শিরোনাম নেই-২

বন্যা লিপি ১০ মার্চ ২০২১, বুধবার, ০২:৩৮:০০অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২১ মন্তব্য

মধ্যদুপুর খান খান হয়ে যাচ্ছে অশ্রবণীয় শব্দাবলীর আঘাতে।  আমি কান ঠেঁসে ধরি দেয়ালের শরীরে। ইট বালু সিমেন্টের গভীর থেকে প্রস্রবিত কুল কুল ধারায় বয়ে যাওয়া কোনো দুর্বোধ্য  অথচ আকাঙ্খিত মোহময় শব্দের ।সেই যে খুব সকালে নিপাট বদ্ধ জানালায় মসৃন ঠোঁট নিয়ে ডাক দিয়ে গেলো ‘পাখি’ বলে! তারপর আর কোনো খোঁজ নেই তাঁর। আমি শুনতে পাবার আগেই অলক্ষ্যে চলে গেলো সে। এখন রোদ্দুরের আকাল চলছে মেঘাচ্ছন্ন আকাশের বুক জুড়ে। রান্না ঘরের কল ছেড়ে দিই ইচ্ছে করে,জলের শব্দে সুর খুঁজব বলে। ডায়রীর পাতা উল্টে রেখে ইলিশ ভাজি তেল ছাড়া কড়াইতে।ঝুম ঝুম শব্দের ঠোঁটে তালা মেরে রেখে উঠে পড়ি কালো গ্লাস টেনে দিতে। বারান্দায় মরা পাতাদের কোলাহল দেখি বাতাসের ঝগড়ায়। হলদে পাতা সংখ্যা বাড়াচ্ছে দ্বিগুণ তিনগুণ। আমি খালি চেয়ারটা দেখি নিস্পলক চোখের চুরি যাওয়া জ্যোতির সামনে। এত এত শুন্য অক্ষর  কি ব্যর্থতা জানান দিয়ে যাচ্ছে একেকটা প্রহরের পিঠে চড়ে!! সদ্যজাত শিশুর মত আমি কেবল আঙুল কামড়াই ভোঁতা দাঁতের নীচে ফেলে। শুনতে পাচ্ছি কয়েকটা চড়ুই তারস্বরে চেঁচাচ্ছে কংক্রিটের কার্নিশে। অলস পা আমাকে পঙ্গু করে রাখছে এই ভরদুপুরের মধ্যিখানে। এলেবেলে ভাবনারা কবে পেয়েছে নিশ্চিত নোঙড়ের হদিস?  টবে বোনা গাছগুলো শেকড় ছড়াতে গিয়ে স্বলপতায় বামন হয়ে ফলাচ্ছে আত্ম পরিচয়। আমি ওদের দেখে দেখে নিজেকে বড্ড বামন করে রাখি ইচ্ছেদের হাতে।

দেয়ালের কাছে ফিরে আসি আবার……. যদি কোনো শব্দ অপেক্ষা করে থাকে এই আমার তরে!! যদি অচেতনে হাত ফস্কে হারিয়ে ফেলি ছুঁড়ে দেয়া কোনো দুষ্প্রাপ্য শব্দের অণুরন!!

 

# এলোমেলো কথন

২২৭জন ২৯জন
0 Shares

২১টি মন্তব্য

    • বন্যা লিপি

      রোজকার ডায়রি লেখেন / লিখেছেন কখনো? অথবা না বলা কথাদের ছড়িয়েছেন কালির আঁচড়ে পৃষ্ঠার ভাঁজে! তারপরও খুঁজুন শব্দের উপমায় অব্যাক্ত /অপ্রকাশিত কিছু দুর্দান্ত গল্প।

      • বন্যা লিপি

        আমারো ডায়রি বা দিনপঞ্জি লেখা হয়না, তবে তেমন করে লিখতে চাইতাম খুব। জমা আছে সেরকম রাশি রাশি এলোমেলো কথাদের ডায়রি। এই লেখাটা যাস্ট হুট করে টাইপ করে গেছি যখন তখন, যেমন তেমন ভাবে। কেমন কি হয়েছে আপনাদের মত পাঠকের কাছে বিচার্য। আপনিও চেষ্টা করে দেখবেন এরকম পাগলামী করতে মন্দ লাগেনা কিন্ত!

