শব্দের হিসাব

নিতাই বাবু ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১০:১৫:১৭অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩০ মন্তব্য

আদিযুগ থেকে আমরা যখন ধীরে ধীরে সভ্যজগতে পদার্পণ করতে শিখেছি। সেইসাথে মনের ভাব প্রকাশের দিক দিয়েও আমাদের অনেক পরিবর্তন হয়েছে। আদিযুগের আদিম মানুষ মনের ভাব প্রকাশ করতে আকার ইঙ্গিতে। মানে চোখের ইশারায়। এরপর মুখের শব্দ ধ্বনিতে ডাক চিৎকার, হাউমাউ করে একে অপরের সাথে মনের ভাব বিনিম করতো। এরও অনেকে পরে হয়েছে ভাষার আবিস্কার। ভাষা আবিষ্কারের অনেক পরে ভাষার শব্দ নিয়ে বর্ণ চিহ্ন বা অক্ষরের আবিষ্কার। সেইসাথে শুরু হয় লিপি বা লেখার চেষ্টা। চেষ্টা সফল হলে আবিস্কার হয় লেখবার কলম ও পাত্র বা কাগজ। শুরু হয় বিভিন্ন দেশের ভিন্ন ভিন্ন জাতিগত ভাষা ও ভাষার গবেষণা। কেউ ইংরেজি, কেউ ফারসি, কেউ হিন্দি, কেউ উর্দু, কেউ আরবি, কেউ বাংলা নিয়ে। আবিষ্কার হয় বিভিন্ন দেশে বিভিন্নরকম ভাষা শেখার বইপুস্তক। শুরু হয় দেশবিদেশে শিক্ষা কার্যক্রম।

আমরা বাঙালি। বাংলা আমাদের মাতৃভাষা। মানে মায়ের ভাষা। যা আমরা শিশুকাল থেকে মায়ের মুখের ভাষা শুনে নিজেরাই বলতে শিখেছি। তাই বাংলা আমাদের মাতৃভাষা। আমাদের লেখা-পড়ার প্রথম ধাপই শুরু হয় বাংলা স্বরবর্ণ অ,আ,ই,ঈ, আর ব্যঞ্জনবর্ণ ক,খ,গ,ঘ দিয়ে। এরপরও বিভিন্ন দেশের ভাষাভাষীদের সাথে ভাব বিনিময়ের জন্য আমরা বিভিন্ন দেশের ভাষাও শিখে থাকি। পাশাপাশি শিখে থাকি হিসাব-নিকাশের নানারকম পদ্ধতিও। যেমন– শতকিয়া ১২৩৪ হতে ১০০শো পর্যন্ত। নামতা, যা গুন করার প্রযোজ্য হয়। অঙ্ক–করা হয় যোগ, বিয়োগ, পূরণ, ভাগ, লসাগু, গসাগু দিয়ে। আরও আছে ভূমির পরিমাপ জ্যামিতির হিসাব-নিকাশ ইত্যাদি ইত্যাদি।

তবে দিন যাচ্ছে তো মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাত্রাও বদলাচ্ছে। সাথে বদলে যাচ্ছে এককালের বাঙালি সনাতনী হিসাব-নিকাশের পদ্ধতিও। তাতে অবশ্য হিসাবের তেমন অসুবিধা হচ্ছে না, বরং দিনদিন ডিজিটাল পদ্ধতিতে খুব ভালোভাবেই হিসাবের কাজ চলছে।

তবে হেরফের দেখা যায় হিসাবসম্পর্কিত বেশ কিছু শব্দের অর্থের। কিছু শব্দ তাদের নিজস্ব আভিধানিক অর্থ হারিয়ে ঠাঁই নিয়েছে মানুষের মুখের ভাষায়। যার কারণে শব্দের মূল অর্থ পরিত্যাগ করে সম্পূর্ণ নতুন অর্থ ধারণ করে বসে আছে।
যেমন: এক নিমেষে, ক্ষণ, প্রতিক্ষণ, এক মুহূর্ত এমন আরও কিছু শব্দ। তবে এসব শব্দ আমরা একে অপরের সাথে হরহামেশাই ব্যবহার করি বা উচ্চারণ করি। কিন্তু আমরা এসব কিছু শব্দের সঠিক আভিধানিক অর্থ কী এবং আমরা ব্যবহারই বা করছি কীভাবে, তা অনেকের কাছেই থেকে যায় অজানা। তাহলে জেনে নিন এবং এক নিমেষে পড়ুন! আর ভাবুন শব্দের হিসাব কাকে বলে?

