভিই ইতোমধ্যে দেখে ফেলেছেন বলেই আমার বিশ্বাস। খুব অল্প কিছু পরবর্তন ছাড়া এই একই ধরণের দুর্যোগপূর্ণ মারমার-কাটকাট মুভি রয়েছে বেশ অনেক সংখ্যক। গরিলার সাথে মানুষের যোগাযোগ আর দুষ্টামি-বুদ্ধিতে ভরপুর গরিলা ছাড়া বাকি মুভিতে কখন কি হতে পারে তা প্রায় সকল হলিউড ভিত্তিক মুভির দর্শকেরা সহজেই অনুমান করে নিতে পারবে। ডেভিসের চরিত্রে অভিনয় করা রককে কিছু স্থানে দেখানো হয়েছে অতিপ্রাকৃতিক শক্তিধর একজন হিসেবে। আবার বায়ো-উইপন দ্বারা আক্রান্ত জানোয়ার গুলোকে ভিন্ন ভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন আকারে দেখানো হয়েছে, যা গল্পের সাথে একদমই বেমানান ঠেকেছে।

প্রয়োজনের চেয়ে অতিরিক্ত এ্যাকশন সিনেমা হিসেবে উপস্থাপন করতে গিয়ে অনেক বেশি বিষ্ফোরণ আর ধ্বংসলীলা দেখানো হয়েছে। বারবার করে যেন নিজে ইচ্ছেতে ধরা দিচ্ছিল উদ্ধার করতে আসা যুদ্ধ বিমান গুলো। যদিও মুভি স্ক্রিপ্টে “বন্যপ্রাণীর সাথে মানুষের মেলবন্ধন”-এর ব্যাপারটাকে হাইলাইট করে দেখানো হয়েছে, তবুও এখানে গল্পে/স্ক্রিপ্টে অনেক বেশি পরিমানে বিচ্ছিন্নতা আর অসঙ্গতিপূর্ণ বিশৃঙ্খলাই নজরে এসেছে। মুভির একটি দৃশ্যস্তর পার করে অন্য দৃশ্যে প্রবেশের সময় চরিত্রগুলোও যেন তাদের দিক হারিয়ে ফেলছিল বারবার। এছাড়া ডেভিস এবং জর্জ চরিত্রদুটি ছাড়া বাকি চরিত্রগুলোর কোন প্রভাবই যেন মুভিজুড়ে অনুপস্থিত লেগেছে।

সিনেমার ঘটনা ছাড়াই যাদের কাছে ধুম-ধাম পছন্দ, তাদের কাছে মুভিটি ভালো লাগতে পারে। কিন্তু যারা এ্যাকশনের সাথে গল্পের ধারাবাহিকতা আর গভীরতা পছন্দ করেন, তাদের কাছে হয়তো মুভিটা পানসেই লাগবে।

 

যদিও IMDB-তে Rampage রেটিং পেয়েছে ১০ এর মধ্যে ৬.১
কিন্তু  ব্যক্তিগত রেটিং হিসেবে আমি মুভিটিকে ১০ এর মধ্যে ৩ দেবো।

 

সস্তা বিনোদনের আশা নিয়ে মুভিটি দেখা যেতে পারে। ব্যাক্তিগত ভাবে মুভিটি আমার তেমন আকর্ষণীয় কিছু মনে হয়নি। আশা করছি যারা ইতোমধ্যে মুভিটি দেখেছেন তারা মুভিটি সম্পর্কে নিজেদের মতামত জানাবেন 🙂

 

 

 

 

 

২৬৯জন ১৬৪জন
5 Shares

৯টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য