      • বন্যা লিপি

        আমি কিন্তু ভাই উপদেশ দেবার চরম বিপক্ষে।কারন কি জানেন? না থাক আজ এখানে বলছিনা, গল্পচ্ছলে না হয় অন্যকোনোদিন কিছু ছোট্টপরিসরে লিখে বলব, আসলে উপদেশ বলুন আর আদেশ, কাল ক্ষেত্রে তা কিন্তু বিফলে যায়। ধরুন আপনার কারো কোনোকিছু দেখে/ শুনে খুব ভালো লেগে গেলো, আপনি চাইবেন সে বিষয়ে নিজের ভেতরে সেই কারন গুলো আয়ত্ব করতে।ব্যস্…. ওটাই আপনার নিজস্বতা আত্মস্থ করা। যা কেউ উপদেশ বা আদেশ দিলেও হয়ত আপনার মন বিদ্রোহ ঘোষনা করে উঠতে পারে। একটা ড্রাগ এডিক্টকে যদি উপদেশ দিই ড্রাগ নিওনা, ওটা ক্ষতিকর, সে কি শুনবে? আমার তো মনে হয়না। সে নিজে থেকে যদি উপলব্ধি না করে, তবে তো আমার উপদেশটাই মূল্যহীন হয়ে গেলো।
        আপনি নিজেই আপনার মনের নিয়ন্ত্রক। আপনার ভালোলাগাটুকু আপনার নিজেকেই সযত্নে লালন করতে হবে। আমাদের চারিদিকে এখন বাস্তব/ পরাবাস্তবের কঠিন প্রহসন চলছে, এইসব কিছু ছাপিয়ে/ কাটিয়ে একটুখানি নিজের দিকে তাকানো কী খুব বেশি অন্যায় হয়ে যাবে? যদি তা অন্যের কাছে / চোখে কাঁটা হয়ে না বেঁধে? আমি আসলে তাই করছি, যেটুকু সময় পাই, লেখায় ব্যক্ত করি কি কি ভাবছি বা অব্যক্ত পঙ্তি ছেড়ে দিচ্ছি এইভাবে।
        আপনার প্রতি অসংখ্য ভালবাসা জমা হলো আমার মনে। ভালবাসা।

  • রোকসানা খন্দকার রুকু

    দেয়ালের কাছে ফিরে আসি আবার……. যদি কোনো শব্দ অপেক্ষা করে থাকে এই আমার তরে!! যদি অচেতনে হাত ফস্কে হারিয়ে ফেলি ছুঁড়ে দেয়া কোনো দুষ্প্রাপ্য শব্দের অণুরন!!,,?,,
    হারিয়ে গেলাম আপু।

    • বন্যা লিপি

      আপনি কি আমার পেছনে আদাজল খেয়ে লাগছেন নাকি মিঃ মহী?
      অবাস্তব/ পরাবাস্তব বিষয়গুলো ঠাওর করার মত বাস্তবিক কিছু চৌকশ বোধ থাকা প্রয়োজন। অশ্রবনীয় শব্দ শোনার মত কানও থাকা দরকার, যা আমার আছে। আপনার কাছে স্পষ্ট না হওয়াটাই স্বাভাবিক বলে মনে হচ্ছে। আমারও খুব একটা তাড়া নাই আপনাকে স্পষ্ট করে কিছু বলার।।
      ডিম ভাজাভাজি আপনি করেন। ইলিশ ভাজি আমি তেল ছাড়া তাওয়ায়। ছ্যাঁকা খাওয়ার ভয় নাই আমার।
      আপনি মহা বিনোদন দিচ্ছেন বলে মনে হচ্ছে আমার, হাত তালি দিতাম যদি শব্দ আপনার কানে গিয়ে লাগত।

  • আরজু মুক্তা

    আজকাল দেয়ালটাও বিমুঢ়। পলেস্তারা খসখসে। প্রকৃতির সাথে সাথে নিষ্প্রাণ বস্তুগুলোও বিদ্রোহ কর। বইগুলো মলাট বন্দি আলমিরাতে। পাতাগুলো খুলে রোদ্দুর এ নিয়ে আসি। আলোর ঝলমলিতে যদি একটু নাচন ধরিয়ে, চোখ এবং মননে নীল আভা ছড়ায়। মন্দ কী! একটা একটা করে আসুক না শব্দের আলোর ঝর্ণা।

