শিশু শ্রম

শিরিন হক ৯ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ০৫:৪৮:৩২পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২২ মন্তব্য

বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি দেশ।এখানে নানা রোগ, দরিদ্রতা, প্রাকৃতিক বিপর্যয়,  অধিক জনসংখ্যা  সহ নানারকম সমস্যা। এই সমস্যা নিজেরাই একটি সমস্যা নয় এর বিস্তার ঘটাচ্ছে আরো সমস্যা নিয়ে তার মধ্যে শিশু শ্রম একটি।

পারিবারিক অবস্থার নানা সমস্যার শিকার হতে হয় কোমল মতি শিশুদের। চাষাবাদে সহযোগিতা, পরিবারকে সাহায্য। রাজা জমিদার বাড়িতে পেটের দায়ে কাজ করতে এসে শিশু শ্রমের উদ্ভব হয়।

সামান্য পারিশ্রমিক এর বিনিময়ে শিশুশ্রম পাওয়া যায় এবং কাজে শিশুরা ফাঁকিবাজ নয় বলে সমগ্র মানচিত্রে শিশু শ্রম ফুটে উঠেছে।

বাসাবাড়ি, কল কারখানা, ইটভাটা, বিড়ি সিগারেটের কারখানা, লঞ্চ, ট্রেন, ফেরি যে দিকে তাকানো হোক সর্বত্র শিশুদের কাজ করতে দেখা যায়। সারাদিন পরিশ্রমের বিনিময়ে সামান্য মজুরী পায় তারা। মালিকের মন যোগাতে না পারলে রেহাই নেই শারীরিক  নির্যাতন থেকে। নানান রোগে আক্রান্ত হয় এসব শিশু অনেকেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে, কেউ পঙ্গু হয়, কেউ কর্মক্ষম হয়ে পড়ে। অথচ শিশুরা ই নাকি আগামীর উজ্জ্বল ভবিষ্যত।

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আই, এল, ও) শিশু শ্রম রোধে বিভিন্ন স্কুল নির্মাণ করেছে। আমাদের দেশে কর্মমুখী প্রাথমিক শিক্ষার কোনো ব্যাবস্থা নেই। বিদ্যালয়ে গিয়ে শিক্ষার চেয়েও ক্ষুধা নিবারণের জন্য কাজ হয় জরুরী।

সরকারের কর্মমুখী শিক্ষা ব্যাবস্থা চালু করলে অনেকাংশে কমে যাবে শিশু শ্রম। মালিক পক্ষ যদি হাতুড়ি, যন্ত্রের সাথে শিশুদের হাতে বই তুলে দেন তাহলে পালটে যাবে শিশু শ্রম এর রুপ। সরকার, মালিক পক্ষ, ব্যাক্তি থেকে শুরু করে সবার সদিচ্ছাই  আগামী শিশুদের জীবন সুন্দর করে দিতে পারে। আগামী ভবিষ্যত স্বর্ণালী দিনের পথ চেয়ে আছে।

 

২২২জন ৯৩জন
3 Shares

২২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য