নিমেষ বা নিমেষে: 
আমরা হরহামেশাই বলে থাকি, ‘এতোদিনের সু-সম্পর্ক এক নিমেষে শেষ হয়ে গেল!’ কিন্তু এক নিমেষ কী? নিমেষ বা নিমেষে-এর আভিধানিক অর্থ হলো–পলকহীন/ মানে দেখতে না দেখতে যা ঘটে যায়! তাহলে এর সময় কতটুকু? এক নিমেষ বা নিমেষে= ১৬ মিনিটে এক নিমেষ।

ক্ষণ:
যেমন–যতক্ষণ, ততক্ষণ, সর্বক্ষণ, কিছুক্ষণ, দিনক্ষণ ইত্যাদি হলেও, আমরা কারোর প্রেমে ব্যর্থ হয়ে আফসোস করে বলে থাকি, ‘তোমার জন্য প্রতিটি ক্ষন পথের পানে চেয়ে থাকি!’ কিন্তু এই ক্ষণ কী এবং কত সময়? ক্ষণ /বিশেষ্য পদ/ কালের অংশবিশেষ; সময়, মুহূর্ত, অল্পকাল ক্ষণমাত্র.। ক্ষণকাল  /বিশেষ্য পদ/ অতি সামান্য সময়। তাই আমরা সবাই জানি কালের অতি অল্প সময় হলো ক্ষণ। এই ক্ষণেরও কিন্তু একটা সময় আছে! ক্ষণ’র সময় হলো, এক নিমেষের চার ভাগের এক ভাগ সময় অর্থাৎ ১৬÷৪=একটা ক্ষণ। তবে জ্যোতিষশাস্ত্রে একটা ক্ষণ ৪৮ মিনিটে।

দণ্ড:
যেমন–মানদণ্ড, মৃত্যুদণ্ড, গুরুদণ্ড, কারাদণ্ড, প্রাণদণ্ড ইত্যাদি ইত্যাদি।
আসল কথায় দণ্ড হলো দমনযন্ত্র! মানে যা দিয়ে দমন করা যায়। মানে চারহাত লম্বা   লাঠি বা ডাণ্ডা। দণ্ড মানে জরিমানা, শাস্তি। দণ্ড মানে সাজা।
জানা যায় কোনোএক সময় নির্ধারণের ঘড়ি বা সময়ের যন্ত্র আবিষ্কার হয়নি, তখন প্রাচীন ভারতে খাড়াভাবে স্থাপিত দণ্ডের ছায়া মেপে সময় নির্ণয় করতো। দণ্ডের ছায়া পরিমাপ করে হিসাব হতো—এক দণ্ড, দুই দণ্ড ইত্যাদি। দণ্ড’র সময়ের মাপ হলো ২৪ মিনিট।

পল:
পল এখন কেউ ব্যবহার করে না। কারণ পল’র টাইম খুব! কিন্তু এর আভিধানিক অর্থ থেকে যাবে চিরকাল। পল   /বিশেষ্য পদ/ ১/৬০ দন্ড বা ২৪ সেকেন্ড ক্ষণকাল। মানে মাত্র ২৪ সেকেন্ডে এক পল।

মুহূর্ত:
এক মুহূর্তের মধ্যে সে হারিয়ে গেলো। আমরা এই শব্দটা বারংবার ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু কিন্তু মুহূর্ত মানে কতো সময় সেটা নিয়ে কেউ ভাবি না। তাহলে মুহূর্ত কী এবং কতো সময়? মুহূর্ত  /বিশেষ্য পদ/ অত্যল্পকাল, সামান্য ক্ষণ! কিন্তু মুহূর্তটা বেশ বড়ো, বারো ক্ষণে এক মুহূর্ত! মানে দিবারাত্রের ত্রিশ ভাগের এক ভাগ ৪৮ মিনিট।

প্রহর:
যেমন–এক প্রহর, দুই প্রহর, ২৪ প্রহর, ৪৮ প্রহর ইত্যাদি ইত্যাদি। বিশেষ করে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের হরিনাম সংকীর্তনের পোস্টারে লেখা থাকে ২৪ প্রহর বা ৪৮ প্রহর ব্যপী হরিনাম সংকীর্তন। যার আভিধানিক অর্থ হলো প্রহর   /বিশেষ্য পদ/ দিনের বিভাগ। যা দিনরাতের অংশকে প্রহর বলি। কিন্তু প্রহর কতো সময়? এক প্রহর হলো তিনঘন্টা। আটপৌরে অর্থাৎ অষ্ট প্রহর হলো একদিন ও রাত, মানে ২৪ ঘন্টা।

ক্রোশ:
ক্রোশ, কোশ / দূরত্বের পরিমাপবিশেষ; দুই মাইলের কিছু বেশী। এই ক্রোশ আক্রোশ নয়! এই ক্রোশ রৈখিক হিসেবে মাপা হয়। তাহলে কতটা দূরত্বে এক ক্রোশ হয়? তিন আঙুল= এক মুষ্টি। তিন মুষ্টি≠ এক বিঘত। দুই বিঘতে এক হাত, চার হাতে এক ধনু, কুড়ি ধনুকে এক রশি আর দুই হাজার ধনুতে এক ক্রোশ। এখনকার দূরত্বের হিসাবে প্রায় আড়াই কিলোমিটারে এক ক্রোশ।

যোজন:
লেখকরা লেখে যোজন যোজন পথ হেঁটে চলেছে পথিক। কিন্তু এর দূরত্ব কতটুকু? যোজন   /বিশেষণ পদ/ একত্রকরণ; নিয়োজন; চারক্রোশ পরিমাণ দৈর্ঘ্য।
যোজন খুব বেশি পথ না! মানে দশ কিলোমিটারে এক যোজন।

বি.দ্র. আমি কোনও ভাষাবিদ নই! তথ্য সংগ্রহ করেছি অনলাইন অভিধান থেকে। আর লিখেছি নিজের মতো করে। 

ছবি সংগ্রহ ইন্টারনেট থেকে। 

৪৫২জন ২৩১জন
24 Shares

৩০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য