“বাদবাকি বুঝায় দেন ভাই,
আরে ভাই,শব্দার্থ তো বুজছি কিন্তু সারমর্ম টা বুঝি নাই।”

শীত ভোরে,
একটু তাকিয়ে দেখুন, কুয়াশা সকাল কেমন লাগে?
হোক তা শহুরে অঘুম-ঘুম চোখে;
গেঁয়ো পথের গ্রাম্যতা এড়িয়ে যেতে যেতে কুয়াশা ভেদ করে
সুপারি বা নারকেল গাছের পার্থক্য কী করে বুঝি?
শীত সকালের গ্রাম্য হাঁটে পথ-শিশুদের সাথে বসে থাকতে
সুখ সুখ লাগে নাকি?
ঘোলা জলের নদী তীরে বসে/দাঁড়িয়ে কী এমন খুঁজি?

প্রমাণ সাইজের আরশি সামনে সটান দাঁড়িয়ে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে
দেখলে কী দেখা যায়! কেউ কি আমাকে একটু বুঝিয়ে দেবে?

“এই লেখাটি ইট্টু কঠিন লাগছে।”

পৌষের হিম-কুয়াশায় নির্ঘুম-লিখিয়ের অকস্মাৎ হারিয়ে ফেলা
ছুঁয়ে যাওয়া স্বপ্ন-সিঁড়ির এক-ঝাঁক রূপকথার হিসেব…….
উথালপাথাল স্রোতের টানে দিক হারিয়ে ফেলা
মাঝি-ই জানে কষ্টের হিসেব…
অন্ধ-অরণ্যের সাদা কাশবন বা প্লাবিত জ্যোৎস্না কেমন করে কথা কয়!….
পদ্মায় ছুটে চলা ঝাঁক ইলিশের গন্তব্য জানা!…….
নিমেষে বিষণ্ণ হৃদয়ের দু’হাতে কতটুকু ঘূর্ণি বাতাস জমা রাখে
বিলম্বের অপরাহ্ণ ছায়ায়,
এ-সব, সবার হিসেব এট্টু কঠিন বলেই জানি;

৩৪৩জন ২৪১জন
0 Shares

৩৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য