  • সুপর্ণা ফাল্গুনী

    রবীন্দ্রনাথের ভাষায় বলতেই হয়,’ অনেক কথা যাও যে ব’লে কোনো কথা না বলি।
    তোমার ভাষা বোঝার আশা দিয়েছি জলাঞ্জলি॥”
    নিরবতার ও যে একটা ভাষা সেটা বোঝার মন সবার থাকে না, বোবা কান্নায় যে একেকটা মহাসাগর হতে পারে তা সবাই জানে না । অনেক সময় কতকিছু ই বলতে ইচ্ছে হয় কিন্তু যোগ্য সঙ্গী/শ্রোতার অভাবে তা চাপা পড়ে যায়। ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন শুভকামনা অবিরাম

    • বন্যা লিপি

      কি জবাব দেই বলুনতো দিদি? লাইন ধরে যখন পড়লেন লেখাটা! আপনার কি মনে হয়েছে একটু বলবেন? আমি কি করি জানেন দিদি? আমার লেখা আমিই বারবার পড়ি। কেন পড়ি? নাহ্….তা বলছি না। আমার মনে হয়, প্রথম লাইনটা ধরে পড়া শুরু করলে, শেষ পর্যন্ত পড়তে ইচ্ছাটা জাগ্রত হওয়ার নাম….. ভালোলাগা। আর সেটা যদি আপনার ভেতরেও কাজ করে, ব্যস্…এত মাথা খাটাবার কসরৎ করার দরকারটাই বা কি? আপনার পড়তে ভালোলাগলেই যে কোনো লেখকের লেখাই সার্থক হয়ে উঠবে। এই যে পড়েছেন, এবং পড়ে জানিয়ে গেলেন আপনার অনুভূতি, এটাই তো আমার মত নগন্য লেখার সার্থকতা বা বড় প্রাপ্তি।
      ভালো থাকবেন সবসময়।

      • সুপর্ণা ফাল্গুনী

        প্রকৃতি যেমন নিরব দর্শকের ভূমিকায় থেকে কখনো কখনো বিদ্রোহ করে তেমনি আমাদের সাংসারিক নিষ্প্রাণ জিনিষ গুলোও যখন তখন বিরুপ আচরণ করতে পারে। মনের যত রাগ-অভিমান আমরা এসব জিনিসের উপর ঝাড়ি। এতো টুকুতেই মনের আনন্দ খুঁজে ফিরি। ধন্যবাদ আপু

      • বন্যা লিপি

        জলছাড়া অতলে ডুব দিয়ে সাঁতার কাটি আমি ডুবুরির মত।আমার নিজস্ব কোনো আকাশ নেই, অবস্থান আমার মাটির ভেতর/ উপরে; ক্রোধাণলে পুড়ে পুড়িয়ে নিজেকে করেছি পোড়া কাঠের মূর্তি! তারপর!
        কান চেপে ধরি নিষ্প্রাণ কংক্রিটের দেয়ালের শরীরে। মাথা থেকে পা অবধি সরিসৃপের মত নেমে যায় যাবতীয় ক্ষোভের বিষাক্ত রক্তস্রোত। পায়ের তলায় জমে যায় ঠান্ডা বরফের চাতাল।
        আমি নিশ্চিন্তে কুরুশকাঠি নাড়ি পশমি চাদর বুনতে।
        সকালের আলো ফুটে ওঠার আগেই মাথার কাছে এসে দাঁড়ায় দুপুরের নিস্তব্ধতা।
        খালি চেয়ারটা আমাকে জায়গা দিতে চায়না একদন্ড। তবু আমি গ্যাঁট হয়ে বসে পড়ি কাঠের নিরস সোফার মধ্যিখানে। অগুণতি সময়ের বেহিসেবী খরচায় ঘরের বাতাস ভারী হয়ে যায়। আরশোলাদের প্রতিবাদ দেখি আমি শীতল সাপের চোখে।
        ডায়নিং টেবিলে রাখা পানিশুন্য জগও আমার দিকে চোখ রাঙায়…..
        চোখ বন্ধ করে আমি দেয়ালে কান ঠেঁসে শব্দ খুঁজি, যা আমি শুনতেই চাই……

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