এই ছবিটা ভালো ভাবে লক্ষ্য করুণ। সোনালী পটভূমিতে সোনালী টি-শার্ট গায়ে যার একমাত্র চুল আর চশমা ব্যতীত সারা অঙ্গ সোনালী। এটি সহজেই অনুমেয় যে, তিনি সোনালার ব্লগার, তাই তিনি ব্লগিং করতে করতে, করতে করতে সোনা রঙ এ নিজেকে পালটে ফেলেছেন। সাধারণত ফেইসবুকারগন ব্লগিং করতে পারেন না, অর্থাৎ ব্লগে এদের পোষায় না। ফেইসবুকের লাইক, কমেন্ট, ইনবক্সের কাছে ব্লগ খুবই সাদামাটা লাগে ফেইসবুকারদের কাছে। এই সোনালী মানুষটি এই প্রচলিত ধারণাকে মিথ্যে প্রমাণ করে একজন পারফেক্ট ব্লগার হয়ে উঠেছেন এবং তা অত্যন্ত অল্প সময়ের মধ্যে।

তাঁর সম্পর্কে কিছু জেনে নেয়া যাক, যা তিনি নিজেই বলেছেন তাঁর সোনেলা ব্লগ এর প্রফাইলে-
# তিনি কিছুটা কাঠখোট্টা, কিছুটা আবেগী টাইপ মানুষ। লেখালিখি করতে ভালোবাসেন, অনেকটা শখের বসেই লেখালিখি করেন।
# ভালোবাসেন নিজের মা মাটি দেশ। রাজাকার শব্দটিতে তাঁর আমার মতই এলার্জি আছে। চাটুকারদের একটু এড়িয়ে চলেন তিনি।
# সহজ সরল জীবনযাপন করেন তাই আশেপাশের মানুষজন তাঁকে অসামাজিক আখ্যা দিয়েছে। অথচ কোমলে কোঠরে মেশান তিনি এক অদ্ভুত হোমোসেপিয়েন্স।
# তার প্রিয় উক্তি- ” আমার কোন অতীত নেই, আমার কোন ভবিষ্যত নেই, আমি জন্ম হতেই বর্তমান।
আমি অতীত হবো মৃত্যুতে, আমি ভবিষ্যত হবো আমার রক্তকোষের দ্বি-বিভাজনে।”

তাঁকে জানতে হলে যে সব পোষ্ট পড়তে হবেঃ
একান্ত অনুভূতির ডায়েরী  
আমার ছেলেবেলা- সোলেমানী মন্ত্র 
আমি!

একটি ব্লগের অন্যতম সম্পদ সমসাময়িক লেখা। তিনি এ বিষয়ে প্রচুর লিখেছেন। যা থেকে কয়েকটি লেখার লিংক দিচ্ছি এখানে, যা আপনারা আবার পড়ে দেখতে পারেন। সমসাময়িক লেখায় তাঁর পর্যবেক্ষণ, যুক্তি, উপসংহার দিতে পারেন তিনি।
মুরগীর খামারে শেয়াল চৌকিদার 
সরকারি সেবা, আমাদের প্রাপ্তি এবং অসহায়ত্ব 
ছেলেধরা গুজব! মব সাইকোলজিতে আক্রান্ত কিছু মানুষ

একান্ত অনুভুতি বিভাগে প্রকাশিত লেখায় একজন লেখক তাঁর নিজস্ব চিন্তা ভাবনা প্রকাশ করেন। যে লেখাগুলো পঠনে তাঁর নিজস্ব একান্ত চিন্তা ভাবনা সম্পর্কে পাঠককে বুঝতে সাহায্য করে। তিনি প্রচুর একান্ত অনুভুতি বিভাগে লেখা প্রকাশ করে নিজেকে চিনিয়েছেন প্রবল ভাবে। তাঁর লেখা এসব পোষ্ট সোনেলাকে সমৃদ্ধ করেছে।
অকালবসন্ত পথে অমোঘ যাত্রা-   
সাতকাহন
আমিই আলফা আমিই ওমেগা
আমার কিছু প্যাঁচালি কথা
বিদগ্ধ অস্তিত্বের চিহ্ন
দেহলোভী কামনা!
ফসিল রিপুর আর্তনাদ 
মিথ্যে সম্পর্কের দাম্ভিকতা আর কত? 
চোখে তিমি মাছের স্বপ্ন
বাহে’র গল্প- পর্ব ০২ ( রংপুরের বিখ্যাত হাড়িভাঙ্গা আম)

সোনেলায় জন্মদিনের শুভেচ্ছা পোষ্ট প্রচলিত আছে প্রথম থেকেই। এ ধরনের পোষ্ট ব্লগারদের মধ্যে আন্তরিকতা এবং যোগাযোগ বৃদ্ধি করে। এমন জন্মদিনের পোষ্ট যে কোনো ব্লগারই দিতে পারেন। এটি যে সোনেলা ব্লগ দিবেন এমন কোনো কথা নেই। ব্লগ টিমের সাথে কথা বলে জেনেছি যে সোনেলা ব্লগ আশা করে যে এমন শুভেচ্ছা মুলক পোষ্ট ব্লগাররা নিজেরাই যেন দেন।
আমার বিবেচনায়, তাঁর দেয়া জন্মদিনের শুভেচ্ছা- পোষ্টটি সোনেলার শুভেচ্ছা পোষ্ট সমূহের মাঝে অন্যতম সেরা পোষ্ট।

তিনি রম্য লেখায়ও সিদ্ধ হস্ত। তাঁর প্রকাশিত রম্য লেখার মাঝে এটিই সেরা মনে হয়
ফেসবুক কামলা – Work’s at Facebook 

সোনেলার বিভিন্ন সুবিধা নিয়ে পোষ্টঃ
নতুন এবং পুরাতন ব্লগারদের অবশ্য পাঠ্য তাঁর লেখা তিনটি পোষ্ট।
খুব সহজেই ছবির আকার পরিবর্তন করুনঃ
সোনেলা ব্লগে ছবি যোগ করবেন যেভাবে
সোনেলা ব্লগের লেখা যেভাবে শেয়ার করবেন 

তিনি কবিতাও লেখেন। কবিতা লিখতে গিয়ে তিনি মিছে মরীচিকা  র পিছনে ছোটেন না এটি তারই প্রমাণ।

চিঠিঃ সোনেলায় চিঠি বিভাগ চালু হবার পরপরই তিনি দিয়ে দিলেন শিশিরের কাছে একটি চিঠি।
প্রাপক শিশির

তিনি সেঞ্চুরী করলেন এই পোষ্ট দিয়ে।

এতক্ষন যার কথা বললাম, শততম পোষ্টের জন্য অনেক অনেক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন ব্লগার তৌহিদকে  

দুইশত পোষ্টের জন্য সময় বেঁধে দেয়া হলো একশত পঞ্চাশ দিন। এর বেশী সময় দেয়া যায় না 🙂

 

 

২৭৭জন ২১জন
46 Shares

৪৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য