হঠাৎ তন্বীর মধ্যে এক পরিবর্তন লক্ষ্য করা গেলো। তন্বী যেন উঠতে, বসতে, ঘুমাতে তমাল কে অনুভব করতে লাগলো। একদিন স্বপ্নে তমালকে আপন করে পেলো। তন্বী নিজেকে ভ্রম বলে সান্তনা দিলো। তন্বী যেন ঘোরের মধ্যে চলে গেলো। ভাবলো হয়তো কথা বলতে বলতে , ওর সবকিছু নিয়ে ভাবার কারণেই এমন হয়েছে। কিন্তু দ্বিতীয়বার যেদিন স্বপ্নে দেখলো সেদিন কেমন জানি তন্বী চঞ্চল হয়ে উঠল । কিন্তু তমালকে সে এ কথা কিভাবে বলবে? না কোনোভাবেই বলা যাবেনা তাহলে তাদের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কে ছেদ ঘটতে পারে, হয়তো তমাল ভাববে তন্বী এসব ভাবে বলেই এমনটি হয়েছে। তন্বী এটাও ভাবছিলো যে, ‘তমাল সব জেনে যদি তাকে বাজে ভাবে বা তন্বীকে ব্যবহার করতে চায়।’

কিন্তু হঠাৎ করে একদিন ওরা কথা বলতে বলতে একটু আবেগী হয়ে গেছিলো সেদিন তমালের কৌতুহল মেটাতে গিয়ে ,স্বপ্ন দেখার কথা বলে ফেললো। তমাল বললো,’তুমি এটা আগে বলোনি কেন? তুমি নিশ্চয়ই আমাকে নিয়ে এসব ভেবেছো?’ তন্বী বললো,’না। আমি নিজেও বুঝতে পারলাম না যে কেন এমনটা দেখলাম!’ তমাল বললো, ‘বাদ দাও। এসব ভেবে মন খারাপের মানে হয় না। তারচেয়ে আমরা বন্ধুত্ব নিয়েই থাকি। দু’জনের জন্যই সেটা ভালো হবে।’ তন্বী ও সেটাই মেনে নিলো। এভাবেই আবারো কিছুদিন ভালোভাবে সময়টা পার করলো কথায় কথায় ।

কিন্তু তন্বী এবার বুঝতে পারলো , সে তমালের প্রতি দূর্বল হয়ে পড়েছে। কারণ তমাল যখনই তার বৌয়ের কথা, ভালোবাসার কথা বলে তন্বী ভিতরে ভিতরে একটা জ্বলন, ঈর্ষা অনুভব করে। এটা সে বেশ বুঝতে পারে, এটা তার ভারী অন্যায় হয়েছে। কিন্তু সে কি করবে ভালোবাসা কি বয়স, সময়, ন্যায়-অন্যায় বুঝতে পারে না বুঝতে চায়? তন্বী কখনো তমালকে পাবেনা, সে চায় ও না তমাল তার জীবনে আসুক,তার পরিবার নষ্ট হোক তার জন্য। সে শুধু তমালের হৃদয়ে তার জন্য একটু ভালোবাসা চায়, তমালের বন্ধুত্ব, কথার ফুলঝুরিতে জড়িয়ে থাকতে চায়। তার একাকীত্বের ঘরে তমালের অস্তিত্ব পেতে চায়। সে পবিত্র এ ভালোবাসার মৃত্যু চায় না ।

কিন্তু তমাল তো পুরুষ মানুষ, তার উপর পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন-সে কিভাবে তন্বীকে দূরে ঠেলে দিবে? সে ওতো একাকীত্বের দাবানলে পুড়ছে। সামনাসামনি কেউ কাউকে দেখিনি তবুও যেন কত চেনা, আপন দু’জন দু’জনার। ভিডিও কলে দু’জন দু’জনকে কিস করলো। তন্বীর মনে হলো ‘এইতো সেই প্রেম, ভালোবাসা যার জন্য এতোদিন সে অপেক্ষা করেছে। দু’জনেই ব্যাকুল হয়ে উঠলো। কিন্তু কোথায় যেন একটা দেয়াল তন্বীর সামনে বাঁধা দিচ্ছে। তন্বী নিজেকে বোঝালো , না সে কিচ্ছু চায় না । সে শুধু তমালের পাশে থাকতে চায় সারাজীবন । শারীরিক সম্পর্কের বাঁধনে নয় – মনের বাঁধনে, আত্নার বাঁধনে সে তমালকে বেঁধে রাখতে চায়।

১৬৩জন ২০জন
37 Shares

২৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য